সর্বশেষ
রবিবার ২রা পৌষ ১৪২৫ | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮

ঢামেক হিমাগারে শিশুর মরদেহ কুরে খেলো ইঁদুর!

শুক্রবার, মে ৪, ২০১৮

image-31825-1525360570.jpg
বিডিলাইভ রিপোর্ট :

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগের হিমাগারে রাখা দেড় বছর বয়সী এক শিশুর গালের একাংশ ইঁদুরে খেয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ অভিযোগ উঠেছে। শিশুটির বাবার নাম সোহাগ হাওলাদার। তার বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফলে।

‘পোড়া ঘায়ের যন্ত্রণা নিয়া অনেক কষ্ট পেয়ে আমার ছেলেটা মারা গেলো, কিন্তু তাও রক্ষা পেলো না। হাসপাতালের হিমাগারে কয়েক ঘণ্টা রাখার পর দেখি মরা ছেলেটারে ইঁদুর খাইছে। মারা যাওয়ার পরও আমার ছেলেটা রক্ষা পাইলো না!’

বিলাপ করে কথাগুলো বলছিলেন মৃত দেড় বছরের শিশু সোহানের বাবা সোহাগ হাওলাদার।

শিশুটির চাচা সুজন হাওলাদার বলেন, ১৬ ভাগ পোড়া ক্ষত নিয়ে ঢামেকে সোহানকে ভর্তি করা হয়। মারা যাওয়ার পর তার মরদেহ হিমাগারে রেখে গেলাম। এখন তার গালে এতো বড় ক্ষত কেন? ওর গালে তো কোনো ক্ষত ছিল না!

এ ঘটনায় ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একে এম নাসির উদ্দিন শিশুটির স্বজনদের স্বান্তনা দিয়ে বলেন, বিষয়টি খুব বেদনাদায়ক, কেন শিশুটির গালে ক্ষত হলো! যারা এই বিভাগের হিমাগারের দায়িত্বে আছেন তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে, ভবিষ্যতে যেন এমন দুঃখজনক ঘটনা আর না ঘটে।

গুলশান থানার উপ-পরিদর্শক ফারুখ আলম জানান, গত ২৫ এপ্রিল ভাটারা থানাধীন নর্দার একটি বাসায় সোহান হাওলাদার (১৮ মাস) নামের শিশুটির গায়ে গরম ডাল পড়ে। এতে তার শরীরের ১৬ ভাগ পুড়ে যায়।

বৃহস্পতিবার (৩ মে) সকাল সাড়ে ৭টায় ঢামেকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পর শিশুটির মরদেহ জরুরি বিভাগের হিমাগারে রাখা হয়।

উপ-পরিদর্শক ফারুখ বলেন, শিশুটির স্বজনরা থানায় জানালে ঢামেকে আসি। মরদেহ হিমাগার থেকে বের করে দেখি তার বাম পাশের গালে ক্ষত। ক্ষতস্থানটি ছিল রক্তাক্ত। সম্ভবত ফ্রিজের দরজা খোলা ছিলো। শিশুটির গাল সম্ভবত ইঁদুরে খেয়েছে। অব্যবস্থাপনার জন্যই এমনটি হয়েছে।


ঢাকা, শুক্রবার, মে ৪, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ১১২৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন