সর্বশেষ
শুক্রবার ১৬ই ফাল্গুন ১৪২৬ | ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

এখন থেকে এই ৬ সমস্যাকে অবহেলা নয়

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ২৩, ২০২০

china_virus.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

চীনে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া ‘করোনা ভাইরাস’ মানুষের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ছে বলে নিশ্চিত করেছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। চীনের এ ভাইরাস সিভিয়ার অ্যাকুইট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (এসএআরএস) যাতে বাংলাদেশে ঢুকতে না পারে সে জন্য ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সর্বোচ্চ সতর্কতা নেওয়া হয়েছে।

এদিকে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এখন থেকে সর্দি, হাঁচি, কাশি, শ্বাসকষ্ট, গলা ব্যথা ও জ্বরকে অবেহলা করা যাবে না। কারণ, এই ৬ সমস্যা করোনা ভাইরাস সংক্রমণেরও লক্ষণ হতে পারে। করোনা ভাইরাস এমন একটি ভাইরাস - যা এর আগে কখনো মানুষের মধ্যে ছড়ায়নি। এটি একজন মানুষের দেহ থেকে আরেকজন মানুষের দেহে দ্রুত ছড়াতে পারে।

ভাইরাসটির আরেক নাম ২০১৯-এনসিওভি। করোনা ভাইরাস, একটি নতুন প্রজাতির ভাইরাস। বিজ্ঞানীরা বলছেন, ভাইরাসটি হয়তো ইতিমধ্যেই ‘মিউটেট করছে’ অর্থাৎ নিজে থেকেই জিনগত গঠন পরিবর্তন করে নতুন রূপ নিচ্ছে - যার ফলে এটি আরো বেশি করে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই এই ভাইরাস যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সে জন্য সর্বোচ্চ সতর্ক রয়েছে বাংলাদেশ।

চীন থেকে আসা যাত্রীদের তাৎক্ষণিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা হচ্ছে বিমানবন্দরে। এক দশক আগে সার্স নামে যে ভাইরাসের সংক্রমণে পৃথিবীতে ৮০০ লোকের মৃত্যু হয়েছিল সেটিও ছিল এক ধরনের করোনা ভাইরাস। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখ্য চিকিৎসক প্রখ্যাত মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, সর্দি, হাঁচি-কাশি, শ্বাসকষ্ট, গলা ব্যথা ও জ্বর হলে চিকিত্সকের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা নিতে হবে। একই সঙ্গে এসব উপসর্গ দেখা দিলে ঘর থেকে বাইরে বের হওয়া যাবে না। বাইরে গেলে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। বাইরে হাঁচি-কাশি দেওয়া যাবে না। এসব উপসর্গের চিকিৎসা দিয়ে দ্রুত সুস্থ হয়ে যায়। তবে অবহেলা করলে এই উপসর্গ প্রাণঘাতী হওয়ার আশঙ্ক রয়েছে বলে তিনি সতর্ক করে দেন।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান-আইইডিসিআর এর পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, করোনা ভাইরাসে এখনো পর্যন্ত দেশে কেউ আক্রান্ত হয়নি। দেশকে এই ভাইরাসমুক্ত রাখতে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কেন্দ্রীয়ভাবে মনিটরিং করছে। আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুসরণ করছি। এদিকে করোনা ভাইরাস ঠেকানোর প্রচেষ্টা জোরদার করেছে এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুলো। ভাইরাসটিকে ২০১৯-এনসিওভি নামে ডাকা হচ্ছে। গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহর থেকে এটি ছড়িয়ে পড়ে। এই ভাইরাসে এখন পর্যন্ত চীনে ৪৪০ জনের আক্রান্ত হওয়ার কথা জানিয়েছে বেইজিং।

থাইল্যান্ড, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, আমেরিকাসহ বিশ্বের কিছু দেশেও এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছে। ডব্লিউএইচও তাদের এক বিবৃতিতে বিশ্বের সব দেশকে এ ব্যাপারে প্রস্তুতিমূলক পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছে।

গতকাল চীনের স্বাস্থ্য কমিশন জানিয়েছে, নতুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সেখানে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯ জনে দাঁড়িয়েছে। সরকারি হিসাবে সোমবার পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২২৩ জন। দুই দিনের মাথায় এ সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণে দাঁড়িয়েছে (৪৪০)। সংক্রামক এই ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে ১৫ চিকিৎসাকর্মী রয়েছেন। রাজধানী বেইজিং ও সাংহাই-এর মতো শহরেও আক্রান্ত ব্যক্তি পাওয়ার কথা জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।


ঢাকা, বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ২৩, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // এ এম এই লেখাটি ৪৯২ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন