সর্বশেষ
শুক্রবার ২০শে চৈত্র ১৪২৬ | ০৩ এপ্রিল ২০২০

মানসিক সমস্যার বড় কারণ যেটি

মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী ১১, ২০২০

161336Mental-Illness.gif
বিডিলাইভ ডেস্ক :

অতিরিক্ত স্মার্টফোনের ব্যবহারকে মানসিক সমস্যার বড় কারণ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন কানাডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জার্নাল (সিএমএজে)। শুধু মানসিক চাপই নয় এটি নিয়ে যেতে পারে আত্মহত্যার দিকেও।

গবেষণার প্রধান, কানাডার ‘টরোন্টো ওয়েস্টার্ন হসপিটাল’য়ের এলিয়া অ্যাবি-জাওডি বলেন, সম্পর্ক, নিজের যত্ন, ঘুম, পড়াশোনা ইত্যাদির ওপর স্মার্টফোন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কুপ্রভাব মোচন করতে চিকিৎসক, শিক্ষক, পরিবারের সদস্য প্রত্যেকেরই একত্রিত হয়ে এগিয়ে আসতে হবে।

স্মার্টফোন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায় সে বিষয়ে এই গবেষণায় দিক নির্দেশনা দিয়েছেন গবেষকরা। যা অনুসরণ করবেন বাবা-মা, শিক্ষকরা। পাশাপাশি ঘুম, পড়াশোনা, কাজ, সামাজিকতা রক্ষা, ব্যক্তিগত সম্পর্ক রক্ষা ইত্যাদি সম্পর্কেও পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা।

“আজকের কিশোর-কিশোরীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছাড়া যেন পৃথিবীর স্বাদ পায় না। অনলাইনে জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরা তাদের জন্য অত্যন্ত জরুরি একটি বিষয়। তবে ইন্টারনেটের কারণে পৃথিবীর বিশাল তথ্যশালা হাতের মুঠোয় থাকার গুরুত্বও অস্বীকার করা যাবে না।”

চিকিৎসকদের প্রতি গবেষকদের পরামর্শ ছিল, তারা যেন কিশোর-কিশোরীদের স্মার্টফোন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অত্যধিক ব্যবহার থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করেন। তবে একেবারে বর্জন করার কথাও যেন না বলেন। বাবা-মায়েরও উচিত হবে সন্তানদের সঙ্গে এই দুই অনুষঙ্গের ব্যবহার নিয়ে সতর্ক থাকা এবং এদের ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে আলোচনা করা।

যুক্তরাষ্ট্রের এক জরিপ অনুযায়ী সেই দেশের ৫৪ শতাংশ কিশোর-কিশোরী মনে করেন তারা স্মার্টফোনে প্রয়োজনের চাইতে বেশি সময় নষ্ট করেন। এদের মধ্যে অর্ধেক কিশোর-কিশোরী স্বীকার করেছেন তাদের স্মার্টফোন ব্যবহার কমানোর চেষ্টা করছেন।



ঢাকা, মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী ১১, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // এ এম এই লেখাটি ৪৩২ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন