সর্বশেষ
শুক্রবার ৬ই বৈশাখ ১৪২৬ | ১৯ এপ্রিল ২০১৯

কোটা সংস্কার: বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন

মঙ্গলবার, এপ্রিল ১০, ২০১৮

10.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

কোটা সংস্কার আন্দোলনে থাকা ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের একটি অংশ সরকারের আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দিলেও তা প্রত্যাখ্যান করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে রাজধানীর বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

তাদের আন্দোলনের কারণে মঙ্গলবার বেলা ১২টার পর থেকে রামপুরা থেকে বসুন্ধরা পর্যন্ত বীর উত্তম রফিকুল ইসলাম এভিনিউ এবং প্রগতি সরণি হয়ে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

রামপুরা ব্রিজের কাছে ইস্ট ওয়েস্ট; বসুন্ধরা গেইটে নর্থসাউথ, ইনডিপেন্ডেন্ট ও ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, এআইইউবি এবং নতুনবাজার এলাকায় ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেসের (ইউআইটিএস) শিক্ষার্থীরা এই আন্দোলনে রয়েছে।

ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সোমবারও রামপুরা ব্রিজে অবস্থান নিয়ে আধা ঘণ্টা বিক্ষোভ দেখিয়েছিল। মঙ্গলবার তারা একই জায়গায় অবস্থান নিলে রামপুরা ব্রিজ হয়ে বাড্ডাগামী সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

ইউআইটিএস-এর শিক্ষার্থীরা অবস্থান নিয়ে আছে ভাটারা থানার সামনে থেকে শুরু করে বাড্ডা-রামপুরাগামী সড়কে। ফলে রামপুরা থেকে নতুন বাজার হয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বেলা ১২টার দিকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার প্রধান গেইটে অবস্থান নেয়। পরে ইনডিপেন্ডেন্ট, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ও এআইইউবির শিক্ষার্থীরা তাদের সঙ্গে যোগ দিলে প্রগতি সরণির দুই দিকেই যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

নর্থ সাউথের এনভায়রনমেন্ট সায়েন্স বিভাগের শিক্ষার্থী তাজিন মাহমুদ আশিক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “কোটা সংস্কার না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে এবং সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত ভাই-বোনদের সাথে আমরা একাত্মতা প্রকাশ করছি।”

আশিক জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোটা সংস্কারের আন্দোলন শুরুর পর ফেইসবুকে ইভেন্ট খুলে মঙ্গলবার তারা আন্দোলনে নামেন।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেক শিক্ষার্থী আলামিন হক অপু বলেন, “আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সড়কে অবস্থান করব।”

সরকারি চাকরির কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ এর ব্যানারে আন্দোলনে থাকা শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থীরা রোববার শাহবাগ মোড় অবরোধ করলে পুলিশ তাদের রাবার বুলেট ও কাঁদুনে গ্যাস ছুড়ে সরিয়ে দেয়। এরপর রাতভর ক্যাম্পাসে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশ ও ছাত্রলীগের সংঘর্ষ চলে।

সোমবার বিকালে সচিবালয়ে সরকারের সঙ্গে বৈঠকের পর আন্দোলনকারীদের ২০ সদস্যের প্রতিনিধি দলের পক্ষ থেকে আন্দোলন ৭ মে পর্যন্ত স্থগিতের ঘোষণা দেওয়া হয়।

কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অবস্থানে থাকা আন্দোলনকারীরা ওই ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে সরকারকে ১৫ দিনের সময় বেঁধে দিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়।

সূত্র: বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম


ঢাকা, মঙ্গলবার, এপ্রিল ১০, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // জে এইচ এই লেখাটি ১১৬২ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন