সর্বশেষ
শনিবার ১৬ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ | ৩০ মে ২০২০

ফোর্বস ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে বাংলাদেশের রাবা খান

বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২, ২০২০

image-114010-1585843017.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখা অনূর্ধ্ব ৩০ বছর বয়সী ৩০০ তরুণের একটি তালিকা প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্বখ্যাত ম্যাগাজিন ফোর্বস। সেখানে এশীয়দের মধ্যে সেরা উদ্যোক্তার তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন দুই বাংলাদেশি নারী। তাদের একজন এন্টারটেইনার রাবা খান আরেকজন ইসরাত করিম।

তারা দুজনে মার্কেটিং অ্যান্ড অ্যাডভার্টাইজিং ক্যাটাগরিতে এই তালিকায় স্থান পেয়েছে। তালিকায় স্থান পাওয়া ছাড়াও আজ (২ এপ্রিল) ম্যাগাজিনটির যে এশীয় সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছে তার প্রচ্ছদে স্থান পেয়েছে রাবা।

এশীয় সংস্করণ প্রচ্ছদে স্থান পেয়েছে রাবা খানসহ এশিয়ার মোট ছয়জন সফল তরুণের মুখ। রাবার নামের পাশে বিশেষণে লেখা হয়েছে, তিনি জেকেএনকে ফ্যাশন ব্র্যান্ডের সত্ত্বাধিকারী ও দেশের প্রথম নারী ইউটিউব কমেডিয়ান। তালিকায় রাবা তৃতীয় স্থানে অবস্থান করছেন। এতে প্রথমে আছেন ফিলিপাইনের লুইস মাবুলো। তিনি তার কোকাকো প্রজেক্টের জন্য আলোচিত।

নিজের এমন অর্জন সম্পর্কে রাবা খান বলেন, এটি আমার জন্য অনেক বড় একটি স্বীকৃতি। অনেকদিন খবরটা গোপন রাখতে হয়েছে আমাকে। ফেব্রুয়ারি মাসে আমাকে ফটোশুট করার জন্য ডাকা হয়। আজ যখন সবাই আমাকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছে সেই অনুভূতিটা ভাষায় প্রকাশ করার মতো না। আমি চাই বাংলাদেশের সকল তারুণ্যের প্রতিভাকে মূল্যায়ন করা হোক। তবেই আগামীর বাংলাদেশটা হবে আরো সুন্দর।

রাবা খান একজন ইউটিউবার। তার ইউটিউব চ্যানেলের নাম বাংলাদেশের ‘দ্য ঝাকানাকা প্রজেক্ট’। তিনি মূলত ব্যঙ্গাত্মক ভিডিও এর মাধ্যমে সমাজের নানা বিষয় তরুণদের কাছে তুলে ধরেন। বিদ্রুপাত্মকভাবে সামাজিক সমস্যাও তুলে ধরছেন। কখনও তাকে গাইতে বা কারো বাচন রপ্ত করতে দেখা গেছে। বিশেষ করে পুরনো টিভি বিজ্ঞাপনে তার ঠোঁট মেলানো ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এছাড়া সমাজের নানা ধরনের চরিত্রগুলো তিনি অনুকরণ করে উপস্থাপন করেন। নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনার পাশাপাশি লেখালেখিতে পাওয়া গেছে তাকে। ‘বান্ধবী’ নামে তার একটি বই প্রকাশিত হয়েছে। এটি নিয়ে নানা আলোচনা ও সমালোচনার মুখেও পড়েছেন তিনি।

রাবা খান সম্পর্কে ফোর্বসের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, তিনি ঝাকানাকা প্রজেক্টের এন্টারটেইনার। তিনি তার ইউটিউব চ্যানেলে বিভিন্ন কৌতুকধর্মী ভিডিও’র মাধ্যমে সামাজিক নানা সমস্যা তুলে ধরেন। এছাড়াও গানের সাথে লিপ সিঙ্ক এবং পুরোনো টিভি বিজ্ঞাপনের সাথে নতুনভাবে অভিনয় করে দর্শকদের সামনে তুলে ধরেন তিনি। তার কাজের জন্য ২০১৮ সালে ইউনিসেফের ইয়্যুথ অ্যাম্বাসেডর টু অ্যাডভোকেট ফর চিলড্রেন রাইটস হিসেবে মনোনীত হয়েছিলেন রাবা খান।

অপরদিকে, ইউনিভার্সিটি অব কলোরাডো থেকে মাস্টার্স শেষে দেশে ফিরেন ইশরাত করিম। শুরু করেন অলাভজনক প্রতিষ্ঠান আমাল ফাউন্ডেশন।

বাল্যবিবাহ, পারিবারিক নির্যাতনের শিকার, তালাকপ্রাপ্ত ও বিধবা নারীদের নিয়ে কাজ করেন তিনি। শাড়ি, শাল, কাঠের জিনিসপত্রসহ নানা জিনিস তৈরির প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের স্বাবলম্বী করেন।

বর্তমানে বিভিন্ন গ্রামের ৫২ হাজারের বেশি মানুষকে নিয়ে কাজ করছে ইশরাতের আমাল ফাউন্ডেশন।


ঢাকা, বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি ৭৯২ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন