সর্বশেষ
মঙ্গলবার ৮ই কার্তিক ১৪২৫ | ২৩ অক্টোবর ২০১৮

'অপতথ্য ছড়ানোয় ছাত্রীদের অভিভাবকের কাছে দেওয়া হয়েছে'

শুক্রবার, এপ্রিল ২০, ২০১৮

Prof.+Akhtaruzzaman.jpg
বিডিলাইভ রিপোর্ট :

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কবি সুফিয়া কামাল হলের ছাত্রীদের মাঝরাতে বের করে দেওয়া হয়নি বলে দাবি করেছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান। তিনি বলেছেন,  ‘অপতথ্য ছড়ানোয়’ তাদের অভিভাবকের কাছে তুলে দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে সুফিয়া কামাল হলের তিন ছাত্রীকে অভিভাবক ডেকে এনে তাঁদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। ফেসবুকে বিভ্রান্তি ছড়ানোর অভিযোগে এটি করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

আজ শুক্রবার সকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় এসব কথা বলেন ঢাবি উপাচার্য।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্নভাবে গুজব, উসকানি ও মিথ্যা কথা ছড়ানো হচ্ছে। কোনো গুজবে কান দেবেন না। সাধারণ শিক্ষার্থীদের কোনো ধরনের হয়রানি করা হবে না। তিনি বলেন, হল কর্তৃপক্ষ অভিভাবকসুলভ আচরণ করেছে।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে কবি সুফিয়া কামাল হল থেকে কয়েকজন ছাত্রীকে কর্তৃপক্ষ ‘বের করে দেয়’। এই খবরের পরিপ্রেক্ষিতে সাংবাদিকদের বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান পরিষ্কার করেন উপাচার্য।

উপাচার্য বলেন, ‘আন্দোলনকারী আর উসকানিদাতা এক নয়। আন্দোলন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে ঐতিহ্যপূর্ণ। এটা খুব স্বাভাবিক। যৌক্তিক দাবিতে আন্দোলন করতে পারে যে কেউ। তবে উসকানি দেওয়া আর আন্দোলন এক নয়। আমরা আন্দোলনকে সমর্থন করি, উসকানিকে নয়।’ কোটা সংস্কার আন্দোলন সাধারণ শিক্ষার্থীদের হলেও এতে অপশক্তি ঢুকে গিয়েছিল বলে মনে করেন তিনি।

তিনি জানান, কোনো সাধারণ শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন হয়রানি করেনি। হাজার হাজার ছাত্র এই আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত ছিল। এর মধ্যে মাত্র ২৫/২৬ জনকে চিহ্নিত করেছে তদন্ত কমিটি। তিনি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত না হয়ে কোনো সংবাদ পরিবেশন করা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ভুল সংবাদ বিভ্রান্তি তৈরি করে।


ঢাকা, শুক্রবার, এপ্রিল ২০, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ৪৪৮ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন