সর্বশেষ
বৃহঃস্পতিবার ৫ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

নোয়াখালীতে পুলিশ কনস্টেবলের স্ত্রীর লাশ উদ্ধার

সোমবার, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৮

yyyyy.jpg
নোয়াখালী প্রতিনিধি :

নোয়াখালীতে রোববার দুপুরে এক পুলিশ কনস্টেবলের স্ত্রী দিলরুবা আক্তার সালমার (২৩) লাশ উদ্ধার করেছে সুধারাম থানা পুলিশ। তিনি জেলা পুলিশ কার্যালয়ে কর্মরত তাজবীদ হোসেনের স্ত্রী।

লাশ ময়না তদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ দিকে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে দাবী করা হচ্ছে তাকে গলাটিপে হত্যা করা হয়েছে।
 
জানা যায়, লক্ষীপুর জেলার রামগতি উপজেলার চর লক্ষী গ্রামের মো: সেলিম এর ছেলে তাজবীদ হোসেন রাজিব গত ৫ বছর আগে হাতিয়া থানায় কর্মরত ছিল। সে সময়  হাতিয়ার চরকিং ইউনিয়নের উত্তর গামছা খালী গ্রামের সোলাইমান মিয়ার ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী দিলরুবা আক্তার সালমার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে তাদের নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে বিবাহ হয়। পরে রাজিব বদলী হয়ে জেলা হেডকোয়ার্টারে আসে। মাইজদী নুতন বাসস্ট্যান্ড বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করে আসছিল। এরই মাঝে তাদের একটি কন্যা সন্তান হয়। তার বর্তমান বয়স ৪ বছর।

নিহতের বড় ভাই মো: হাছান অভিযোগ করেন, রাজিব প্রতিনিয়ত তার বোনকে যে কোন তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে নির্যাতন করতো। ঘটনারদিন রোববার সকাল ১১টার দিকে রাজিব সালমাকে গলাটিপে ও বালিস চাপা দিয়ে হত্যা করে আত্নহত্যা করেছে বলে তাকে খবর দেয়। পরে মর্গে গিয়ে দেখে তার লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

সুধারাম মডেল থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, স্বামী-স্ত্রী ঝগড়া করার পর সে আত্নহত্যা করে। পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে তাকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা এ ধরনের কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। ময়নাতদন্ত শেষে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।
 
পুলিশ সুপার মো: ইলিয়াছ শরীফ জানান, যদি হত্যাকান্ড প্রমাণিত হয় তাহলে তার বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমরা কারো ব্যক্তি গত অপরাধের দায়িত্ব নেবনা।


ঢাকা, সোমবার, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ১১২৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন