সর্বশেষ
রবিবার ২রা পৌষ ১৪২৫ | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮

১৪ শর্তে সিলেটে সমাবেশের অনুমতি পেল ঐক্যফ্রন্ট

রবিবার, অক্টোবর ২১, ২০১৮

kamal20181021194221.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

অবশেষে সিলেটে সমাবেশের অনুমতি পেয়েছে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন নবগঠিত জোট ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’।

নবগঠিত এই রাজনৈতিক জোটকে ১৪ শর্তে আগামী ২৪ অক্টোবর (বুধবার) সমাবেশ করার অনুমতি দিয়েছে সিলেট মহানগর পুলিশ (এসএমপি)।

রোববার সন্ধ্যায় সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) কমিশনার মো. গোলাম কিবরিয়া সমাবেশের অনুমতি প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আগামী ২৪ অক্টোবর নগরীর রেজিস্ট্রারি মাঠে সমাবেশের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কর্মসূচি শুরু করবে সরকার বিরোধী এ জোট। এ দিন সিলেটে হজরত শাহজালাল (র.) ও হযরত শাহপরাণের (রহ.) মাজার জিয়ারত করবেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।

২৩ অক্টোবর (মঙ্গলবার) সমাবেশের অনুমতি না দেওয়া প্রসঙ্গে এসএমপির অতিরিক্ত কমিশনার পরিতোষ ঘোষ বলেন, ওই দিন যে স্থানে ঐক্যফ্রন্ট সমাবেশ করতে চেয়েছে, সেখানে আরেকটি সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়। যে কারণে তাদের একই তারিখে অনুমতি দেওয়া হয়নি।

সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র আবুল কাহের শামীম জানান, সন্ধ্যায় এসএমপি কার্যালয়ে তাদের কয়েকজন নেতাকে ডেকে নিয়ে সমাবেশের মৌখিক অনুমতি প্রদান করা হয়। অনুমতি লাভের পর তারা নগরীর রেজিস্ট্রারি মাঠে সমাবেশ আয়োজনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানান তিনি।

এর আগে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশের অনুমতি চেয়ে দুই দফায় আবেদন করে সিলেট বিএনপি। গত ১৭ অক্টোবর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ ২৩ অক্টোবর সিলেট রেজিস্টারি মাঠে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন এসএমপি কমিশনারের কাছে। পরদিন কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফোনে বিএনপি নেতাদের অনুমতি না দেওয়ার বিষয়টি জানিয়ে দেন।

এরপর ফের একইস্থানে সমাবেশ করার জন্য অনুমতি চেয়ে ২০ অক্টোবর আবেদন করা হলেও কোনো সাড়া পায়নি বিএনপি। এর প্রেক্ষিতে রোববার দুপুরে হাইকোর্টে রিট করেন বিএনপি নেতা আলী আহমদ। আবেদনে সমাবেশের অনুমতি না দেওয়া কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবেন না, তা জানতে চেয়ে রুল জারির আর্জি জানানো হয়, এছাড়া সমাবেশ করতে দেওয়ার আবেদনও করা হয়। সোমবার এই রিটের শুনানির তারিখ ধার্য করেন আদালত। তবে তার আগেই পুলিশ সমাবেশের অনুমতি প্রদান করে।

ঐক্যফ্রন্টকে বেঁধে দেওয়া ১৪ শর্তের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- রাষ্ট্রবিরোধী কোনো ধরনের বক্তব্য বা বিবৃতি দেওয়া যাবে না, ধর্মীয় অনুভূতি বা মূল্যবোধের উপর আঘাত হানে এ ধরনের কোনো বক্তব্য বা বিবৃতি প্রদান বা কোনো ব্যানার, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করা যাবে না এবং ২টা থেকে ৫টার মধ্যে কর্মসূচি শেষ করতে হবে।


ঢাকা, রবিবার, অক্টোবর ২১, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ১৫১৯ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন