সর্বশেষ
মঙ্গলবার ৪ঠা আষাঢ় ১৪২৬ | ১৮ জুন ২০১৯

সুন্দরবনে রাস মেলার উৎসব শুরু

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২২, ২০১৮

Dublarchar.png
সাতক্ষীরা প্রতিনিধি :

বিশ্বের সবচেয়ে বড় শ্বাসমূলীয় বনের ছোট্ট এই দ্বীপে প্রতিবছর কার্তিক-অগ্রহায়ণের পূর্ণিমা তিথিতে বসে রাসমেলা। অসংখ্য হিন্দু পুণ্যার্থী আর পর্যটক এ উৎসবে শামিল হতে দেশ বিদেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ছুটে আসেন বনের পাশের ছোট্ট এই চরে। এই উপলক্ষে তিনদিন জন্য মেলা বসেছে দুবলার চরে। এই বছরের রাস মেলা ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে। রাসমেলা দেখার সঙ্গে সঙ্গে  সুন্দরবন থেকেও ঘুরে আসতে পারার সুযোগ হাত ছাড়া করেনা দর্শনার্থীরা।

সুন্দরবন ঘেঁষে বঙ্গোপসাগরের কোলে জেগে ওঠা ছোট্ট দ্বীপ দুবলার চর। কুঙ্গা এবং মরা পশুর নদীর মোহনার এই চরে বহুকাল ধরে চলে আসছে রাস মেলা। দুবলার চরের রাস মেলার ইতিহাস নিয়ে নানান মত প্রচলিত আছে। জানা যায় ১৯২৩ সালে ঠাকুর হরিচাঁদের অনুসারী হরি ভজন নামে এক হিন্দু সাধু এই মেলা শুরু করেছিলেন। এই সাধু চব্বিশ বছরেরও বেশি সময় ধরে সুন্দরবনে গাছের ফলমূল খেয়ে অলৌকিক জীবনযাপন করতেন। অন্য একটি মতে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অবতার শ্রীকৃষ্ণ শত বছর আগের কোনও এক পূর্ণিমা তিথিতে পাপমোচন এবং পুণ্যলাভে গঙ্গাস্নানের স্বপ্নাদেশ পান। সেই থেকে শুরু হয় রাস মেলা।

দুবলার রাস মেলায় দেশের বিভিন্ন জায়গা ছাড়াও বিদেশ থেকে প্রচুর পুণ্যার্থী ও পর্যটকের সমাগম ঘটে। প্রায় অর্ধ লক্ষ মানুষ প্রতি বছর এ উৎসবে অংশ নেন। বিভিন্ন রকম হস্তশিল্প সামগ্রীর সমাগম ঘটে এ মেলায়। হিন্দুদের নানান পূজার্চনার ফাঁকে সন্ধ্যায় ওড়ানো হয় ফানুস।

মেলার মূল প্রার্থনা হয় ভোরের প্রথম জোয়ারে পুণ্য স্নানের মধ্য দিয়ে। এইদিন সূর্য ওঠার আগেই সমুদ্রের বেলাভূমিতে প্রার্থনায় বসেন পুণ্যার্থীরা। সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সমুদ্রেও জোয়ার শুরু হয়। জোয়ারের পানি পুণ্যার্থীদের ছুঁলেই স্নানে নামেন তারা। তিন মাস বিরতির পর সুন্দরবনে মাছ ধরার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয় রাস মেলার এই প্রার্থনার মধ্য দিয়ে। দুবলার চরে কয়েক হাজার জেলের বসবাস। সমুদ্র থেকে মাছ ধরে এসব জেলেরা এখানে সাধারণত শুঁটকি তৈরি করেন। এ জায়গায় তাই দেখা যাবে জেলেদের জীবনধারা। এছাড়া জেলেদের মাছ ধরার নানান দৃশ্য আর কলাকৌশলও দেখা যাবে দুবলার চরে। দুবলার চরে এবারের রাস উৎসব দেখানোর ব্যবস্থা করেছে বেসরকারী ভ্রমণ সংস্থা বেঙ্গল ট্যুরস। রাস মেলা ছাড়াও সুন্দরবনের আকর্ষণীয় জায়গা নীলকমলের জঙ্গলে বেড়ানোর সুযোগ থাকছে এ ভ্রমণে।

প্রতিষ্ঠানের পরিচালক রফিকুল ইসলাম নাসিম জানালেন, এ বছর রাস মেলায় বিশেষ ছাড়ে ভ্রমণ প্যাকেজের ব্যবস্থা করেছে তারা। ২১ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে এ ভ্রমণ। খুলনা-সুন্দরবন-খুলনা, ৩ দিন ২ রাতের এ ভ্রমণে জনপ্রতি খরচ হবে ৯ হাজার ৫শ' টাকা, বিদেশিদের জন্যে ১৩ হাজার ৫শ' টাকা।

জি এম কামরুজ্জামান, সাতক্ষীরা।


ঢাকা, বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২২, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // উ জ এই লেখাটি ৯৮১ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন