সর্বশেষ
বৃহঃস্পতিবার ৩রা কার্তিক ১৪২৫ | ১৮ অক্টোবর ২০১৮

স্মার্টফোন কেনার সময় খেয়াল রাখুন কিছু বিষয়

সোমবার, মে ১৪, ২০১৮

8_0.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় স্মার্টফোন এখন আমাদের নিত্যসঙ্গী। যোগাযোগ, ছবি তোলা, ডকুমেন্ট সংরক্ষণ করা, ইন্টারনেট ব্রাউজিং সহ নানাকাজে আমরা স্মার্টফোন ব্যবহার করি। কিন্তু বাজারে আছে বিভিন্ন ধরনের স্মার্টফোন। ফলে আমাদের প্রয়োজন মেটাতে সক্ষম সেরা ফোনটি বাছাই করা একটু কঠিনই বটে।

জেনে নিন স্মার্টফোন কেনার সময় কোন কোন বিষয়গুলো অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে-

বাজেট:
সবার আগে যেটি খেয়াল রাখতে হবে সেটি হলো ফোনের জন্য আপনার বাজেট। স্মার্টফোন কিনতে আপনি কত টাকা খরচ করতে চান এবং সেই দামের মধ্যে কোন স্মার্টফোনটিতে সবচেয়ে বেশি ফিচার পাচ্ছেন সেটাই হবে আপনার জন্য বেস্ট ডিল। কারণ আপনার বাজেট কম হলে হয়তো একটা স্মার্টফোনে লেটেস্ট সব টেকনোলজি কিংবা সব ফিচার পাবেননা, আর এটাই স্বাভাবিক। সেক্ষেত্রে একটু বেশি ঘাঁটাঘাঁটি করে আপনার বাজেটে কোন কোম্পানির কোন মডেলটি সবচেয়ে ভালো জিনিস দিচ্ছে সেটা নেয়াই বুদ্ধিমানের কাজ।

নির্মাণ গুণমান:
স্মার্টফোনের স্থায়িত্ব নির্ভর করে এর নির্মাণ গুণমানের ওপর। পুরো স্মার্টফোন বাজার প্রধানত দুই ধরনের নির্মাণ গুণমানে বিভক্ত। ধাতব এবং প্লাস্টিক।

ডিজাইন:
যেকোনো ধরনের স্মার্টফোন কেনার ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো এর ডিজাইন। আগে মনস্থির করতে হবে কোন ডিজাইনের স্মার্টফোন ভালো লাগে। নিজের ব্যক্তিগত চাহিদা এবং রুচি অনুযায়ী ডিজাইন পছন্দ করাই ভালো। কোন ডিজাইন ভালো চলছে, কোন ডিজাইন মানানসই তা বিবেচনা করা দরকার।

ডিসপ্লে:
ডিসপ্লের আকার বা রেজল্যুশন কেমন হলে ভালো হয়, তা নির্ভর করে স্মার্টফোনের ব্যবহারের ওপর। ভিডিও, ছবি বা ভিডিও সম্পাদনা অথবা ডাউনলোড ও সিনেমা দেখার জন্য ডিভাইসের ডিসপ্লে সাড়ে ৫ থেকে ৬ ইঞ্চি হলে ভালো হয়। এক্ষেত্রে এইচডি বা কোয়াড-এইচডি রেজল্যুশনের ডিসপ্লে সংবলিত স্মার্টফোন উপযুক্ত। ডিসপ্লের আকার ৬ ইঞ্চির বড় হলে ডিভাইস শুধু পুরুই নয়, বহন করাও বেশ কঠিন হবে। তবে নিয়মিত মেইল চেকিং, চ্যাটিং বা সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন অ্যাপ ব্যবহারের জন্য ৫ থেকে সাড়ে ৫ ইঞ্চির এইচডি বা কোয়াড-এইচডি ডিসপ্লে হলেই যথেষ্ট।

ব্যাটারি:
ব্যবহারের ওপর নির্ভর করে স্মার্টফোন ব্যাটারি কেমন চলবে। বিভিন্ন অ্যাপ, গেম এবং ভিডিও স্ট্রিমিংয়ের মতো কাজের জন্য স্মার্টফোন ব্যাটারি ৩০০০ থেকে ৩৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের হলে ভালো হয়। শুধু যোগাযোগের কাজে ব্যবহারের জন্য হলে ৩০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার আওয়ার বা তার আশেপাশে হলেও হয়।

র‌্যাম:
ডিভাইস কত দ্রুত কাজ করবে, তা অনেকটা র‌্যামের ওপর নির্ভর করে। ইন্টারনেট সেবার সহজলভ্যতার কারণে ডাটা ব্যবহার বেড়েছে। স্বাচ্ছন্দ্যে ইন্টারনেট ব্যবহার বা মুভি দেখার জন্য ২-৩ গিগাবাইটের র‌্যাম সংবলিত ডিভাইস হলে ভালো। তবে সাধারণ কাজের জন্য ২ গিগাবাইট র‌্যামের স্মার্টফোন হলেই স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যবহার করা যায়।

ক্যামেরা:
মেগাপিক্সেল বেশি হলেই স্মার্টফোনের ক্যামেরাটি সেরা হবে, এমন ধারণা অনেকের। কিন্তু বিষয়টি একেবারেই তা নয়। মেগাপিক্সেলের পাশাপাশি ক্যামেরা অ্যাপারচার, আইএসও লেভেল, পিক্সেলের আকার ও অটোফোকাসের মতো ব্যাপারগুলো বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। ডিভাইসের ১৬ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা ১২ মেগাপিক্সেলের চেয়ে ভালো হবে, এমন ভাবার কোনো কারণ নেই। একই কথা বলা চলে ফ্রন্ট ফেসিং ক্যামেরার ক্ষেত্রেও। স্মার্টফোন ক্যামেরা ফটোগ্রাফির জন্য ব্যবহার করতে চাইলে বেছে নিতে পারেন এফ/২.০ অ্যাপারচারের ১২ বা ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। এতে স্বল্প আলোতেও ভালো ছবি ধারণ করা সম্ভব হবে। সাধারণ কাজের জন্য এফ/২.০ থেকে এফ/২.২ অ্যাপারচারের ৮ বা ১২ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা হলেই চলে।

অপারেটিং সিস্টেম:
এখনকার সবচেয়ে জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেমের মধ্যে অ্যান্ড্রয়েড, আইফোন, আইওএস ৭, উইন্ডোজ অন্যতম। এক্ষেত্রে স্মার্টফোন কেনার আগে পছন্দেরটি বেছে নিন। কারণ অপারেটিং সিস্টেমের ওপর ভিত্তি করেই গোটা ফোনের সব কার্যক্রম নির্ধারিত হয়।

অ্যাপ্লিকেশন:
আপনার মোবাইল ফোনসেটটি যেসব অ্যাপস সাপোর্ট করে তাই ব্যবহার করুন। আর যেসব অ্যাপস আপনার মোবাইলের জন্য নয় তা অবশ্যই কাজে লাগানোর চেষ্টা করবেন না। তা ছাড়া মোবাইল ফোনসেট অনুযায়ী আলাদাভাবে অ্যাপসের কালেকশন ইন্টারনেটে দেওয়া থাকে। সেখান থেকেই ফোনটির জন্য অ্যাপস বাছাই করে নেওয়া উচিত।

সিকিউরিটি/এক্সট্রা ফিচার:
স্মার্টফোনে যেহেতু অনেক ব্যক্তিগত এবং গোপনীয় জিনিস রাখি সেহেতু অতিরিক্ত নিরাপত্তা প্রদানকারী ফিঙ্গারপ্রিন্ট এবং আইরিস সেন্সরযুক্ত স্মার্টফোন কেনাই ভালো। এখন ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকার স্মার্টফোনেই ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর থাকে। তবে আইরিস স্ক্যানারযুক্ত স্মার্টফোনের সংখ্যা একটু কমই আছে।


ঢাকা, সোমবার, মে ১৪, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // এস আর এই লেখাটি ১৬৬৮ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন