bdlive24

রানী ভিক্টোরিয়ার জীবনকথা

শনিবার আগস্ট ১৯, ২০১৭, ১১:৩৫ এএম.


রানী ভিক্টোরিয়ার জীবনকথা

বিডিলাইভ ডেস্ক: ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সূর্য কখনো অস্ত যায় না, এ কথার প্রচলন হয়েছিল রানী ভিক্টোরিয়ার সময়ে। ইতিহাসের সবচেয়ে বিখ্যাত রানীদের একজন তিনি। তার সময়েই ব্রিটেনে শিল্পায়নসহ নানা ক্ষেত্রে নাটকীয় সব পরিবর্তন এসেছিল। গণতন্ত্রের হাওয়ায় রাজতন্ত্র যখন বিলুপ্তির হুমকিতে তখন রানী ভিক্টোরিয়া রাজতন্ত্রকে শক্ত ভিতের ওপর দাঁড় করান।

মাত্র ১৮ বছর বয়সে ১৮৩৭ সালের ২৮ জুন ব্রিটিশ সিংহাসনে বসেছিলেন তিনি। এত অল্পবয়সী রানীর সিংহাসনে আরোহণের এ ঐতিহাসিক ঘটনার সাক্ষী হতে ৪ লাখের মত মানুষ হাজির হয়েছিল। অল্প বয়সী একটি মেয়ে ব্রিটিশ সিংহাসনে বসতে চলেছে এটি অনেকের কাছেই আগ্রহের বিষয়ে পরিণত হয়েছিল। ১৯০১ সালে মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত ৬৩ বছর সাম্রাজ্য শাসন করে গেছেন তিনি। এটি ছিল তখন পর্যন্ত সবচেয়ে দীর্ঘ সময় কোন রাজা বা রানীর ব্রিটেন শাসন করার ঘটনা। অবশ্য ব্রিটেনের বর্তমান রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ সে রেকর্ড অতিক্রম করে ফেলেছেন।

রানী ভিক্টোরিয়া এমন একটি সময়ে ব্রিটিশ সিংহাসনে আরোহণ করেন যখন ব্রিটিশ রাজনীতিতে বাকিংহাম প্যালেসের (ব্রিটেনের রাজ প্রাসাদ) ভূমিকা কি হবে তা নিয়ে নানা সংশয় তৈরি হয়েছিল। তার চাচারা ব্রিটিশ সিংহাসনে বসে অর্থের অপচয়ের জন্য বেশ সমালোচিত হয়েছিলেন। এমনকি ব্রিটেনে রাজতন্ত্র টিকবে কিনা না সেটিও অনিশ্চিত হয়ে পড়ে।

কিন্তু রানী ভিক্টোরিয়া শক্ত হাতে হাল ধরে জনকল্যাণমূলক কাজের মাধ্যমে রাজ পরিবারের ওপর মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনেন। তার হাতেই ব্রিটিশ রাজনীতিতে রাজ পরিবারের ভূমিকা নতুন করে নির্ধারিত হয়েছিল। ৪ ফুট ১১ ইঞ্চি উচ্চতার রানী ছিলেন পুরো ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের স্তম্ভের মত। তিনি তার স্বামী অ্যালবার্ট এবং নয় ছেলেমেয়ে হয়ে ওঠেন নতুন যুগের প্রতীক। তার আমলেই ব্রিটেনে সাংবিধানিক রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়। ব্রিটিশ সমাজে রানী ভিক্টোরিয়ার প্রভাবের কারণেই ব্রিটেনে রাজতন্ত্রের ধারাবাহিকতা নিশ্চিত হয়।

রানী ভিক্টোরিয়ার শাসনামলেই সবচেয়ে বেশি বিস্তৃতি ঘটেছিল ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের। ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সূর্য অস্ত যায় না- এ কথার প্রচলন তখনই হয়েছিল। বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, শিল্পায়ন, বাষ্পীয় ইঞ্জিন এবং রেলের প্রসার, ব্রিটেনের পাতাল রেল এসব কিছুই ঘটেছিল রানী ভিক্টোরিয়ার শাসনামলে।

জন্ম ও বেড়ে ওঠা:
১৮১৯ সালের ২৪ মে লন্ডনের কেনসিংটন প্রাসাদে তার জন্ম হয়। পুরো নাম আলেকজান্দ্রিনা ভিক্টোরিয়া, মা ডাকতেন দ্রিনা বলে। তিনি ছিলেন ডিউক অব কেন্ট এডওয়ার্ডের একমাত্র সন্তান। এই এডওয়ার্ড ছিলেন রাজা তৃতীয় জর্জের চতুর্থ পুত্র।

১৮২০ সালে ভিক্টোরিয়ার বয়স যখন একবছরও পূর্ণ হয়নি তখন বাবা এডওয়ার্ড মারা যান। এরপর মা একাই তাকে বড় করে তোলেন। ভিক্টোরিয়া কখনো স্কুলে যাননি। তার জন্য একজন জার্মান গৃহশিক্ষিকা রাখা হয়েছিল। ছোট থেকেই জার্মান এবং ইংরেজি দু’ভাষাতেই পারদর্শী হয়ে ওঠেন তিনি। ভিক্টোরিয়াকে কখনোই একা থাকতে হয়নি। কিন্তু তবু তিনি ছিলেন একা, সমবয়সী কারো সাথে মেশার সুযোগ তার কখনো হয়নি।

প্রাসাদে কঠোর নিয়ন্ত্রণের মধ্যে বেড়ে ওঠা রানীর একান্ত সময় বলে কিছু ছিল না। রাজকর্মকর্তা জন কনরি ভিক্টোরিয়ার শৈশবকে দুর্বিষহ করে তুলেছিলেন। রানীর মুকুট মাথায় দেয়ার পর ভিক্টোরিয়ার প্রথম নির্দেশ ছিল এক ঘণ্টা একা থাকতে দাও। মা’কে দূরের একটি কক্ষে থাকার ব্যবস্থা করেন আর জন কনরিকে নিষিদ্ধ করেন।

বিয়ে:
ভিক্টোরিয়ার ১৭তম জন্মদিনে জার্মানি থেকে তার আত্মীয়রা বেড়াতে আসে। তাদের মধ্য ছিলেন তার খালাতো ও মামাতো ভাই-বোনেরা। এদের মধ্যে অ্যালবার্টকে খুব পছন্দ করেছিলেন ভিক্টোরিয়া। এই অ্যালবার্টকে রানী হওয়ার পর ভিক্টোরিয়া বিয়ে করেন। মজার ব্যাপার হচ্ছ প্রথা ভেঙে রানীই তাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। কারণ কারো পক্ষে ব্রিটেনের রানীকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়া সম্ভব ছিল না। অ্যালবার্ট কখনোই ব্রিটেনের রাজা হননি। ভিক্টোরিয়া তাকে পছন্দ করলেও অ্যালবার্ট কখনো ব্রিটেনে জনপ্রিয় হতে পারেননি। তিনি মাঝেমধ্যেই অসুস্থ হয়ে পড়তেন।

১৮৬১ সালে ৪২ বছর বয়সে মারা যান অ্যালবার্ট। ভিক্টোরিয়া ভীষণ ভেঙে পড়েন। তিনি মানুষের সাথে সাক্ষাৎ বন্ধ করে দেন। সে সময় ব্রিটেনের লোকেরা শোকের প্রতীক হিসেবে কিছুদিন কালো পোশাক পরত। কিন্তু রানী ভিক্টোরিয়া বাকি জীবনের পুরো সময় কালো পোশাক পরে কাটিয়েছেন এবং অ্যালবার্টের কক্ষ তার জীবিতাবস্থায় যেভাবে ছিল সেভাবেই রেখে দিয়েছিলেন।

সিংহাসনে আরোহণ:
১৮৩৭ সালে জুনে রাজা চতুর্থ উইলিয়াম মারা যাওয়ার পর খুব সকালে ভিক্টোরিয়াকে বলা হয় তিনি এখন ব্রিটেনের রানী। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ রানীর সাথে দেখা করেন। ২৮ জুন ছিল রানীর সিংহাসনে বসার দিন। প্রথা অনুযায়ী ওয়েস্টমিনিস্টার অ্যাবেতে রানীর মাথায় মুকুট পরিয়ে দেন। উপস্থিত জনতা রানী দীর্ঘজীবী হোক বলে স্লোগান দিতে থাকে। পাঁচ ঘণ্টা ধরে চলেছিল এ অনুষ্ঠান।

ভিক্টোরিয়ার শপথ গ্রহণের দু’বছর বছর পর ১৮৩৯ সালে মামাতো ভাই অ্যালবার্ট ব্রিটেনে যান। অ্যালবার্ট অবশ্য ভিক্টোরিয়াকে বিয়ে করতে মুখিয়ে ছিলেন। কিন্তু ভিক্টোরিয়া তখন ব্রিটেনের রানী তাকে তো আর বিয়ের প্রস্তাব দেয়া যায় না। ভিক্টোরিয়া নিজেই প্রস্তাব দেন আর পরের বছর অর্থাৎ ১৮৪০ সালে তারা বিয়ে করেন। বিয়ের পর প্রতিদিন একসাথে কাজ করতেন তারা। তাদের ডেস্কগুলো ছিল পাশাপাশি।

প্রতিদিন ব্রিটিশ সরকারের প্রচুর কাগজপত্র দেখতে হত রানীকে। ১৮৪১ সালে রানীর প্রথম সন্তান ভিকির জন্ম হয়। মোট নয় ছেলেমেয়ের জন্ম হয়েছিল তাদের ঘরে।

অন্তত ছয়বার রানীকে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়:
১৮৪০ সালে এডওয়ার্ড অক্সফোর্ড নামে ১৮ বছর বয়সী এক তরুণ লন্ডনের রাস্তায় রানীর ঘোড়ার গাড়ি লক্ষ্য করে দু’টি গুলি ছোঁড়ে। বিকৃত মস্তিষ্কের যুক্তিতে সে তরুণ ছাড়া পেয়ে যায়। ১৮৪২ সালে জন উইলিয়াম নামে আরেক তরুণ দু’বার রানীকে হত্যার ব্যর্থ চেষ্টা চালায়। সে তরুণও আইনের ফাঁক গলে বেরিয়ে যায়।

১৮৪৯ সালে এক ক্ষুব্ধ আইরিশ নাগরিক রানীর ঘোড়ার গাড়ির ওপর হামলা চালায়। পরের বছর রবার্ট পেট নামে এক অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা লাঠি নিয়ে রানীর ওপর হামলা চালান। ১৮৮২ সালে স্কটল্যান্ডের এক বিখ্যাত কবি রানীর ঘোড়ার গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়েন। এটি ছিল রানীকে হত্যার লক্ষ্য তার তৃতীয় প্রচেষ্টা। তাকেও মস্তিষ্ক বিকৃতির অভিযোগে রেহাই দেয়া হয়। এসব হত্যা প্রচেষ্টা বরং রানীর জনপ্রিয়তা বাড়িয়েছিল।

ক্রিমিয়ার যুদ্ধ:
১৮৫৪ থেকে ১৮৫৬ সময়কালে রাশিয়া ও তার তুর্কি মিত্রদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে ব্রিটেন ও ফ্রান্স প্রধানত রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত ক্রিমিয়ায় এ যুদ্ধ হওয়ায় এটি ক্রিমিয়ার যুদ্ধ নামে পরিচিত। যুদ্ধে হতাহত হওয়া ছাড়াও প্রচণ্ড শীত সৈনিকদের জন্য দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। সে সময় সামরিক প্রসঙ্গে নাক গলানোর ক্ষমতা ব্রিটেনের রাজ পরিবারের ছিল না। তবু রানী ভিক্টোরিয়া সৈন্যদের শীত থেকে বাঁচাতে মোজাসহ নানা সাহায্য উপকরণ পাঠান। তিনি যুদ্ধে স্বামী হারানো নারীদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েও চিঠি লেখেন। এছাড়া সৈন্যদের সম্মানিত করতে পদক চালু করেন।

ভারতের রানী হওয়া:
ভারতে ১৮৫৭ সালের সিপাহী বিদ্রোহে বহু ইউরোপীয় মারা যাওয়ার প্রেক্ষাপটে ব্রিটিশ সরকার ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছ থেকে সরাসরি ভারতের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। ১৮৭৭ সালে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে রয়েল টাইটেল অ্যাক্ট পাশের মাধ্যমে ভারতের সম্রাজ্ঞী হন রানী ভিক্টোরিয়া। উপনিবেশ ভারতকে রানীর খুবই পছন্দ হয়েছিল। গর্বের সাথে ভারতকে মুকুটের মণি হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি।

মৃত্যু:
স্বামী অ্যালবার্টের মৃত্যুর পর সরকারি দায়িত্ব থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন রানি। এমনকি সংসদ অধিবেশন ডাকতেও অস্বীকৃতি জানান। পত্রপত্রিকা রসিকতা করে লিখতে শুরু করে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে টু-লেট ঝুলছে। পরে অবশ্য রানী সরকারি দায়িত্ব পালন শুরুর মাধ্যমে আবার মানুষের আস্থা অর্জন করেন।

১৯০১ সালে স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে রানী ভিক্টোরিয়া মারা যান আর এরপর তার বড় ছেলে এডওয়ার্ড সিংহাসনে বসেন।


ঢাকা, আগস্ট ১৯(বিডিলাইভ২৪)// এস আর
 
        print



মোবাইল থেকে অ্যাপস ডাউনলোড করুন
android iphone windows




bdlive24.com © 2010-2014
Powered By: NRB Investment Ltd.