সর্বশেষ
রবিবার ১১ই ফাল্গুন ১৪২৬ | ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কী হবে হুয়াওয়ের

শনিবার, জানুয়ারী ১১, ২০২০

images.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

এ মাসের শেষ নাগাদ যুক্তরাজ্যে হুয়াওয়ের ভূমিকা সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক আপগ্রেড করতে হুয়াওয়ের যন্ত্রাংশ ব্যবহার করা হবে কি না, সে বিষয়ে কয়েক দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেবে তারা। এর আগেই নতুন বিল প্রস্তাব করলেন মার্কিন সিনেটর কটন।

হুয়াওয়ে নিয়ে বরাবরই সমালোচনা করে আসছেন কটন। আগের মাসেই প্রতিরক্ষা বিলে কিছুটা পরিবর্তন আনার প্রস্তাব করেছেন এই সিনেটর। এই প্রস্তাবে বলা হয়, অন্যান্য দেশের সঙ্গে গোপন তথ্য ভাগাভাগির চুক্তি করার সময় গোয়েন্দা সংস্থাগুলো যাতে টেলিযোগাযোগ এবং সাইবার নিরাপত্তা কাঠামোর বিষয়টি বিবেচনা করে। কাঠামোতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিপক্ষ দেশগুলোর অন্তর্ভুক্তি রয়েছে কি না, বিশেষভাবে চীন ও রাশিয়া।

এদিকে, ডিভাইস বাজারে ভালো করার কথা বললেও গুগলের সফটওয়্যার ব্যবহারে বাধা থাকায় ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে বিশ্বের দ্বিতীয় স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। চীনের টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে সম্প্রতি ‘টিকে থাকাই অগ্রাধিকার পাবে’ বলে ঘোষণা দিয়েছে।

নতুন বছরে কর্মচারীদের উদ্দেশে এক বার্তায় জু বলেন, হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ‘কৌশলী ও দীর্ঘমেয়াদি’ প্রচারণা হুয়াওয়েইর টিকে থাকা ও এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে এক ধরনের চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করেছে।

হুয়াওয়ের ৫-জি প্রযুক্তি ঘিরে বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ থাকলেও সম্প্রতি ভারতে ৫-জি প্রযুক্তি ট্রায়ালে অংশ নেওয়ার অনুমতি পেয়েছে। চীন ও আমেরিকার মধ্যে কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক কোন্দল শুরু হওয়ার পর প্রথম হুয়াওয়ের বিষয়ে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করেছে ভারত সরকার।


ঢাকা, শনিবার, জানুয়ারী ১১, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // এ এম এই লেখাটি ৩৮৯ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন