সর্বশেষ
শুক্রবার ৮ই আষাঢ় ১৪২৫ | ২২ জুন ২০১৮

এবারের ফুটবল বিশ্বকাপে ‘থার্ড আম্পায়ার’

মঙ্গলবার, জুন ১২, ২০১৮

6_0.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

ফুটবল শব্দটি শুনলেই যেমন ম্যারাডোনার কথা মনে পড়ে তেমনি ম্যারাডোনার নাম শুনলেও একটা বিতর্কের ছবি চোখে ভেসে ওঠে। ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যারাডোনার করা বিতর্কিত গোল।

হাত দিয়ে করা গোল নাকি নয়? এমন বিতর্কে এখনও অনেকেই জড়ান। তবে এমন বিতর্কের অবসান ঘটাতে এবারের বিশ্বকাপে থাকছে ভিএআর (ভিডিও অ্যাসিসট্যান্ট রেফারি) পদ্ধতি। খবর মিডিয়াপোস্ট২৪।

৮৬’র সেই বিশ্বকাপে বিতর্কিত গোলে ২-১ গোলে জয়ও পায় আর্জেন্টিনা। শুধু তাই নয় ২০১০ সালেও এমন বিতর্ক দেখা গিয়েছিল ইংল্যান্ড আর জার্মানির ম্যাচে। ইংল্যান্ডের ফরোয়ার্ড ফ্র্যাংক ল্যাম্পারডের নেওয়া একটি শট বারে লেগে গোল লাইন অতিক্রম করে। কিন্তু রেফারির ভুল সিদ্ধান্তে সেই গোল পায়নি ইংল্যান্ড।

এমন অনেক ঘটনার সাক্ষী ফুটবল বিশ্ব। এমনকি বর্তমানের মেসিও এমন একটি বিতর্কে জড়িয়েছেন। হাত দিয়ে করা তাঁর গোলটি রেফারি ফাউল ধরেননি। আবার এমনও হতে পারে রেফারি বুঝতেই পারেননি। কিন্তু রেফারির ভুলে যে পুরো ম্যাচের ফলাফল বদলে যায় তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

তবে এমন কোন ভুলের পুনরাবৃত্তি আর হবে না সেটা আশা করছে ফিফা। কেননা ফুটবল ইতিহাসে প্রথমবারের মত বিশ্বকাপে ব্যবহৃত হতে যাচ্ছে ভিএআর পদ্ধতি।

রাশিয়া বিশ্বকাপে ভিএআর পরিচালিত হবে অফসাইড, লাল কার্ড, গোল এবং পেনাল্টি এই চারটি বিষয়কে সামনে রেখে। ১৩ জন অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি পুরো বিশ্বকাপ জুড়ে ম্যাচ পরিচালনার কাজে যুক্ত থাকবেন। বিতর্কিত মুহূর্ত সৃষ্টি হলেই রেফারি ভিএআর ব্যবহার করতে পারবেন। এছাড়া রেফারি নিজে ভুল করলেও তিনি যদি চান তাহলেও অ্যাসিসট্যান্ট রেফারির সহায়তা নিতে পারবেন। তবে কোন খেলোয়াড় কিংবা দলের অধিনায়ক রিভিউ নেওয়ার সুবিধা পাবেন না।

ফুটবলকে সন্দেহমুক্ত এবং ভারসাম্য করতেই ফিফার এই উদ্যোগ। ইতিমধ্যেই ইউরোপের বেশকিছু লিগে এ পদ্ধতি ব্যবহার করা হলেও বিশ্বকাপে এর ব্যবহার এবারই প্রথম।


ঢাকা, মঙ্গলবার, জুন ১২, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // জে এইচ এই লেখাটি ১৯৯০ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন