সর্বশেষ
বৃহঃস্পতিবার ২২শে শ্রাবণ ১৪২৭ | ০৬ আগস্ট ২০২০

আটকে গেল নির্ভয়ার ধর্ষক-খুনিদের ফাঁসি

শনিবার, ফেব্রুয়ারী ১, ২০২০

india.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

শেষ মুহূর্তে আটকে গেল দিল্লির মেডিকেল শিক্ষার্থীকে গণধর্ষণ ও নির্যাতনের পর হত্যার ঘটনায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত চার আসামির ফাঁসি কার্যকর। রাষ্ট্রপতির কাছে এক আসামির প্রাণভিক্ষা চাওয়া আপাতত তাদের ফাঁসি কার্যকর হচ্ছে না। শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) ভোর ৬টায় তাদের ফাঁসি কার্যকরের কথা ছিল। নির্ভয়ার ধর্ষক ও হত্যাকারীদের ফাঁসি হওয়ার জন্য চূড়ান্ত তৎপরতা তৈরি হয়ে গিয়েছিল। গোটা দেশ সেই অপেক্ষাতেই ছিল। কিন্তু শুক্রবার বিকেলেই এল মন ভেঙে দেওয়া খবর।

এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আগের দিন শুক্রবার প্রাণভিক্ষা চাওয়ার ফলে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের দিনক্ষণ বাতিল করা হয়েছে। দিল্লির আদালত শুক্রবার এ আদেশ দিয়েছেন। এখন আদালতের পরবর্তী নির্দেশ ছাড়া কোনো আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা যাবে না।

নির্ভয়া কাণ্ডের এক আসামির আইনজীবী এপি সিং বলেছেন, ‘মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকরের দিনক্ষণ বাতিল করা হয়েছে এবং কোনো নতুন তারিখ এখনো দেয়া হয়নি।’

এ মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত চারজন হলেন- মুকেশ সিং, বিনয় শর্মা, অক্ষয় কুমার সিং ও পবন গুপ্ত। তাদের মধ্যে পবন গুপ্তা দাবি করেছেন, ২০১২ সালে ওই অপরাধ করার সময় সে নাবালক ছিলেন। তবে সর্বশেষ অভিযুক্ত বিনয় শর্মা প্রাণভিক্ষা আর্জির কারণেই শুক্রবার ফাঁসির হাত থেকে আপাতত বেঁচে গেছেন অভিযুক্তরা।

শুক্রবার ভারতের সুপ্রিম কোর্টে একটি নতুন পিটিশন ফাইল দাখিল করা হয়। তবে সুপ্রিম কোর্ট তা খারিজ করে দেন। এর পর পরই বিনয় শর্মা রাষ্ট্রপতি বরাবর ক্ষমা প্রার্থনার আবেদন জানান।

এদিকে রাষ্ট্রপতি যদি প্রাণভিক্ষার আবেদন তৎক্ষণাৎ খারিজ করেও দেন, তবুও আগামী ১৪ দিনের আগে মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর করা যাবে না। কারণ, ভারতের আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির কাছে করা ক্ষমার আবেদন খারিজ থেকে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের সময়ের মধ্যে অন্তত দুই সপ্তাহ ব্যবধান থাকার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।


ঢাকা, শনিবার, ফেব্রুয়ারী ১, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ৪০০ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন