সর্বশেষ
বুধবার ৬ই আষাঢ় ১৪২৫ | ২০ জুন ২০১৮

গণোরিয়া ও কুষ্ঠরোগ চিকিৎসায় শিয়ালকাঁটা

মঙ্গলবার, মার্চ ৬, ২০১৮

Capture.JPG
বিডিলাইভ ডেস্ক :

অসুখ বা শরীর খারাপ যেকোনো সময় যে কারো হতে পারে। আর অসুস্থ হলেই আমরা তা নিরাময়ের জন্য চিকিৎসকের কাছে ছুটি। তবে আমাদের চারপাশে এমন কিছু উপাদান আছে যা দিয়ে বহু জটিল রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। তেমনি একটি ঔষধি গাছ হচ্ছে শিয়ালকাঁটা। এই গাছ কুষ্ঠ রোগের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়।

ড. তপন কুমারের ‘বাংলাদেশের প্রয়োজনীয় গাছ-গাছড়া’র বইয়ে এর আরো কিছু গুণাবলি তুলে ধরা হয়েছে। নিম্নে তা তুলে ধরা হলো-

# শিয়ালকাঁটার রস ক্ষতরোগে উপকারী।

# শিয়ালকাঁটা গাছের রস, চন্দন গাছের রসের সঙ্গে মিশ্রিত করে কুষ্ঠ রোগ নিরাময়ে ব্যবহার করা হয়। এটি বেশ কার্যকরী একটি উপাদান।

# শিয়ালকাঁটার তেল ৩০-৬০ ফোঁটা পরিমান রক্ত আমাশয়ে ব্যবহৃত হয়।

# বোলতা ও ভীমরুল কামড়ালে মূল প্রলেপ স্বরূপ ব্যবহৃত হয়।

# বীজের তেল সরিষার তেলের সঙ্গে মিশিয়ে পাঁচড়া ও চুলকানি রোগে বিশেষ ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

# এর আঠা গণোরিয়া ও কুষ্ঠরোগে ব্যবহৃত হয়।

পরিচিতি :
শিয়ালকাঁটা সাধারণত- শুকনা জায়গাতেই জন্মে, সরস জায়াগা পছন্দ করে না। শিয়ালকাঁটা বীরুৎ জাতীয় উদ্ভিদ, এক মিটার আন্দাজ উঁচু এবং খাড়া কাণ্ড বিশিষ্ট উদ্ভিদ। এর পাতাগুলি ঢেউ খেলানো। পাতাগুলির কিনারা অল্পখণ্ডিত ও ধারালো কাঁটাযুক্ত। এ গাছের রস (তরুক্ষীর) গাঢ় এবং উজ্জল হলুদ রঙের। ফল পীতবর্ণ, ফল দেখতে কালো সরিষার ন্যয়। একটি ফলে বহু বীজ থাকে।

 


ঢাকা, মঙ্গলবার, মার্চ ৬, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি ৫০২ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন