সর্বশেষ
সোমবার ৫ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ১৯ নভেম্বর ২০১৮

মীমের বাসায় শাজাহান খান

বুধবার, আগস্ট ১, ২০১৮

78-5b61e585bf322.png
বিডিলাইভ ডেস্ক :

রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত দুই শিক্ষার্থীর একজন দিয়া খানম মিমের বাসায় গিয়েছিলেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। বুধবার সন্ধ্যায় সেখানে তিনি প্রায় ২০ মিনিট অবস্থান করেন। এ সময় শোকসন্তপ্ত পরিবারকে সমবেদনা জানান মন্ত্রী।

শাজাহান খান সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে দুর্ঘটনার বিষয়ে বক্তব্য দেওয়ার সময় হাসিমুখে কথা বলার ব্যাখা দিয়ে ক্ষমাও চেয়েছেন। এসময় মীমের বাবা গাড়িচালক জাহাঙ্গীর ফকিরসহ তার স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া উপস্থিত ছিল মীমের কলেজের শিক্ষার্থীরাও।

মীমের বাবা জাহাঙ্গীর ফকির বলেন, নৌপরিবহনমন্ত্রী বাসায় এসে আমাদের সান্ত্বনা দেন। আমি তাকে বলেছি, রাস্তায় যেসব অদক্ষ ড্রাইভার আছে তাদের লাইসেন্স ক্যান্সেল ( বাতিল) করেন। লাইসেন্স চেক করেন। রাস্তায় চলাচল করার ফিটনেসবিহীন বাসগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেন। এ সময় মন্ত্রী এসব করবেন বলে আশ্বাস দেন। এমনকি এগুলো নিয়ে আজ (বুধবার) মিটিং করা হয়েছে বলেও আমাকে জানান।

মীমের বাবা জাহাঙ্গীর ফকির আরো বলেন, ঘটনার পরদিনও মন্ত্রী তার হাসি নিয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছেন। মন্ত্রী জানিয়েছেন, অন্য একটা ব্যাপার নিয়ে কথা হচ্ছিল। ওই সময় মন্ত্রী হাসছিলেন। দুর্ঘটনার প্রসঙ্গ যখন আসে, তখন উত্তর দেওয়ার সময় সেই হাসিটাই ছিল। তিনি পুরো ঘটনা জানতেন না। এমন কথা বলে মন্ত্রী তাদের কাছে ও শিক্ষার্থীদের কাছেও ক্ষমা চেয়েছেন বলে জানান মীমের বাবা।

গত রবিবার রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে জিল্লুর রহমান ফ্লাইওভারের মুখে জাবালে নূর পরিবহনের তিনটি বাসের প্রতিযোগিতা করে যাওয়ার সময় এক বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। তারা হচ্ছে শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের উচ্চমাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আব্দুল করিম রাজীব ও প্রথম বর্ষের ছাত্রী দিয়া খানম মীম। ওই ঘটনার জের ধরে ওই দিন বিকেলেই সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সড়কে বিশৃঙ্খলার কারণে দুর্ঘটনা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে হাসতে হাসতে তিনি ভারতের মহারাষ্ট্রের এক সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৩ জন নিহত হওয়ার উদাহরণ টেনে আনেন। পরে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। পরে তিনি হাসির জন্য ক্ষমা চেয়ে নিজের অবস্থানের ব্যাখ্যা দেন।


ঢাকা, বুধবার, আগস্ট ১, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ১৯৭৫ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন