সর্বশেষ
বুধবার ১১ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

বর্ষায় গৃহকোণ রাখুন সুবাসিত

মঙ্গলবার, আগস্ট ৪, ২০১৫

2049054450_1438672880.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
বর্ষার স্যাঁতসেঁতে দিনগুলোয় ঘরের ভেতরের পরিবেশটাও হয়ে ওঠে গুমোট, ভেজা ভেজা। একটা বাজে গন্ধ যেন ছড়িয়ে থাকে সব জায়গায়। এই স্যাঁতসেঁতে ভাব দূর করে ঘরকে সুবাসিত করে তোলা খুব কঠিন নয়

পরিষ্কার-পরিচ্ছনতাই জীবন-যাপনের প্রথম শর্ত। কিন্তু বাড়ি ঝকঝকে থাকলেই যে সুগন্ধে ম-ম করবে, এমন কোনো গ্যারান্টি নেই। আর এ রকম দুর্গন্ধ নিয়ে নিত্যদিন আমরা অস্থির হই। বর্ষা মওসুমে এই সমস্যা তো আরো বেড়ে যায়। চার পাশের স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়া ঘরেও অনুভব হয়। অথচ বেশ সহজ উপায়ে এই সমস্যার সমাধান সম্ভব।

# কার্পেট, পর্দা, সোফা প্রতিদিন ভ্যাকুয়াম ক্লিন করতে পারলে ভালো। সময় না থাকলে সপ্তাহে দুই দিন ভালোভাবে ভ্যাকুয়াম ক্লিনার ব্যবহার করে অন্যান্য দিন অল্প ডাস্টিং করলেও চলবে। পাশাপাশি বিছানার চাদর, বালিশের কভার, পর্দা ইত্যাদি প্রতি সপ্তাহে বদলে ফেলুন।

# প্রতিদিন কিছু সময়ের জন্য ঘরের সব জানালা খুলে দিন। রোদ, হাওয়া ঘরের জীবাণু দূর করে সতেজতা বজায় রাখুন।

# গদি, বালিশ, কুশনে ধুলা জমে খারাপ গন্ধ সৃষ্টি হয়। তাই মাঝে মধ্যে রোদে দিয়ে ঝেড়ে নিন।

# সুগন্ধি অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ফ্লোর ক্লিনার পানিতে মিশিয়ে প্রতিদিন ঘরের মেঝে পরিষ্কার করুন। ঘরের কোণ, জানালার ওপর বা দরজার পেছনের অংশগুলোও মুছতে ভুলবেন না।

# পুরনো কাঠের আসবাবে খুব সহজে আর্দ্রতা ধরে। এরপর এতে ধুলা জমে খারাপ গন্ধ হয়। সেক্ষেত্রে বাড়ির যে অংশ শুকনো ও আলো হাওয়া পর্যাপ্ত আসে, সেখানেই এ ধরনের জিনিস রাখুন। যদি সম্ভব হয় মাঝে মধ্যে কিছুক্ষণ রোদে রাখুন এই আসবাবপত্রগুলো।

# টাটকা সুগন্ধি ফুল ঘরে রাখুন। তবে ফুলদানির পানি রোজ বদলাতে হবে।

# চট করে ঘরের ভ্যাপসা গন্ধ কাটাতে অ্যারোমা মোমবাতি ও ধূপকাঠির জুড়ি নেই। বাজারে নানা রকম রুম ফ্রেশনার, অ্যারোমা স্টিক পাওয়া যায়। সেগুলো ব্যবহার করুন।

# বৈদ্যুতিক বাল্বগুলো শুকনো কাপড় দিয়ে ঝেড়ে, তারপর সাবানে ভেজানো পানিতে কাপড় ভিজিয়ে সেগুলো দিয়ে মুছে নিন।

# আলমারিতে কাপড়ের ভাঁজে ভাঁজে কর্পূর রাখুন। গন্ধ চলে যাবে।

# চন্দন গুঁড়ার সঙ্গে অল্প শুকনো নিমপাতা মিশিয়ে আলমারিতে রেখে দিন। সুগন্ধ ছড়াবে ও পোকামাকড়ও দূর হবে।

# মাঝে মধ্যে জামা-কাপড়, লেপ-তোশক, কার্পেট, বালিশ রোদে দিন। জামা-কাপড় স্তুপ করে রাখবেন না। ভেজা জামা-কাপড় রোদে কিংবা বাতাসে শুকিয়ে নিন। এগুলো থেকেও গন্ধ হয় ঘরে।

# বিছানার তোশকের নিচে বকুল ফুলের মালা রাখতে পারেন। এতে সুন্দর গন্ধ হবে আর ছারপোকাও হবে না।

# পরিষ্কার থাকা সত্ত্বেও রান্নাঘরে দুর্গন্ধ হলে অল্প দারচিনি, এলাচ ও তেজপাতা পানিতে ফুটিয়ে নিন। ফুটে গেলে আঁচ হালকা করে বেশ কিছুক্ষণ বসিয়ে রাখুন। যাতে তার ভাপ সারা ঘরে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

# ঘরে মাছের গন্ধ দূর করতে অল্প অলিভ অয়েলের মধ্যে এক টুকরো দারচিনি দিয়ে কিছুক্ষণ গ্যাসে বসিয়ে রাখুন।

# সিংকের খোলা মুখ থেকে দুর্গন্ধ বের হলে এক কাপ ভিনিগার ও বেকিং সোডা মিশিয়ে ঢেলে দিন। আধা ঘণ্টা রেখে গরম পানি ঢেলে দিলে গন্ধ উধাও।

# হাওয়ায় থাকা টক্সিন থেকে বাথরুমে খুব দুর্গন্ধ হয়। এক কোনায় ইনডোর গাছ রাখুন। এগুলো বাতাস থেকে অতিরিক্ত টক্সিন শুষে নেয়।

# বাথরুম মানেই সবসময় ভেজা থাকবে তা কিন্তু নয়। এ ঘরটিও শুকনো রাখার চেষ্টা করুন। শাওয়ার কার্টেন ও পাপোশ ব্যবহার করুন। তাহলে ডাম্প থেকে বাজে গন্ধ হবে না।

# বাথরুমে এয়ারফ্রেশনার ব্যবহার করুন। চটজলদি বাথরুমের গন্ধ দুর হবে।


ঢাকা, মঙ্গলবার, আগস্ট ৪, ২০১৫ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি ১০০২ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন