সর্বশেষ
বুধবার ২৭শে অগ্রহায়ণ ১৪২৬ | ১১ ডিসেম্বর ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রে জোর করে শিক্ষার্থীর চুল কেটে বিপদে পড়লেন শিক্ষিকা

সোমবার, ডিসেম্বর ১০, ২০১৮

1.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

যুক্তরাষ্ট্রের একজন শিক্ষিকা জোর করে তার ছাত্রের চুল কেটে দেয়ায় তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যায় ক্লাস চলাকালে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার সময় ওই শিক্ষিকা জোর করে তার চুল কেটে দিচ্ছেন। পঞ্চাশোর্ধ ওই শিক্ষিকার নাম মার্গারেট জিসযিঞ্জার। তিনি এই অভিযোগে ক্যালিফোর্নিয়ার ভিসালিয়ার ইউনিভার্সিটি প্রিপারেটরি হাই স্কুলে তার চাকরিটিও হারিয়েছেন।

কৌসুলিরা বলছেন, তিনি দোষী নন বলে দাবি করেন। তার বিরুদ্ধে শিশুর প্রতি নিষ্ঠুরতা, প্রহার সহ ছয়টি অভিযোগ আনা হয় । যার জন্য তার সাড়ে ৩ বছরের জেল হতে পারে।

জিসযিঞ্জার এক লাখ ডলার মুচলেকা দিয়ে শুক্রবার জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। মোবাইল ফোনে ধারণ করা ভিডিও রেডিট-এ পোস্ট করা হলে তাতে দেখা যায় স্কুলটির বিজ্ঞানের শিক্ষক এক ছাত্রকে শ্রেণীকক্ষের একেবারে সামনের দিকে এসে বসতে বলেন।

তিনি তারপর তার কয়েক মুঠো চুল কেটে দেন। ওই সময় শিক্ষার্থীরা ভুল সুরে জাতীয় সঙ্গীত গাইছিল। ছাত্রটির পক্ষের আইনজীবী সিএনএনকে বলেছেন, নিষ্কৃতি পাওয়ার আগ পর্যন্ত তার মক্কেল 'সম্পূর্ণ আতঙ্কগ্রস্ত' হয়ে পড়েছিল।

এরপর জিসযিঞ্জার নিজের মাথার ওপরে কাঁচি উঁচু করে ধরে এবং বলতে থাকে 'এরপর!' এরপর সে কোন মেয়ে শিক্ষার্থীর চুল কাটার হুমকি দেয়।

এই ঘটনার পর টুলারে কাউন্টি অফিসের শিক্ষা বিষয়ক কর্মকর্তা তার বিবৃতিতে বলেন 'ক্লাসরুমে ছাত্র-ছাত্রীদের নিরাপত্তাকে আমরা অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে দেখি।' খবর- বিবিসি বাংলা


ঢাকা, সোমবার, ডিসেম্বর ১০, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // এস আর এই লেখাটি ৮০৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন