সর্বশেষ
মঙ্গলবার ২রা মাঘ ১৪২৪ | ১৬ জানুয়ারি ২০১৮

জাবিতে ৮০ ভাগ শিক্ষার্থী দারিদ্রসীমার নিচে

রবিবার ২৬শে নভেম্বর ২০১৭

জাবি প্রতিনিধি :
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে শতকরা ৮০ ভাগ শিক্ষার্থী দারিদ্রসীমার নিচে অবস্থান করছে। দারিদ্ররেখা নিরূপণে ‘মৌলিক চাহিদা পূরণে ব্যয়’ পদ্ধতিতে ২২৫ জন শিক্ষার্থীর খাদ্যাভ্যাস ও পুষ্টি গ্রহণ বিষয়ক এক জরিপের এ তথ্য উপস্থাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগরে ৪১ ব্যাচের শিক্ষার্থী ইশতিয়াক রায়হান।

আজ রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থশাস্ত্র পাঠচক্রের আয়োজনে 'মাথাপিছু কিলোক্যালরি গ্রহণের মাত্রা ও দরিদ্রতা নিরূপণ' শীর্ষক সেমিনারে তিনি এ তথ্য উপস্থাপন করেন।

ওই জরিপে তিনি দেখান, বিশ্ববিদ্যালয়ের মাত্র ২০ শতাংশ শিক্ষার্থী ন্যূনতম প্রয়োজনীয় খাদ্য ও পুষ্টি গ্রহণ করছে। অর্থাভাব, খাদ্যাভ্যাসসহ বিভিন্ন কারণে ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থী ন্যূনতম পুষ্টি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্যেক শিক্ষার্থী গড়ে ১৮২১ কিলোক্যালরি পুষ্টি গ্রহণ করছে বলে তিনি ওই জরিপে উল্লেখ করেন। যা একজন মানুষের দৈনন্দিন প্রয়োজনীয় ২৮০০ কিলোক্যালরি অপেক্ষা অনেক কম।

এছাড়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের 'পুষ্টি ও খাদ্য বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট' এর এক জরিপে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গড় পুষ্টি গ্রহণের পরিমাণ ১৫০০ কিলোক্যালরি দেখিয়েছে বলেও তিনি জানান। এছাড়া তিনি বিশ্ববিদ্যালয়কে যে কোনো উপায়ে শিক্ষার্থীদের জন্য মানসম্মত খাদ্য সরবরাহের পদক্ষেপ গ্রহণ ও শিক্ষার্থীদের জন্য মাসিক ১২৫ টাকা হারে প্রদেয় সম্পূরক বৃত্তির পরিমাণ বৃদ্ধির দাবি জানান।

সেমিনারে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সুবিধাভোগী জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত। এদের পুষ্টি চাহিদা পূরণের জন্য সরবরাহকৃত খাদ্যের গুণগত মান নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ। শিক্ষার্থীদের খাদ্য ও পুষ্টির বিষয়ে সরকারকে সচেতন হওয়া উচিৎ। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও সরকারের প্রচেষ্টায় ভবিষ্যৎ প্রজন্মের স্বার্থে শিক্ষার্থীদের জন্য পুষ্টিমান সমৃদ্ধ খাদ্য সহজলভ্য করা জরুরি বলেও মনে করেন তিনি।

সেমিনারে অর্থনীতি বিভাগরে অধ্যাপক খন্দকার মো. আশরাফুল মুনিম, অধ্যাপক মুহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, অধ্যাপক আসরারুল ইসলাম চৌধুরী, সহযোগী অধ্যাপক শরমিন্দ নীলোর্মি, সহকারী অধ্যাপক নাহিদ সুলতানা এবং বিভাগের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকা, রবিবার ২৬শে নভেম্বর ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // ম এইচ ন এই লেখাটি 36 বার পড়া হয়েছে