সর্বশেষ
রবিবার ১২ই ফাল্গুন ১৪২৪ | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

আবদুল্লাহ আল মামুনের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

সোমবার ২১শে আগস্ট ২০১৭

487249784_1503289139.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
আজ ২১ আগস্ট, সোমবার দেশের বরেণ্য নাট্যকার, নির্দেশক, অভিনেতা, চলচ্চিত্র নির্মাতা প্রয়াত আবদুল্লাহ আল মামুনের ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী।

১৯৪২ সালের ১৩ জুলাই জামালপুরে আমড়াপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন এ কৃতী নাট্যব্যক্তিত্ব। ২০০৮ সালের এদিনে ঢাকার বারডেম হাসপাতালে ৬৬ বছর বয়সে মারা যান তিনি।

১৯৬৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাস বিষয়ে এমএ পাস করেন। আব্দুল্লাহ আল মামুন তার পেশাগত জীবন শুরু করেন বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রযোজক হিসেবে পরবর্তীকালে পরিচালক, ফিল্ম ও ভিডিও ইউনিট, মহাপরিচালক, শিল্পকলা একাডেমী  হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

নাটক মঞ্চায়নে ব্রিটিশ ও পাকিস্তানি উপনিবেশ আমলের কলঙ্কিত আইনকানুন ও বিধিনিষেধ ভেঙে ফেলার আন্দোলনেও তিনি ছিলেন অগ্রপথিক।

আবদুল্লাহ আল মামুন একদিকে নিজের রচিত মৌলিক নাটকের নির্দেশনাসহ অভিনয় করেছেন, অন্যদিকে বাংলা ও ইংরেজি সাহিত্যের বিখ্যাত সব সাহিত্যিকের রচনাকে নাট্যরূপ দিয়েছেন। বাংলাদেশের মঞ্চনাটকের ইতিহাসে আবদুল্লাহ আল মামুনের আরেকটি বড় অবদান হচ্ছে-সৈয়দ শামসুল হক রচিত 'পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়' শীর্ষক কাব্যনাটকের নির্দেশনা ও অভিনয়। ১৯৭৬ সালে মঞ্চস্থ এই নাটকটিই স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম মৌলিক কাব্যনাট্যের প্রযোজনা। শহীদুল্লাহ কায়সারের আকর উপন্যাস নিয়ে তার নির্মিত ধারাবাহিক নাটক 'সংশপ্তক' আজো দর্শক প্রিয়তার শীর্ষে।

এছাড়াও তার রচিত উল্লেখযোগ্য নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে সুবচন নির্বাসনে, এখনও দুঃসময়, সেনাপতি, এখনও ক্রীতদাস, কোকিলারা, দ্যাশের মানুষ, মেরাজ ফকিরের মা, মেহেরজান আরেকবার ইত্যাদি।

নাটকের সঙ্গে সঙ্গে নির্মাণ করেছেন চলচ্চিত্র, টিভি সিরিয়াল। তার নির্মিত চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে সারেং বৌ (১৯৭৮), সখী তুমি কার, এখনই সময়, জোয়ারভাটা, শেষ বিকেলের মেয়ে।

আবদুল্লাহ আল মামুন অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। পেয়েছেন বাংলা একাডেমি পুরস্কার ও প্রথম জাতীয় টেলিভিশন পুরস্কার। শ্রেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে পেয়েছেন দু’বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। একুশে পদকে ভূষিত হন ২০০০ সালে।

কৃতী নাট্যব্যক্তিত্ব আবদুল্লাহ আল মামুনের মৃত্যুবার্ষিকীতে জানাই বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি।

ঢাকা, সোমবার ২১শে আগস্ট ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // এস আর এই লেখাটি 60 বার পড়া হয়েছে