সর্বশেষ
সোমবার ১লা শ্রাবণ ১৪২৫ | ১৬ জুলাই ২০১৮

বাংলা গানের ভুবনে এক বিস্ময় চিরতরুণ লাকি

রবিবার, জুলাই ২৩, ২০১৭

8820438_1500813112.jpg
কাহহার সামি :
টুকরো মধুর স্মৃতিচারণ আর এককালীন সৃষ্টি পাগল দিনগুলো স্মরণের মধ্য দিয়ে সদ্যপ্রয়াত শিল্পী লাকি আখন্দকে "নাগরিক শ্রদ্ধা" জানালেন তথ্য মন্ত্রী , সাংস্কৃতিক মন্ত্রী, ডি এন সি সি মেয়র ও তার জীবনের বিভিন্ন পর্বের সহযোদ্ধা, সহকর্মী ও সহশিল্পীর পাশাপাশি সর্বস্তরের নাগরিক।

গতকাল বিকেল ৬:৩০ মিনিটে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় সংগীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে প্রয়াত শিল্পীর স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তথ্য মন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘সবাইকে একদিন চলে যেতে হবে, কিন্তু সময়ের আগে কেউ চলে গেলে সবাই কাঁদে। তেমনি আমরাও কাঁদি লাকি আখন্দের এমন বিদায়ে। তিনি গানে বলেছেন আমায় ডেকো না। তবুও আমরা তাকে ডাকব। শিল্পী সাহিত্যিকরা সব সময় কালউত্তীর্ণ। শিল্পীদেরও দেশ, জাত, ধর্ম আছে। মুক্তিযোদ্ধা এবং শিল্পী দু’টিই বিরল প্রতিভার অধিকারী ছিলেন শিল্পী লাকি।’

প্রয়াত লাকি আখন্দের চলে যাওয়াটা বাংলা সংগীত জগতে অনেক বড় একটা শুণ্যতা অনূভব করে সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, এমন একটা সময় ছিল, যখন গানের ভাল তাল, সুরের বড়ই অভাব ছিল। আর তখনি লাকির আবির্ভাব ঘটে।

প্রয়াত শিল্পী আজম খানের কথা স্বরণ করে মন্ত্রী আরো বলেন, শিল্পীর সৃষ্টির মাঝে একটা যন্ত্রণা থাকে, আর এ যন্ত্রণা লাকি এবং আজম খানের মধ্যে আছে। এধরনের মেধাবী শিল্পীদের স্মরণীয় কর্মগুলো আর্কাইভ করে রাখার আশ্বাস দিলেন তিনি ।

টিএসসিতে এক সাথে আড্ডা দেয়া, এক সাথে খেতে যাওয়া, বন্ধুদের মন খারাপ থাকলে মন ভাল করার জন্য গান গেয়ে হাসি ফুটাতেন লাকি আখন্দ। প্রয়াত শিল্পীর স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে কান্না সুর কণ্ঠে ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রী একজন শিল্পী অনূরাগী। শিল্প ধরে রাখতে যেকোন প্রস্তাব দেওয়া হলে তিনি ফিরিয়ে দিবেন না আমি মনে করি। কারণ এই একটা জায়গায় আমরা সবাই এক।

শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী 'নাগরিক সভায়' লাকি আখন্দকে সুর স্রষ্টা হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

শিল্পী লাকি আখন্দের জীবন ভিত্তিক ভিডিও চিত্র প্রদর্শন, বিভিন্ন পরিবেশনা ও জীবনের শেষ দিনগুলো প্যালিয়েটিভ কেয়ার সেন্টারে চিকিৎসাধীন থাকাকালীন শিল্পীর সুর করা জীবনের শেষ গানটির একটি ভিডিওচিত্র সবশেষে দেখানো হয়।

শিল্পীকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের গোটা আয়োজনে সহযোগী হিসেবে ছিলেন বাংলাদেশ মিউজিক্যাল ব্যান্ডস অ্যাসোসিয়েশন (বামবা) এবং শিল্পীর পাশে ফাউন্ডেশন।

ঢাকা, রবিবার, জুলাই ২৩, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // জেড ইউ এই লেখাটি বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন