সর্বশেষ
রবিবার ৮ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

বইমেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নতুন বই

সোমবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০১৮

image-24695-1519577020.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

অমর একুশের গ্রন্থমেলায় এসেছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নতুন বই ‘নির্বাচিত ১০০ ভাষণ (২০১৪-২০১৭)’।

বইটির প্রধান সম্পাদক হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ও স্বনামখ্যাত সাংবাদিক ইহসানুল করিম। গ্রন্থনা ও সম্পাদনায় রয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর অতিরিক্তি প্রেস সচিব মো. নজরুল ইসলাম। ৫৫২ পৃষ্ঠার বইটি ঢাকার জিনিয়াস পাবলিকেশন্স’র পক্ষে প্রকাশক হচ্ছেন মো. হাবিবুর রহমান। সহযোগিতায় রয়েছেন শাওন চৌধুরী। বইটি প্রধানমন্ত্রী উৎসর্গ করেছেন তাঁর পিতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ও মা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিবকে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৪ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত চার বছরে দেশ-বিদেশে যেসব ভাষণ দিয়েছেন তার মধ্য থেকে বাছাই করে একশ’ ভাষণ এই বইয়ে প্রকাশ করা হয়েছে। ভাষণের মধ্যে রয়েছে ১৯তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-২০১৪ উদ্বোধনী, অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৪ উদ্বোধনী, সার্ক সাহিত্য উৎসব উদ্বোধন, স্বাধীনতা পুরস্কার ২০১৪, নৌবাহিনীর জাহাজ আবু বকর ও আলী হায়দার-এর কমিশনিং অনুষ্ঠান, বঙ্গোপসাগরে উষ্ণমন্ডলীয় সামুদ্রিক ঘূর্ণিঝড় বিষয়ে ডব্লিউএমও/এসক্যাপ প্যানেল-এর অধিবেশন, মহান মে দিবস ২০১৪-২০১৫ পরবর্তী উন্নয়ন এজেন্ডায় অভিবাসন সংক্রান্ত বৈশ্বিক বিশেষজ্ঞ সভা উদ্বোধন, ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৪ উদ্বোধন, বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০১৪, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৪, সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ ২০১৪ পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান, ব্লু-ইকোনমি আন্তর্জাতিক সেমিনার, এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা প্রধানগণের সম্মেলন, আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস ২০১৪, ডব্লিউএইচও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া মন্ত্রিপর্যায়ের সম্মেলন, বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার অটিজম বিষয়ক ইভেন্ট, বিমসটেক সচিবালয় উদ্বোধন, দ্বিতীয় বিশ্ববাঘ স্টকিং সম্মেলন, জাতিসংঘে বাংলাদেশের সদস্য লাভের ৪০ বছরপূর্তি স্মারক বক্তৃতা, আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ ফোরাম ২০১৪, ৬৯তম জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশন, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন ও সাবের হোসেন চৌধুরীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান, বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার, বাংলাদেশ বেতারের হিরক জয়ন্তী উদ্বোধন, বাংলাদেশ টেলিভিশনের সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব, জাতির উদ্দেশে ভাষণ ৫ জানুয়ারি ২০১৫, অর্থনীতি সমিতির ১৯তম সম্মেলন, শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন, অমর একুশে গ্রন্থমেলা-১৯১৫, বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিয়ষক সম্মেলন, আন্তর্জাতিক সুফি সম্মেলন ২০১৫, একুশে পদক ২০১৫ প্রদান অনুষ্ঠান, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৩, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৪তম জন্মবার্ষিকীর উদ্বোধন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের জন্মদিবস উদযাপন, জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭০তম অধিবেশন, প্রধানমন্ত্রীর চ্যাম্পিয়ন অব দ্য আর্থ এবং আইসিটি পুরস্কার অর্জনে এফবিসিসিআিই সংবর্ধনা, বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরাম-২০১৫সহ প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত একশ’ বাছাই ভাষণ এ বইয়ে স্থান পেয়েছে।

বইয়ের ইনার পেজে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের দুটি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুটি প্রতিকৃতি ছাড়াও বইয়ের শেষ পর্বে রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর বিভিন্ন অনুষ্ঠানের পনেরটি আলোকচিত্র। এরমধ্যে রয়েছে বঙ্গবন্ধু প্রণীত ‘কারাগারের রোজনামচা’ গ্রন্থের প্রকাশনা উৎসবে গ্রন্থটির একটি পৃষ্ঠা দর্শকদের কাছে প্রদর্শনের এবং জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর প্রদত্ত বেতার ও টিভি ভাষণের একটি ছবি। প্রচ্ছদের দ্বিতীয় তৃতীয় পাতায় শেখ হাসিনার সংক্ষিপ্ত জীবনী ও তাঁর প্রকাশিত বইয়ের নাম এবং প্রচ্ছদের চতুর্থ পৃষ্ঠায় রয়েছে বইয়ে পত্রস্থ ভাষণ বিষয়ে সংক্ষিপ্ত বিবরণ।

বইটির বিষয়ে প্রচ্ছদের পাতায় সংক্ষিপ্ত বিবরণে বলা হয়েছে, ‘নির্বাচিত ১০০ ভাষণ’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেওয়া ভাষণগুলোর মধ্য থেকে বাছাই করা ভাষণের সংকলন। ২০১৪ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য ভাষণ নিয়ে সংকলনটি সাজানো হয়েছে। বক্ষ্যমান সংকলনে নির্বাচিত ভাষণগুলোতে আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন চিন্তা, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক দর্শন এবং জনকল্যাণকামী কর্মসূচি বা পরিকল্পনার পরিচয় পাবো।’

মুখবন্ধে বইয়ের প্রধান সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম ভূমিকায় লিখেছেন ‘প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে ইতোপূর্বে ২০০৯ পরবর্তী সময়ের ভাষণসমূহ ‘জনগণের ক্ষমতায়ন শান্তি ও উন্নয়ন’ শীর্ষক সংকলনে তিন খন্ডে প্রকাশ করা হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ আর্থ-সামজিক উন্নয়নে বিপুল অগ্রগতি অর্জন করেছে। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ এক সময় ক্ষুধা-দারিদ্র্য এবং খরা-বন্যাপীড়িত দেশ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছিল। সাহায্য এবং অনুদানের টাকা ছাড়া বাজেট বাস্তবায়িত হতো না। সেই পরনির্ভরশীলতা কাটিয়ে বাংলাদেশ আজ সর্বক্ষেত্রে স্বনির্ভরতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে উন্নয়নের ‘রোল মডেল’ হিসেবে স্বীকৃতি দৃশ্যমান হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সমগ্র চিন্তা চেতনায় রয়েছে স্বদেশ ও দেশের মানুষ। সাধারণ মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের মাধ্যমে একটি সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়া ও জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা তার জীবনের অন্যতম লক্ষ্য। তাঁর সকল বক্তৃতা-বিবৃতিতে দেশের মানুষের কল্যাণের বিষয়টি স্বতস্ফূর্তভাবে প্রাধান্য পেয়ে থাকে।’

বইয়ের প্রকাশক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেন, ‘বইটির ভাষণগুলোতে বঙ্গবন্ধুর জীবন, তাঁর পরিবার, তাঁর রাজনীতি, বাবা-মা, ছেলে-মেয়েসহ বিপুল ইতিহাসের তথ্য রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চিন্তা-চেতনা, তাঁর কর্ম, রাষ্ট্র পরিচালনার নানা বিষয় অত্যন্ত সাবলীলভাবে উঠে এসেছে।

বইটি হচ্ছে একজন প্রধানমন্ত্রীর জীবনের নানা ইতিহাস। বইয়ের অসংখ্য ভাষণ পাঠকের মনকে ভাবিয়ে তুলবে। কোন কোন ভাষণ পড়লে চোখে জল এসে যাবে। পাঠক জানতে পারবে একজন মানুষ কি করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশ গড়ার প্রত্যয়ে কাজ করছেন। এই বই দেশের সব মানুষের তথা সকল নীতি আদর্শের মানুষেরই ভালো লাগবে। দেশের প্রতিটি পরিবারে এই বই থাকা প্রয়োজন, তাদের সন্তানদের তথ্যগুলো জানার জন্যে।

অফসেট কাগজে ছাপা বইটির প্রচ্ছদ এঁকেছেন রাজিবুল রহমান রোমেল। বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ৭৫০ টাকায় মেলায় জিনিয়াস পাবলিকেশন্সের স্টলে বইটি পাওয়া যাচ্ছে। বাসস


ঢাকা, সোমবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ৩০৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন