সর্বশেষ
শুক্রবার ১১ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ | ২৫ মে ২০১৮

যে কারণে গেইলদের সঙ্গে হারল কেকেআর

রবিবার, এপ্রিল ২২, ২০১৮

chalbazz_0.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

ঘরের মাঠে হতাশ করল কেকেআর। ঘরের মাঠেই মুখ থুবড়ে পড়ল নাইটদের যাবতীয় বিক্রম। ব্যাট হাতে ফের রুদ্রমূর্তিতে ক্রিস গেইল। সঙ্গে লোকেশ রাহুলের অসাধারণ ইনিংস। তবে নাইটদের হারের পিছনে শুধু এ বিষয়টি যথেষ্ট নয়, একাধিক কারণ রয়েছে।

ইডেনে শুরুটা ভালোই করেছিল নাইটরা। রান রেট দেখে মনে হচ্ছিল, ২১৫-২২০ হবে। কিন্তু কার্তিকরা দু’শো টপকাতে পারেননি। শেষ পাঁচ ওভারে রাসেলের ঝড় আটকে গেল। রাসেল সাধারণত সোজা সোজা শট খেলতে ভালবাসেন। যে কারণে লংঅফ একটু সোজা করে রেখেছিলেন পাঞ্জাব অধিনায়ক। সেখানেই ক্যাচ তুলে আউট হলেন রাসেল।

ক্রিস লিন বা দীনেশ কার্তিকের ব্যাট থেকে রান এসেছে। কিন্তু ব্যর্থ হয়েছেন কেকেআর-এর অন্যতম বড় ভরসা নীতীশ রানা। অবিবেচকের মতো রান আউট হয়ে যান তিনি। গুরুত্বপূর্ণ সময় রবিন উথাপ্পা বা কার্তিকের আউট দলের বড় রানের স্বপ্নকে থমকে দেয়।

কেকেআর-এর সেরা বোলার সুনীল নারাইনকে পাওয়ার প্লে-র মধ্যে আনা হলেও ততক্ষণে ম্যাচ ধরে নিয়েছে পাঞ্জাব। বৃষ্টিতে যখন খেলা বন্ধ হয়, তখন পাঞ্জাবের স্কোর ছিল বিনা উইকেটে ৯৬। ওখানেই ম্যাচ শেষ হয়ে যায়। পরে ডাকওয়ার্থ-লুইস নিয়মে ১২৫ রানের লক্ষ্য ১১ বল বাকি থাকতে তুলে নেয় পাঞ্জাব।

গত কয়েকটি ম্যাচে স্পিনাররা নাইটদের বোলিং শুরু করলেও ইডেনে কিন্তু শিবম মাভি ও আন্দ্রে রাসেলের হাতে বল তুলে দেয়া হয়েছিল। গেইলকে শুরুতেই থামাতে স্পিনারদের কেন বল দেয়া হল না, সেই প্রশ্ন তুলছেন অনেক বিশেষজ্ঞ। তাদের মতে, সুনীল নারাইনকে শুরুতে আনলে অনেক লাভ হত। আর এখানেই উঠছে দীনেশ কার্তিকের অধিনায়কত্ব নিয়ে প্রশ্ন।

পাঞ্জাবের দুই ওপেনিং ব্যাটসম্যানের দাপট। যে ফর্মে কে এল রাহুল এবং ক্রিস গেইল ব্যাট করে গেলেন, তাতে বিপক্ষের সব প্রতিরোধ খড়কুটোর মতো উড়ে গেছে। একটি বারের জন্যও এই ওপেনিং জুটিকে বেগ দিতে পারেননি নাইটের বোলাররা।

সবশেষে বলতেই হবে ডাকওয়ার্থ-লুইস(ডিএল) পদ্ধতির কথা। বৃষ্টির জন্য এক ঘণ্টা ৩৫ মিনিট খেলা বন্ধ থাকার পরে যেন অনেক কিছু পাল্টে যেতে দেখা গেল। ইনিংস শুরুর সময় গেইলদের দরকার ছিল গড়ে ৯.৬ রান। আর ডিএল পদ্ধতির ফলে দেখা গেল পঞ্জাবের দরকার পড়ল ২৮ বলে ২৯ রান। অর্থাৎ প্রয়োজনীয় গড় নেমে আসে প্রায় ছয়ে।


ঢাকা, রবিবার, এপ্রিল ২২, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি ৫৪৭ বার পড়া হয়েছে