সর্বশেষ
শুক্রবার ৭ই বৈশাখ ১৪২৫ | ২০ এপ্রিল ২০১৮

গোল্ডেন বয় হাসান আলী

সোমবার, জুন ১৯, ২০১৭

692819510_1497869223.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
২০১৬ সালে পেশোয়ার জালমির হয়ে পাকিস্তান সুপার লিগে (পিসিএল) নাম লেখান হাসান আলী। যেটা ছিল পিসিএলের উদ্বোধনী আসর। করাচী কিংসের বিপক্ষে শুরু হয় তার সুপার লিগ যাত্রা। এরপর ধীরে ধীরে সবার নজরে আসেন হাসান আলী। ১৪ ম্যাচে ১৪ উইকেট ঝুলিতে পুরেন এই পাক পেসার। যার মধ্যে ২০১৭ সালে ১১ ম্যাচে ১২টি উইকেট নিয়ে সেরাদের কাতারে নাম উঠান হাসান।

বিশেষ করে গতির সঙ্গে সঙ্গতি রেখে বলে সুইং করানোর জন্যই লাইমলাইটে হাসান আলী। আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। এক পা দুই পা করে জাতীয় দলের জার্সি নিয়মিত হয়ে যায় হাসান আলীর জন্য। গেল বছরের আগস্টে একদিনের ক্রিকেটে অভিষেক হয় হাসানের। প্রথম দিনে বল হাতে পাননি উইকেট, তবে বেশ কিপটে বোলিং করেছেন। ডাবলিনে আইরিশদের বিপক্ষে সেদিন ৫ ওভারে ২১ রান খরচ করেন হাসান। এরপর থেকে অদ্যবধি ২১টি ওয়ানডে খেলেছেন হাসান আলী। নিয়েছেন ৪২টি উইকেট। সেরা বোলিং ৩৮ রানে ৫ উইকেট।

এরপর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি খেলতে নামিয়ে দেয়া হয় হাসান আলীকে। ওই ম্যাচে বল হাতে হতাশ করেননি তিনি। চার ওভারে ২৪ রান দিয়ে শিকার করেন ২টি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট। দেখতে দেখতে খেলা হয়ে গেছে ৭টি টি-টোয়েন্টি। দখল করেছেন ১০টি উইকেট। পাক বোর্ড তাকে বাদ রাখেনি টেস্ট ক্রিকেটেও। চলতি বছরের মে মাসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট ক্যাপ পরেন হাসান আলী। এক টেস্টে ৩৩ রান দিয়ে নেন ৩টি উইকেট।

সর্বশেষ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির মূল একাদশে আবারও হাসান আলী। নির্বাচকদের আশার গুড়ে বালি দেননি তিনি। বরং সবাইকে তাক লাগিয়ে সেরার তকমা গায়ে লাগান হাসান। দুর্দান্ত বোলিং দিয়ে কুড়ান ভক্তদের বাহবা। ৫ ম্যাচে ১৩ উইকেট নিয়ে নিজের জাত চেনান হাসান আলী। নির্বাচিত হন আসরের শীর্ষ উইকেট টেকার বোলার। হাতে উঠে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির গোল্ডেন বল।

১৯৯৪ সালে পাকিস্তানের মান্দি বাহাউদ্দিনে জন্ম এই প্রথিতযশা পেসারের। বোলিংয়ে ভিন্নতা আর সুইংয়ে বেশ পারদর্শী তিনি। ডানহাতি ফাস্ট মিডিয়াম বোলিং করার পাশাপাশি লোয়ার অর্ডারে ব্যাটিং করে থাকেন হাসান। দলের প্রয়োজনে জ্বলে উঠে তার ব্যাট।

ঢাকা, সোমবার, জুন ১৯, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // ম. উ এই লেখাটি বার পড়া হয়েছে