সর্বশেষ
রবিবার ১২ই ফাল্গুন ১৪২৪ | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায় কফি

2017-09-10 04:45:21

1037240610_1504997121.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
কফি বিশ্বব্যাপী খুবই জনপ্রিয় পানীয়। পানির সাথে ফুটিয়ে রান্না করা "কফি বীজ" নামে পরিচিত এক প্রকার বীজ পুড়িয়ে গুঁড়ো মিশিয়ে কফি তৈরি করা হয়। এই বীজ কফি চেরি নামক এক ধরনের ফলের বীজ।

প্রায় ৭০টি দেশে এই ফলের গাছ জন্মে। সবুজ কফি বিশ্বের সব থেকে বেশি বিক্রীত কৃষিপণ্যের মধ্যে একটি। কফিতে ক্যাফেইন নামক এক প্রকার উত্তেজক পদার্থ রয়েছে। ৮ আউন্স কফিতে প্রায় ১৩৫ মিলিগ্রাম ক্যাফেইন থাকে। কফির উপাদান ক্যাফেইনের জন্যে কফি মানুষের উপর উত্তেজক প্রভাব ফেলে ও উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। এখন, চায়ের পর কফি বিশ্বের অত্যধিক জনপ্রিয় পানীয়।

সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, কফি পান করলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমে। নতুন ওই গবেষণায় সহমত দিয়েছেন ডেনমার্কের গবেষকরাও।

এর আগে একটি গবেষণায় ডেনমার্কের অরহাস বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা দেখেছিলেন, কফির মধ্যে থাকা ক্যাফেস্টল যৌগ প্যানক্রিয়াসের কোষে ইনসুলিন উৎপাদনে সাহায্য করে। অ্যান্টি ডায়াবেটিক ড্রাগের মতোই পেশীতে গ্লুকোজ সঞ্চয়ের মাত্রা বাড়াতেও সাহায্য করে।

গবেষকরা টাইপ টু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এমন ইঁদুরদের তিনটি দলে ভাগ করা হয়। এদের মধ্যে দুই দলকে নিয়মিত ক্যাফেস্টলের ডোজ দেওয়া হয়।

১০ সপ্তাহ গবেষণার পর দেখা যায় যে দুই দল ইঁদুরকে নিয়মিত ক্যাফেস্টলের ডোজ দেওয়া হয়েছে তাদের রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে এবং ইনসুলিন ক্ষরণের ক্ষমতাও বেড়েছে।

আবার ক্যাফেস্টল হাইপোগ্লাইসেমিয়া বা রক্তে শর্করার মাত্রা অতিরিক্ত কমিয়েও দেয় না। যা অধিকাংশ অ্যান্টি-ডায়াবেটিক মেডিসিন করে থাকে। প্রতিদিন ক্যাফেস্টল শরীরে পৌঁছলে তা শর্করার স্বাভাবিক মাত্রা বজায় রেখেই টাইপ টু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমিয়ে দিতে পারে।

ঢাকা, 2017-09-10 04:45:21 (বিডিলাইভ২৪) // এ এম এই লেখাটি 0 বার পড়া হয়েছে