bdlive24

পাকিস্তান এমনই

সোমবার জুন ১৯, ২০১৭, ০৪:২৬ পিএম.


পাকিস্তান এমনই

বিডিলাইভ রিপোর্ট: আন্ডারডগ হিসেবেই চ্যাম্পিয়নস ট্রফি শুরু করেছিল পাকিস্তান। র‍্যাঙ্কিংয়ে ৮ নম্বর দল হিসেবে খেলতে নামা পাকিস্তানকে গোনায় ধরার মতোও কেউ ছিল না। এর পর গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচেই ভারতের কাছে বাজে হারের পর পাকিস্তানের শোচনীয় বিদায়ের অপেক্ষায় ছিলেন অনেকেই।

কিন্তু কে ভেবেছিলেন ভারতের কাছে হারই বদলে দেবে পাকিস্তানকে। প্রথম ম্যাচে হারের পর দুর্দান্ত পাকিস্তানকেই দেখেছে ক্রিকেট বিশ্ব। শক্তিশালী দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা ও ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ফাইনালে উঠে দলটি। সেখানে প্রতিপক্ষ হিসেবে পায় ভারতকে। বিগত কয়েক ম্যাচের পারফরম্যান্স দেখে অনেকেই ভেবেছিলেন ভারতের কাছে এবারও শ্রেফ উড়ে যাবে পাকিস্তান।

কিন্তু সেটিও নিছকই কল্পনা। এই ভাবনার উল্টো রুপই দেখিয়ে দিল দলটি। উল্টো ভারতীয় দলকেই লড়াইয়ের সুযোগ পর্যন্ত দেয়নি সরফরাজের দল।

পাকিস্তান ক্রিকেট দল মানেই অনুমান-অসম্ভব কিছু একটা। যার কারণে তাদের দলের পাশে জুড়ে গেছে 'আনপ্রেডিক্টেবল' নামটি। এই দল সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করাও কঠিন। অন্যান্য দলকে নিয়ে যেখানে বাজি ধরা যায় সেখানে পাকিস্তানকে নিয়ে অন্তত এ কাজটি অনেকেই করেন না। কারণ বাজি ধরে যে অনেক সময়ই বোকা বনে যাওয়ার শঙ্কা থাকে।

১৯৯২ সালের বিশ্বকাপের কথাও নিশ্চয় অনেকের মনে আছে? লিগ পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত সেই বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী ৯টি দেশই পরস্পরের মুখোমুখি হয়েছিল। রাউন্ড রবিন লিগের ম্যাচগুলোতে পাকিস্তান জিম্বাবুয়ে, শ্রীলঙ্কা, অস্ট্রেলিয়া আর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জিতে পাকিস্তান সেমিফাইনালে খেলেছিল।

সে-ও অনেক নাটকের পর। ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে হারের সঙ্গে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৭৪ রানে অলআউট হয়ে যাওয়ার ঘটনাও ঘটেছিল। তবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বিপর্যয়ের ম্যাচটি বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হওয়ায় তা ‘লাইফ লাইন’ হয়েছিল পাকিস্তানের জন্য।

অস্ট্রেলিয়া, শ্রীলঙ্কা ও নিউজিল্যান্ডকে টানা হারিয়ে পাকিস্তানকে অপেক্ষা করতে হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচের ওপর। এই ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ জিতে গেলেই পাকিস্তানের আর সেমিফাইনালে খেলা হতো না।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়া জেতায় পাকিস্তান সেমিফাইনালে উঠে যায়। সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জিতে ফাইনালে খেল ইমরান খানের দল। ফাইনালে ইংল্যান্ডকে ২২ রানে হারিয়ে শেষ পর্যন্ত কাপ জেতে পাকিস্তান।

এই পাকিস্তানই তো পরের দুটি বিশ্বকাপে (১৯৯৬ ও ১৯৯৯) দুর্ধর্ষ দল নিয়েও শিরোপা জিততে পারেনি। ১৯৯৯ সালে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের কথা বিশেষ করে বলতে হয়, সেবার দোর্দণ্ড প্রতাপে ফাইনালে উঠে নিজেদের সম্ভাব্য শিরোপাজয়ী হিসেবেই দাঁড় করিয়েছিল পাকিস্তান।

কিন্তু ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১৩২ রানে অলআউট হয়ে আর শিরোপা জেতা হয়নি। অথচ অস্ট্রেলিয়াকেই গ্রুপ পর্যায়ে হেসেখেলে হারিয়েছিল পাকিস্তান।

এবারের চ্যাম্পিয়নস ট্রফি ১৯৯২ সালের মতোই কোনো গল্প হয়ে থাকবে পাকিস্তানের জন্য। আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ের অষ্টম (চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সবচেয়ে পেছনের দল) দল হিসেবে খেলতে অাসা পাকিস্তান গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নেবে—বিশ্লেষকদের ধারণা ছিল এমনই। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই দলই কিনা জিতল চ্যাম্পিয়নস ট্রফির শিরোপা।

এটাই আসল পাকিস্তান। ক্ল্যাসিক পাকিস্তান। যাদের বাতিল করে দেওয়া সব সময়ই ঝুঁকির। আবার যাদের নিয়ে বেশি আশা করাও বোকামি!


ঢাকা, জুন ১৯(বিডিলাইভ২৪)// এ এম
 
        print



মোবাইল থেকে অ্যাপস ডাউনলোড করুন
android iphone windows




bdlive24.com © 2010-2014
Powered By: NRB Investment Ltd.