সর্বশেষ
সোমবার ৫ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ১৯ নভেম্বর ২০১৮

গোলরক্ষকের ভুলেই আবারও স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের

রবিবার, সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৮

1.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

ভুটান, পাকিস্তানের বিপক্ষে দারুণ দুই জয়ে সেমিফাইনালের দোরগোড়ে পৌঁছে গিয়েছিল বাংলাদেশ। হাতছানি দিচ্ছিল ২০০৯ সালের পর সাফে প্রথম সেমিফাইনাল। প্রতিপক্ষ নেপালের বিপক্ষে হার এড়ালেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই সেমিতে যেত ‘লাল-সবুজ’রা। তপু বর্মনদের গর্জনে শেষ চারে স্বপ্ন দেখছিল তারা। গোলরক্ষক শহীদুল ইসলামের ভুলে ২-০ গোলের হারে আবারও সাফ যাত্রার শেষটা হতাশাজনকই হল বাংলাদেশের।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় ফুটবল স্টেডিয়ামে পুরো ম্যাচে আক্রমণে একেবারেই সুবিধা করতে পারেননি জেমস ডে’র দল। পাকিস্তানের বিপক্ষে একেবারেই নখদন্তহীন পারফরম্যান্সের পর আবারও খেই হারানো বাংলাদেশকে দেখেছে সমর্থকেরা। তবে জামাল ভূঁইয়া, মামুনুলদের গোছানো পাসিং এবং তপু বর্মনদের রক্ষণে নেপালও সুবিধা করতে পারেননি খুব একটা। আক্রমণে এক সাদ উদ্দিন বাদে বাকিদের খুঁজেই পাওয়া যায়নি পুরোটা ম্যাচ। কিন্তু বাংলাদেশের বিপরীতে আক্রমণের ধারটা বেশি ছিল নেপালেরই। ভাল না খেললেও অন্তত সমতায় ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ৩৩ মিনিটে শহীদুলের এক ভুলে পিছিয়ে পড়ে স্বাগতিকরা। ডানপ্রান্ত থেকে ভেসে আসা ফ্রিকিক বাংলাদেশ গোলরক্ষকের হাত ফসকে জালে জড়িয়ে গেলে উল্লাসে মেতে উঠে নেপাল।

এমন ভুল শহীদুলের থেকে এবারই প্রথম নয়। এ বছর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচেও এমনটা করেছিলেন তিনি। ভুটানের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেও বেশ কয়েকবার তালুবন্দি করতে হয়েছেন ব্যর্থ। কিন্তু আজ চরম মূল্য দিয়েই দলের বিদায়ঘণ্টা বাজিয়ে দিলেন শহীদুল। এশিয়ান গেমসে বাংলাদেশের গোলরক্ষক আশরাফুল রানার বদলে জেমস ডে’র তাকে নামানোর সিদ্ধান্তের প্রতি সুবিচার করতে পারলেন না দীর্ঘদেহী এই গোলরক্ষক। প্রথমার্ধে লক্ষ্যে বাংলাদেশের একমাত্র শট ছিল কর্ণার থেকে টুটুল বাদশাহর ভলি, যা রুখে দিতে কোনো অসুবিধাই হয়নি নেপালের গোলরক্ষকের।

সাফ থেকে বিদায়ের মাত্র ৪৫ মিনিট দূরে থাকা বাংলাদেশ দ্বিতীয়ার্ধেও জ্বলে উঠতে ব্যর্থ হয়েছে একেবারেই। উলটো প্রতি-আক্রমণে নেপালকেই মনে হচ্ছিল ভয়ঙ্কর। গোছানো ফুটবলে জামাল-মামুনুলদের ম্যাচে ফেরার এতটুকু সুযোগও দেননি নেপালের ফুটবলাররা। বাঁচা-মরার দ্বিতীয়ার্ধেও নেপালের গোলরক্ষককে একবারও পরীক্ষায় ফেলতে পারেনি বাংলাদেশ। ৮০ মিনিটে বদলি খেলোয়াড় রনির দূরপাল্লার আগুনে শট নেপাল গোলের সামান্য উপর দিয়ে চলে গেলে আর ম্যাচে ফেরা হয়নি বাংলাদেশের। উলটো দ্বিতীয়ার্ধের একদম শেষদিকে নবযুগের চমৎকার গোলে নিশ্চিত হয় টানা ৪র্থ বারের মত সাফের গ্রুপপর্ব থেকে বাংলাদেশের বিদায়।


ঢাকা, রবিবার, সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // জে এইচ এই লেখাটি ১৪৫৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন