সর্বশেষ
বৃহঃস্পতিবার ১৪ই কার্তিক ১৪২৭ | ২৯ অক্টোবর ২০২০

অর্থনীতি সচল রেখে করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা মোকাবিলা

বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০

13.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

দেশের অর্থনীতিকে সচল রেখে করোনা ভাইরাস জনিত রোগ কোভিড-১৯ সংক্রমণের দ্বিতীয় ধাক্কা মোকাবিলায় পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

শীতকালে করোনার দ্বিতীয় সংক্রমণের আশঙ্কায় নিয়ে মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তাদের নিয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, করোনার সেকেন্ড ওয়েভ নিয়ে ব্যাপক সচেতনতা চালানো হবে। স্বাস্থ্য নির্দেশিকা মেনে চলতে হবে। বিমানবন্দরে মানুষের ঢোকা ও বের হওয়ার বিষয়ে মনিটরিং বাড়ানো হবে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরোও বলেন, করোনার দ্বিতীয় ওয়েভ আসার আশঙ্কাকে সামনে রেখে কর্মপরিকল্পনা ভাগ করে নেওয়া হচ্ছে। ক্লিনিক্যাল সাইড বিশেষজ্ঞরা প্রস্তুত করবেন, যদি রোগটা বিস্তার লাভ করে, কীভাবে তার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান হবে। সাপ্লিমেন্টারি ক্লিনিক্যাল সাইট, যেহেতু শীতের সময় অ্যাজমা, নিউমোনিয়া, ইনফ্লুয়েঞ্জা বেশি থাকে, সেটাও ইমিডিয়েটলি সবাইকে সচেতন করে দেওয়া এবং তারও একটা চিকিৎসা প্রস্তুত করা। এজন্য ব্যাপক প্রমোশনাল ক্যাম্পেইন চালাতে হবে, সবাই যাতে মাস্ক পরে, সবাই যাতে দূরত্বটা বজায় রাখে, স্বাস্থ্য নির্দেশিকা সবাই যাতে মেনে চলে। এনফোর্সমেন্ট সাইড, মাঠ প্রশাসন, স্থানীয় সরকার, পুলিশ, সেনাবাহিনী- এটা কীভাবে করবে, সেই ওয়ার্ক প্ল্যান করা হবে।

সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) লেফটেন্যান্ট জেনারেল মো. মাহফুজুর রহমান বলেন, আমরা এখন যেটা করছি, কোলাবরেশন উইথ সিভিল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন এবং ফরেন মিনিস্ট্রির সাথে, এয়ারপোর্টে এবং বিভিন্ন এন্ট্রিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের লোকজন থাকে। অনেকে সার্টিফিকেট নিয়ে আসে তারা কোভিড ফ্রি। যারা নিয়ে আসেননি তারা কতদিন সেখানে হোম কোয়ারেন্টিনে ছিলেন, সেই সার্টিফিকেট নিয়ে আসেন। যাদের এ রকম কোন সার্টিফিকেট নেই এবং যাদের সন্দেহ হয় তাদের আমরা ইনস্টিটিউশনাল কোয়ারেন্টিনে নিয়ে যাই। ঢাকার দিয়াবাড়ি ও হাজী ক্যাম্পে (কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা) আছে। করোনা যখন পিকে ছিল তখন সাড়ে তিন হাজারের মতো ইনস্টিটিউশনাল কোয়ারেন্টিনের ক্যাপাসিটি ছিল। সেখানে ১৫শোর উপরে উঠে নাই। এজন্য আমরা এটাকে কমিয়ে দুই হাজারের মতো রেখেছি। এতে আমাদের সাশ্রয় হচ্ছে।

এছাড়া পরিস্থিতি বুঝে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।


ঢাকা, বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // এস বি এই লেখাটি ৫৯৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন