সর্বশেষ
শনিবার ৯ই আষাঢ় ১৪২৫ | ২৩ জুন ২০১৮

পুরুষের যেসব গুণাবলীতে মুগ্ধ হয় নারীরা

রবিবার, জুন ৩, ২০১৮

93f1efb982150ce0da5cbc5e140b36b9.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

প্রকৃতির অমোঘ নিয়মে একজন নারী ও পুরুষ একে অন্যের প্রতি আকর্ষণ অনুভব করে থাকে। কিন্তু পুরুষদের এমন কিছু গুণাবলী রয়েছে যেগুলো নারীদের কাছে আরো বেশি আকর্ষণীয়। কেউ কেউ মনে করেন মেয়েরা বুঝি লম্বা, সুদর্শন পুরুষ পছন্দ করে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে পুরুষের শারীরিক সৌন্দর্য থেকে নারীকে বেশি আকৃষ্ট করে তাদের ব্যক্তিত্ব, পুরুষসুলভ আচরণ ও গুণাবলী।

এসব গুণাবলীর কারণে পুরুষের প্রতিও নারীদের চরম দুর্বলতা কাজ করে। তাই পুরুষদের জানা উচিত কোন বিষয়গুলো নারীর কাছে পুরুষকে আকর্ষণীয় করে তুলে।

মুখে হাসি ধরে রাখুন :
রসবোধ থাকাটা যে কারো জন্যই উঁচুমানের গুণ হিসেবে বিবেচিত হয়। কাঙ্ক্ষিত পুরুষের চরিত্রে নারীরা এটা খোঁজেন। প্রাত্যহিক জীবনে এমনিতেই বহু ঝুট-ঝামেলা নিয়ে ত্যক্ত-বিরক্ত হয়ে থাকার মতো যথেষ্টই কারণ থাকে নারীদের। তাই একজন মনমরা টাইপ সঙ্গী তাদের জন্য মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা। তাই নিজে হাসুন, তার মুখেও হাসি ফোটান, তবে খেয়াল রাখতে হবে ঠাট্টা-তামাশা করতে গিয়ে সব সময় অন্য কাউকে খাটো করা, আঘাত করা মোটেও ঠিক নয়।

নিজের রুচি প্রকাশ করুন:
রুচি প্রকাশের ক্ষেত্রে দামি ব্র্যান্ডের জামা-জুতা হতে হবে বিষয়টা মোটেও এমন নয়। তবে বেমানান কিছু পড়বেন না। সাধারণ দোকান থেকে কেনা হলেও পোশাকে-আশাকে নিজের রুচিটা তুলে ধরুন। আর খেয়াল রাখুন তা যেন আপনার শারীরিক গড়ন আর গায়ের রঙের সঙ্গে মানানসই হয়। নিজের একটা স্টাইল গড়ে তুলুন। আপনাকে বুঝতে হবে, আপনি যেমন নারীদের ‘সন্ন্যাসিনী’ সেজে থাকা পছন্দ করেন না, ঠিক তেমনি আধুনিক নারীরাও উল্টা-পাল্টা পোশাকের পুরুষদের পছন্দ করেন না।

ফিটফাট থাকুন :

নারীরা দীর্ঘদেহী পুরুষ পছন্দ করেন বটে, তবে উচ্চতাই শেষ কথা নয়। গুরুত্বপূর্ণ হলো আপনি কীভাবে নিজেকে উপস্থাপন করছেন। আসল বিষয় হলো নারী বুঝতে চায় আপনি নিজের যত্ন নিতে, ফিটফাট থাকতে পারছেন কি না। তারা ভাবেন, যে পুরুষ নিজের দেখভাল করতে পারেন না, তিনি আমার দেখভাল করবেন কী করে? সুতরাং, আলুথালু পোশাক, এলোমেলো চুল, নখ না কাটা বা ময়লা থাকা, মোজায় গন্ধ, ময়লা শার্ট বা জিনসের উদাসীনতার দিন শেষ। হালের নারীরা এসব একেবারেই পছন্দ করেন না।

চোখের ভাষায় কথা বলুন :
যখনই তার চোখে চোখ রেখে তাকাবেন। মিষ্টি করে একবার হাসুন। ভালোবাসার চোখে সরাসরি তার চোখে তাকালে একজন নারী যে অনুভূতি পান তার তুলনা করা দুষ্কর। আপনার ওই চাহনিতে নিজেকে লাখে একজন মনে হতে পারে তার।

নিজেকে যত্নবান বোঝান :
নারীরা বারবারই এটা নিশ্চিত হতে চান যে তাকে যিনি ভালোবাসছেন, তিনি তার খেয়াল রাখছেন কিনা। তার হাত ধরে হাঁটা, সুযোগ পেলে একসঙ্গে সূর্যাস্ত দেখা—হোক তা বারান্দায় দুই মিনিটের জন্য, মাঝেমধ্যেই জড়িয়ে ধরা, রাস্তা পেরোনোর সময় তার খেয়াল রাখার মতো কাজগুলোকে মোটেই অবহেলা করবেন না। মনে রাখতে হবে নারীরা গুরুত্ব পেতে ভালোবাসে। তারা সবসময় পুরুষ সঙ্গীকে নিজের সর্বোত্তম আশ্রয় ও প্রাপ্তির নিশ্চিত সীমান মনে করে। মেয়েরা তার পুরুষ সঙ্গীর দায়িত্ববোধ নিয়ে সহপাঠী, সমবয়সী ও আত্মীয়দের মাঝে গর্ব করতে ভালবাসে।

শান্ত স্বভাব :
অনেক পুরুষের বৈশিষ্ট তারা খুব অল্পতেই ক্ষিপ্ত হয়ে যায়। কিন্তু খুব সহজেই আবার রাগ কমে যায়। পুরুষের কাজ- কিছুটা সময় শান্ত থেকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক এবং শান্তিপূর্ণ রাখা। নারীরাও আজকাল রাগী, আক্রমণাত্বক সঙ্গী পছন্দ করে না। রাগ করার মতো সুনির্দিষ্ট কারণ থাকলে নারী সঙ্গীকে শান্তভাবে তা বুঝিয়ে বলতে হবে।

সম্মান প্রদর্শন :
নারীকে সম্মান করতে হবে। অনেকের মাঝে নারীকে হেয় করে কথা বলার প্রবণতা দেখা যায়। তবে নারীও মানুষ সে পুরুষের সমান গুরুত্ব এবং সম্মান পাওয়ার অধীকার রাখে।


ঢাকা, রবিবার, জুন ৩, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি ৩২৬৫ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন