সর্বশেষ
শনিবার ৭ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দেশে প্রথমবারের মতো শিশু-কিশোর প্যালিয়েটিভ ওয়ার্ড চালু

শুক্রবার, মার্চ ১৬, ২০১৮

1.jpg
বিডিলাইভ রিপোর্ট :

ক্যান্সারসহ বিভিন্ন নিরাময় অযোগ্য রোগে আক্রান্ত শিশু-কিশোর-কিশোরীদের যন্ত্রণা লাঘবে নতুন উদ্যোগ নিয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যালিয়েটিভ বিভাগ। এ বিভাগের উদ্যোগে দেশে প্রথমবারের মতো চালু হলো শিশু-কিশোর প্যালিয়েটিভ কেয়ার ওয়ার্ড।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ই-ব্লকের পঞ্চম তলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ ওয়ার্ডটির শুভ উদ্বোধন করেন।

এ সময়ে প্যালিয়েটিভ বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. নিজাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, শিশু-কিশোর প্যালিয়েটিভ কেয়ার ওয়ার্ডে ক্যান্সার, জন্মগত বিকলাঙ্গ, মাসকুলার ডিসট্রফি, সেরেব্রাল পালসি (মস্তিষ্ক পক্ষাঘাতগ্রস্থতা)সহ বিভিন্ন জটিল ও কঠিন রোগে আক্রান্ত যে সকল শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের রোগ অনিরাময়যোগ্য তাদের চিকিৎসা ও যন্ত্রণা লাঘবে এ বিভাগ থেকে সেবা দেওয়া হবে।

বর্তমানে বাংলাদেশে কমপক্ষে ৩৫ হাজার শিশু-কিশোরদের এই সেবাটি দেয়া প্রয়োজন। যদিও চারটি শাখা নিয়ে বিএসএমএমইউয়ের শিশু-কিশোর প্যালিয়েটিভ কেয়ার ওয়ার্ড-এর শুভ যাত্রা হলো।

প্যালিয়েটিভ সেবা সমগ্র দেশে ছড়িয়ে দিতে প্যালিয়েটিভ বিষয়ে দেশের সমস্ত মেডিকেল কলেজগুলোতে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা জরুরি। মেডিকেল শিক্ষা ব্যবস্থাতেও প্যালিয়েটিভ সেবাকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে শিক্ষার্থীদের শেখানো উচিত বলেও জানান তিনি।  

সেখোনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য শিশু-কিশোর প্যালিয়েটিভ কেয়ার ওয়ার্ডের আরো উন্নয়ন ও সম্প্রসারণে সব ধরণের সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন।

এ সময় সেখানে উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলী আসগর মোড়ল, পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আব্দুল্লাহ আল হারুন, প্যালিয়েটিভ বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. নিজাম উদ্দিন আহমেদ, শিশু হেমাটোলজি ও শিশু অনকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. চৌধুরী ইয়াকুব জামাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


ঢাকা, শুক্রবার, মার্চ ১৬, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // এস আর এই লেখাটি ৪৬২ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন