সর্বশেষ
শনিবার ৩০শে অগ্রহায়ণ ১৪২৬ | ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯

সরকারি হিসাবে লাখ ছাড়াল ডেঙ্গু রোগী

শনিবার, নভেম্বর ৩০, ২০১৯

denggu.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

বাংলাদেশে সরকারি হিসাবেই এ বছর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

সরকারি হিসাবে মৃত্যুর সংখ্যাও বেড়েছে। এপর্যন্ত ডেঙ্গুতে মৃত্যু হয়েছে ১২৯ জনের।বেসরকারি বিভিন্ন সূত্রে এই সংখ্যা আরও অনেক বেশি। খবর বিবিসির।

এটাই এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড। এর আগে বাংলাদেশের ইতিহাসে এক মৌসুমে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে এত রোগী কখনই হাসপাতালে ভর্তি হয়নি। এমনকি এই সংখ্যা গত ১৯ বছরে দেশে মোট ডেঙ্গু আক্রান্ত সংখ্যার দ্বিগুণেরও বেশি। 

২০১৮ সালে দেশে সর্বোচ্চ ১০ হাজার ১৪৮ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্যানুযায়ী, গত ১৯ বছরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া মোট রোগী ৫০ হাজার ১৭৬ জন। ২০০২ সালে দেশে প্রথম ব্যাপকভাবে ডেঙ্গু রোগী দেখা যায়। সে সময় ৫ হাজার ৫১১ রোগী ভর্তি হয়েছিল। ২০০১ সালে ডেঙ্গুর প্রকোপ কিছুটা কমলেও ২০০২ সালে রোগীর সংখ্যা ছয় হাজার ছাড়িয়ে যায়। এরপর থেকে ক্রমান্বয়ে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকে।

সরকারি কর্মকর্তারা বলেছেন, নভেম্বর মাসেও ডেঙ্গুতে আক্রান্তের সংখ্যা আগের বছরগুলোর এই সময়ের তুলনায় অনেক বেশি।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলছেন, ডেঙ্গু এখন বছরজুড়েই থাকবে।

"নভেম্বর পর্যন্ত কিন্তু সব বছরই ডেঙ্গুতে আক্রান্তের সংখ্যা থাকে। এবার যেটা হয়েছে, অন্যান্য বছরের এই সময়ের তুলনায় এখন আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেশি। এগুলো বিশ্লেষণ করলে বলা যায়, সবসময়ই ডেঙ্গু কমবেশি আমাদের দেশে থাকবে। এর বড় কারণ এই ভাইরাস এবার সারাদেশে ছড়িয়েছে।" 


ঢাকা, শনিবার, নভেম্বর ৩০, ২০১৯ (বিডিলাইভ২৪) // রি সু এই লেখাটি ৫৬০ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন