সর্বশেষ
রবিবার ১২ই ফাল্গুন ১৪২৪ | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

কেমন হয় আগুনের শিখার আকৃতি (পর্ব-৪)

আগুনের ব্যবচ্ছেদ

বুধবার ২৩শে আগস্ট ২০১৭

1980806675_1503471480.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
আদি মানবেরা আগুন আবিষ্কার করেছিলো লক্ষ লক্ষ বছর আগে। ক্রমান্বয়ে মানুষ আগুন নিয়ন্ত্রণ করে খাবার ঝলসে খেতে, তাপ ও আলো পেতে, এবং শিকারীদের দূরে রাখতে শিখলো। আগুন মানব জীবনে এত বড় আশীর্বাদ হয়ে দাঁড়িয়েছিলো যে কিছু মানুষ আগুনের পূজা পর্যন্ত করতো।

প্রাচীন গ্রীকদের ধারণা ছিল, আগুন চারটি মৌলিক উপাদানের একটি যা দিয়ে জগতের সব কিছু গঠিত। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে, আগুন মৌলিক তো নয়ই বরং আগুনের বিজ্ঞান যথেষ্ট জটিল। আগুনের শিখায় শত শত জটিল বিক্রিয়া ঘটতে থাকে এবং জটিল যৌগ উৎপন্ন ও পরিবর্তিত হতে থাকে। আজকে জেনে নেয়া যাক আগুন পদার্থ নাকি শক্তি।

শিখার আকৃতি:
সব ধরনের আগুনই উপরে সূঁচালো আকৃতির হয়ে থাকে। কারণটা খুব সহজ। শিখার অত্যন্ত উত্তপ্ত গ্যাস এবং আশেপাশের গ্যাস গরম হয়ে উপরে উঠতে থাকে। আশেপাশের গ্যাসগুলোর স্থান পূরণ করতে নিচ থেকে ঠাণ্ডা গ্যাস আসে এবং আবারও গরম হয়ে উপরে উঠে। এই ক্রমাগত পরিচলনের কারণে শিখা এরকম সূঁচালো হয়।

শিখার এই আকৃতির পেছনে যেহেতু মাধ্যাকর্ষণের ভূমিকাই সবচেয়ে বেশি, তাই অবশ্যই মহাশূন্যে শিখার আকৃতি এরকম হবে না। নাসার গবেষণায় দেখা গেছে, International Space Station-এ Microgravity তে মোমবাতির শিখা ছোট গোলকে পরিণত হয়। আবার হেপ্টেনের শিখা-গোলক অদৃশ্য হয়ে ক্রমশ বড় হয়ে ছড়িয়ে পড়তে থাকে। এখানে আগুনের রসায়নও পুরাপুরি আলাদা।

ঢাকা, বুধবার ২৩শে আগস্ট ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // জে এইচ এই লেখাটি 66 বার পড়া হয়েছে