bdlive24

পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট শহরের বাসিন্দা মাত্র চারজন

রবিবার জুলাই ০২, ২০১৭, ০৫:৩৬ পিএম.


পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট শহরের বাসিন্দা মাত্র চারজন

বিডিলাইভ ডেস্ক: শুনলে অবিশ্বাস্য মনে হতে পারে যে একটি শহরের বাসিন্দা মাত্র চারজন, তাদের মধ্যে আবার একজন মেয়র! শুধু তাই নয়, শহরে ডাক ব্যবস্থা থেকে শুরু করে অন্যান্য সকল নাগরিক সেবা কার্যক্রমও চালু আছে!

অবাক করা এই শহরটি কানাডায় অবস্থিত, নাম টিল্ট কোভ। এটি কানাডার সবচেয়ে ছোট শহর তো বটেই, হয়তো পৃথিবীরও সবচেয়ে ছোট্ট শহরও হতে পারে।

শহরের চারজন বাসিন্দাই শহরটিকে খুব ভালোবাসেন এবং তাদের ভাষ্য, এখান থেকে চলে যাওয়ার কোনো ইচ্ছে তাদের নেই। চারজন বাসিন্দা হলেও বলা চলে সবাই একটি পরিবারেরই সদস্য। মনোরম একটি লেককে ঘিরেই শহরটি।

মেয়র, মেয়রের বোন এবং মেয়রের একজন শ্যালক ওই দু’জন শহরের কাউন্সিলর এবং অন্যজন শহর কর্তৃপক্ষের ক্লার্ক বা কর্মচারী। এই চারজন ছাড়া টিল্ট কোভে আর কেউই থাকে না।

চারজনের একজন মার্গারেট কলিন্স, যিনি ক্লার্ক হিসেবে কাজ করছেন, তার জন্ম এই শহরেই। এখানেই তিনি বেড়ে উঠেছেন। তিনি বলেন, টিল্ট কোভে সবচেয়ে বেশি জনসংখ্যা যখন ছিল তখন সেটি ছিল ২,০০০। আর তা হয়েছিল সেখানে মাইনিং- এর কাজের জন্যে।

মাইনিংয়ের জন্যই শহরটি গড়ে ওঠে। তখন সেখানে নাগরিকদের যা যা কিছু লাগে তার সবকিছুই তৈরি করা হয়েছিল। কিন্তু ১৯৬৭ সালে এই খনিটির কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয় এক দুর্ঘটনার পর। তারপর শহরের সব বাসিন্দারা এখান থেকে চলে যান চিরতরে।

শহরের মেয়র ডন কলিন্স বলেন, মাত্র চারজন বাসিন্দা হওয়ার কারণে তাকে খুব বেশি কাজ করতে হয় না। তবে তিনি খুশি। চিঠি সরবরাহ, আবর্জনা সংগ্রহ, রাস্তাঘাট রক্ষণাবেক্ষণের মতো কাজগুলোও তাকে দেখভাল করতে হয়। শহরে একটি জাদুঘরও আছে।

বাসিন্দা চারজন হলেও মাঝে মাঝেই শহরে আসেন অনেক পর্যটক। মেয়র ডন কলিন্স আরও বলেন, পুরো জীবনটাই তিনি টিল্ট কোভে কাটিয়েছেন। বাকি জীবনটাও কাটাতে চান এখানে। মার্গারেট কলিন্স দুঃখ করে বলেন, এখন তারা বুড়ো হচ্ছেন। একসময় তারাও হয়তো এই শহর থেকে চলে যেতে বাধ্য হবেন এবং সেটি হবে তার জীবনের সবচে দুঃখজনক ঘটনা।

প্রসঙ্গত, টিল্ট কোভ শহরটি ১৮১৩ সালে যুক্তরাজ্যের জর্জ এবং মেরি উইনসন নামের নাগরিক দম্পত্তি কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৮৫৭ সালে শহরের বাসিন্দা দাড়ায় ২৫ জনে। ১৮৮৪ সালে শহরটিতে তামা-সোনাসহ অন্যান্য খনি আবিস্কৃত হলে খনি শ্রমিক ও খনি ব্যবসা সম্পর্কিত লোক বসতি গড়ে উঠতে থাকে। ১৯১৬ সালে শহরটিতে ১৫০০ বাসিন্দা ছিল। পরবর্তীতে ১৯৬৭ সালে খনি দুর্ঘটনায় শহরটির প্রধান খনিটি বন্ধ হয়ে যাওয়া এবং কানাডার অন্যান্য অংশে আরও আধুনিক জীবনযাত্রা এবং খনি কাজের জন্য আধুনিক প্রযুক্তির আবিস্কার ও ব্যবহার টিল্ট কোভের বাসিন্দাদের অন্য শহরের প্রতি আকৃষ্ট করলে লোক বসতি কমতে থাকে। কানাডার এক পরিসংখ্যানে ২০১১ সালে শহরের লোকসংখ্যা ছিল মাত্র ৫ জন যা ২০১৭ সালে এসে ৪ জনে পৌঁছেছে।


ঢাকা, জুলাই ০২(বিডিলাইভ২৪)// জেড ইউ
 
        print



মোবাইল থেকে অ্যাপস ডাউনলোড করুন
android iphone windows




bdlive24.com © 2010-2014
Powered By: NRB Investment Ltd.