সর্বশেষ
রবিবার ২৪শে অগ্রহায়ণ ১৪২৬ | ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯

মহাজোটে মহাজট, ময়মনসিংহে স্বতন্ত্র প্রার্থীর ছড়াছড়ি

শুক্রবার, নভেম্বর ৩০, ২০১৮

6.jpg
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি :

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় টিকিট না পেয়ে বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ক্ষমতাসীন দলটির নেতারা।

আওয়ামী লীগের শরীক দলগুলোর মধ্যে আসন ভাগাভাগি চূড়ান্ত হলেও একে অপরের বিরুদ্ধে প্রার্থী হয়েছেন। এ নিয়ে ময়মনসিংহের মহাজোটে মহাজট লেগেছে। কেউ কাউকে ছাড় দিতে চাইছে না। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দাখিলকারী এসব নেতা বিদ্রোহী হিসেবে নিজেদের প্রকাশ করতে নারাজ। তারা নিজ-নিজ দলের নীতি নির্ধারকদের প্রার্থিতা পুনর্বিবেচনার দাবি জানিয়েছেন। 

৯ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। এর আগে দল থেকে তাদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া না হলে পরবর্তী সময়ে কী সিদ্ধান্ত নিবেন তা পরে জানাবেন বলে ওই সব প্রার্থী জানিয়েছেন। বিদ্রোহী কয়েক নেতার সঙ্গে কথা বলে তাদের এমন মনোভাব জানা যায়।

ময়মনসিংহ জেলা রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, একাদশ সংসদ নির্বাচনে জেলার ১১টি সংসদীয় আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার লক্ষ্যে বিএনপি, আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, জাসদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও ব্যক্তি ১১৯টি মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। আগামী ২ ডিসেম্বর এসব মনোনয়ন পত্র যাচাই বাছাই শেষে চূড়ান্ত প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হবে।

বিদ্রোহী প্রার্থী :

ময়মনসিংহ-১ (হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া) আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী জুয়েল আরেং (এমপি)। কিন্তু এই আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আনোয়ার হোসেন।

ময়মনসিংহ-৩ (গৌরীপুর) আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহম্মেদ (এমপি)। কিন্তু এই আসনে মহাজোটের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শরীফ হাসান অনু ও কৃষিবিদ ড. সামিউল আলম লিটন, জেলা আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ডক্টর অধ্যক্ষ একেএম আব্দুর রফিক, সদস্য নাজনীন আলম, আওয়ামী লীগ নেতা ডা. মতিউর রহমান, আলী আহাম্মদ খান পাঠান সেলভী ও মুর্শেদুজ্জামান সেলিম। 

ময়মনসিংহ-৪ (সদর) আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদ (এমপি)। কিন্তু এই আসনে মহাজোটের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আমিনুল হক শামীম।

ময়মনসিংহ-৮ (ঈশ্বরগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ফকরুল ইমাম (এমপি)। কিন্তু এই আসনে উপজেলা চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করে মহাজোটের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন মাহমুদ হাসান সুমন, আওয়ামী লীগ নেতা সৌমেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী।

ময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল) আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন (এমপি)। কিন্তু এই আসনে মহাজোটের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও  সাবেক সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব) আব্দুস সালাম।

ময়মনসিংহ-১০ (গফরগাঁও) আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল (এমপি)। কিন্তু এই আসনে মহাজোটের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন আওয়ামী লীগ নেতা ওবায়দুল্লাহ আনোয়ার বুলবুল।

ময়মনসিংহ-১১ (ভালুকা) আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ ধনু। কিন্তু এই আসনে মহাজোটের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট আশরাফুল হক।

এ বিষয়ে ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল বলেন, ময়মনসিংহের আসন গুলোতে প্রার্থী পরিবর্তন হতে পারে এমন চিন্তা থেকেই মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। তবে শেষ পর্যন্ত দল মনোনীত প্রার্থীর বাইরে যারা মনোনয়ন জমা দিয়েছেন, তারা অবশ্যই নির্দিষ্ট সময়ের আগেই মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিবেন।

ময়মনসিংহ থেকে, মো. মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী।


ঢাকা, শুক্রবার, নভেম্বর ৩০, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // এস আর এই লেখাটি ১৫০০ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন