bdlive24

ছবি বানানোর গল্প ও একজন নায়করাজ রাজ্জাক (শেষ পর্ব)

মঙ্গলবার সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৭, ০৩:২৪ পিএম.


ছবি বানানোর গল্প ও একজন নায়করাজ রাজ্জাক (শেষ পর্ব)

লিপন মুস্তাফিজ: পরিচালক রাজ্জাকঃ
১৯৭৭ সালে তিনি পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। তার পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র অনন্ত প্রেম। পথ-রোমাঞ্চধর্মী রোম্যান্টিক এই চলচ্চিত্রের জন্য চিত্রায়িত হয়েছিল বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের প্রথম চুম্বন দৃশ্য। চলচ্চিত্রের শেষ দৃশ্যের জন্য রাজ্জাক ববিতার মধ্যে চুম্বন দৃশ্য চিত্রায়িত হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে তা মূল ছবি থেকে বাদ পড়ে। তার পরিচালিত সর্বশেষ চলচ্চিত্র আয়না কাহিনী মুক্তি পায় ২০১৪ সালে। তিনি সব মিলিয়ে প্রায় ১৬টি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন। তার মালিকানার রাজলক্ষী প্রোডাকশন থেকে বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়।

তার পরিচালিত চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে:
অনন্ত প্রেম, অভিযান, সৎ ভাই, জ্বিনের বাদশা, প্রফেসর, বাবা কেন চাকর, উত্তর ফাল্গুনী, আমি বাঁচতে চাই, কোটি টাকার ফকির, মরণ নিয়ে খেলা, মন দিয়েছি তোমাকে, আয়না কাহিনী।

‘নাচে মন ধিনা ধিনা’ গানের মাধ্যমে সবার মন জয় করে নেয়া নায়ক আজ আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন দূরে বহুদূরে। একদিক থেকে উনি অনেক ভাগ্যবান ছিলেন যে অনেক গুনী পরিচালক তাকে নিয়ে কাজ করেছিলেন। তবে তিনি নিজেকে একই ধারায় আটকে না রেখে বার বার ভিন্ন ভিন্নভাবে পর্দায় আসতেন বলেই তিনি নায়করাজ উপাধি পেয়েছিলেন। বাংলাদেশের প্রথম মারদাঙ্গা ছবি রংবাজে নিজেকে চিনিয়েছিলেন নতুন করে। আবার বড় ভাল লো্ক, দুই পয়সার আলতা, চন্দ্রনাথ, প্রমুখ ছবিতে তার অভিনয় ও উপস্থিতি মনে দাগ কাটার মতন। কখনও টাকার জন্য নিজেকে বিক্রি করে দেননি আমাদের প্রিয় অভিনেতা, পরিচালক ও প্রযোজক। সাহিত্য নিয়ে চিন্তা ভাবনা করতেন বলেই, পরিচালক হিসেবে সাহিত্য নিয়ে কাজ করেছেন ঢের। সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে নির্মান করেছেন একের পর এক ছবি। এক সময় চলচ্চিত্রের দুর্দশা দেখে নিজেকে গুটিয়ে নেন এমনকি নিজের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান বিক্রি করে কলকাতায় চলে যান অভিমানে।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে রাজ্জাকের অবদান কনোভাবেই অস্বীকার করা যাবে না। বাংলাদেশের চলচ্চিত্র যখন পথ চলা শুরু করে করে তখন তেমন কোন আর্থিক সাহায্য, কারিগরি সাহায্য ও শিক্ষা, প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছিলনা, এছাড়াও ছিল তুছছ-তাচ্ছিল্য। সবকিছু পাশ কাটিয়ে শুধুমাত্র ভালোবাসাকে পুঁজি করে যে শিল্প তিল তিল করে গড়ে উঠেছে যার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন নায়করাজ রাজ্জাক। দেশের স্বাধীনতার এত বছর পরে এই শিল্পকে এগিয়ে নেবার সময় এসেছে তা না হয়ে আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পকে গলাটিপে হত্যার চেষ্টা চলছে। তার মৃত্যু আমাদের এই শিক্ষা দিক যাতে করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের হত্যা না হয়। এটা মেনে নেয়া যায় না, এটা মানতে আমাদের কষ্ট হয়।

রাজ্জাক অভিনীত কিছু ছবির নামঃ

১৯৬৬
সুরুর বারা বাঙ্কভীর ‘আখেরী স্টেশন’ (উর্দু),
কামাল আহমেদের ‘উজালা’ (উর্দু),
বশির হোসেনের ‘১৩নং ফেকু ওস্তাগার লেন’,
সুভাষ দত্তের ‘কাগজের নৌকা’,
মোস্তাফিজের ‘ডাক বাবু’ এবং
জহির রায়হানের ‘বেহুলা’।

১৯৬৭
আমজাদ হোসেন ও নূরুল হকের ‘আগুন নিয়ে খেলা’,
জহির রায়হানের ‘আনোয়ারা’,
আবার আমজাদ হোসেনের ‘জুলেখা’।

১৯৬৮
রহিম নেওয়াজ ও নূরুল হকের ‘দুই ভাই’,
আমজাদ হোসেনের ‘সংসার’,
নূর আলম জিকোর ‘নিশি হলো ভোর’,
সুভাষ দত্তের ‘আবির্ভাব’,
কারিগরের ‘সখিনা’,
মোহসিনের ‘গৌরি’ (উর্দু),
আব্দুল জব্বার খানের ‘বাঁশরী’
নারায়ণ ঘোষ মিতার ‘এতটুকু আশা’,
রহিম নেওয়াজের ‘সুয়োরাণী দুয়োরাণী’,
নূরুল হক বাচ্চুর ‘কুচবরণ কন্যা’।

১৯৬৯
রহিম নেওয়াজের ‘মনের মত বউ’,
কাজী জহিরের ‘ময়নামতি’
বাবুল চৌধুরীর ‘আগন্তুক’
নূরুল হক বাচ্চুর ‘শেষ পর্যন্ত’
নারায়ণ ঘোষ মিতার ‘নীল আকাশের নীচে’
কাজী জহিরের ‘মেহেরবান’ (উর্দু)।

১৯৭০
আমির হোসেনের ‘যে আগুনে পুড়ি’,
মঞ্জুর হোসেনের ‘সমাপ্তি’,
মোস্তাফিজের ‘পায়েল’ (উর্দু),
নারায়ণ ঘোষ মিতার ‘ক খ গ ঘ ঙ’,
বাবুল চৌধুরীর ‘আঁকাবাঁকা’,
জহির রায়হানের ‘জীবন থেকে নেয়া’,
নজরুল ইসলামের ‘দর্পচূর্ণ’,
এহতেশামের ‘পিচ ঢালা পথ’,
নূরুল হক বাচ্চুর ‘যোগ বিয়োগ’,
কিউ এম জামানের ‘ছদ্মবেশী’,
ইবনে মিজানের ‘কত যে মিনতি’,
কামাল আহমেদের ‘অধিকার’,
কাজী জহিরের ‘মধু মিলন’,
মোহসিনের ‘ঢেউ এর পর ঢেউ’,
আমজাদ হোসেনের ‘পিতা পুত্র’,
বাবুল চৌধুরীর ‘টাকা আনা পাই’,
নূরুল হকের ‘বড় বউ’,
আব্দুল জব্বার খানের ‘কাঁচ কাটা হীরে’,    
নারায়ণ ঘোষ মিতার ‘দ্বীপ নেভে নাই’।

১৯৭১
নজরুল ইসলামের ‘স্বরলিপি’,
আলী কায়সারের ‘গাঁয়ের বধূ’,
অশোক ঘোষের ‘নাচের পুতুল’,
আলমগীর কুমকুমের ‘স্মৃতি টুকু থাক’।

১৯৭২
মোস্তফা মেহমুদের ‘মানুষের মন’
ইবনে মিজানের ‘কমলা রাণীর দীঘি’
বাবুল চৌধুরীর ‘প্রতিশোধ’
কামাল আহমেদের ‘অশ্রু দিয়ে লেখা’
নারায়ণ ঘোষ মিতার ‘এরাও মানুষ’
জীবন চৌধুরীর ‘শপথ নিলাম’
চাষী নজরুল ইসলামের ‘ওরা এগার জন’
নাজমুল হুদা মিন্টুর ‘চৌধুরী বাড়ি’
এস এম শফির ‘ছন্দ হারিয়ে গেল’
কাজী জহিরের ‘অবুঝ মন’
মোস্তফা মেহমুদের ‘জীবন সঙ্গী’।

১৯৭৩
এইচ আকবর-এর ‘জীবন তৃষ্ণা’
জহিরুল হক-এর ‘রংবাজ’
আব্দুল জব্বার খান-এর ‘খেলাঘর’,
সি বি জামান-এর ‘ঝড়ের পাখি’,
রূপকার-এর ‘পলাতক’,
অশোক ঘোষ-এর ‘প্রিয়তমা’,
বাবুল চৌধুরীর ‘যাহা বলিব সত্যি বলিব’,
হাসমত-এর ‘এখানে আকাশ নীল’,
এস রহমান-এর ‘কে তুমি’
কামাল আহমেদ-এর ‘অনির্বাণ’,
আলমগীর কুমকুম-এর ‘আমার জন্মভূমি’,
কবীর আনোয়ার-এর ‘ স্লোগান’,
আজিজুর রহমান-এর ‘অতিথি’।

১৯৭৪
নারায়ণ ঘোষ মিতার ‘আলোর মিছিল’,
মাসুদ পারভেজ-এর ‘মাসুদ রানা’
রফিকুল বারী চৌধুরীর ‘ভুল যখন ভাঙলো’,
রুহুল আমিন-এর ‘বেঈমান’,
আজিজুর রহমান-এর ‘পরিচয়’,
মোস্তফা মেহমুদ-রে ‘অবাক পৃথিবী’,
খসরু নোমান-এর ‘দুই পর্ব’,
আলী কায়সার-এর ‘ভাইবোন’,
আজিজ আজহার-এর ‘চোখের জলে’।

১৯৭৫
মোহসিন-এর ‘বাদী থেকে বেগম’,
মোহাম্মদ সাঈদ-এর ‘সাধু শয়তান’,
দিলীপ সোম-এর ‘আলো তুমি আলেয়া’,
বাবুল চৌধুরীর ‘চাষীর মেয়ে’,
রহিম নেওয়াজ-এর ‘আপনজন’,
নাজমুল হুদা মিন্টুর ‘ডাক পিয়ন’, ‘অনেক প্রেম অনেক জ্বালা’
কামাল আহমেদ-এর ‘উপহার’,
রুমি কিসলুর ‘আঁধার পেরিয়ে’।

১৯৭৬
আজিম-এর ‘প্রতিনিধি’,
মুস্তাফিজ-এর ‘মায়ার বাঁধন’,
দিলীপ বিশ্বাস-এর ‘সমাধি’,
সুভাষ দত্তের ‘আকাঙ্ক্ষা,
জহিরুল হক-এর ‘কি যে করি’,
আজহার ও শেখ আতাউর রহমান-এর ‘স্মাগলার’,
আজিজুর রহমান-এর ‘শাপমুক্তি’,
আলমগীর কুমকুম-এর ‘গুণ্ডা’,
বাবুল চৌধুরীর ‘সেতু’,
মোহসিন-এর ‘আগুন’,
দিলীপ বিশ্বাস-এর ‘অনুরোধ’।

১৯৭৭
অশোক ঘোষ-এর ‘মতি মহল’,
আজিজুর রহমান-এর ‘অমর প্রেম’,
রাজ্জাক-এর ‘অনন্ত প্রেম’,
আব্দুল লতিফ বাচ্চুর ‘যাদুর বাঁশি’।

১৯৭৮
কামাল আহমেদ-এর ‘অঙ্গার’,
সাইফুল আজম কাশেম-এর ‘সোহাগ’,
আজিজুর রহমান-এর ‘অগ্নিশিখা’,
দিলীপ বিশ্বাস-এর ‘আসামী’,
আলমগীর কুমকুম-এর ‘কাপুরুষ’,
চাষী নজরুল ইসলাম-এর ‘বাজিমাত’,
নারায়ণ ঘোষ মিতার ‘অহংকার’,
আজিজুর রহমান-এর ‘অশিক্ষিত’।

১৯৭৯
কামাল আহমেদ-এর ‘অনুরাগ’,
মোহসিন-এর ‘আয়না’,
দিলীপ বিশ্বাস-এর ‘জিঞ্জির’,
আজিজুর রহমান-এর ‘মাটির ঘর’,
ইবনে মিজান-এর ‘নাগ নাগিনী’,
সাইফুল আজম কাশেম-এর ‘ঘর সংসার’,
আলমগীর কুমকুম-এর ‘সোনার চেয়ে দামী’,
আজিম-এর ‘বদলা’,
আজিজুর রহমান-এর ‘অভিমান’,
আলমগীর কুমকুম-এর ‘রাজবন্দী’,
সিরাজুল ইসলাম-এর ‘সোনার হরিণ’।

১৯৮০
আব্দুল্লাহ আল মামুন-এর ‘সখি তুমি কার’,
আজহারুল ইসলাম খানের ‘জোকার’,
আজিজুর রহমান-এর ‘ছুটির ঘণ্টা’,
আকবর কবীর পিন্টুর ‘গাঁয়ের ছেলে’,
নাজমুল হুদা মিন্টুর ‘সংঘর্ষ’,
সাইফুল আজম কাশেম-এর ‘বৌ রাণী’,
শেখ নজরুল ইসলামের ‘নাগিন’,
দিলীপ বিশ্বাস-এর ‘আনারকলি’,
খান আতাউর রহমান-এর ‘ডানপিটে ছেলে’

১৯৮১
দিলীপ বিশ্বাস-এর ‘অংশীদার’

১৯৮২
আলমগীর কুমকুম-এর ‘রাজার রাজা’,
কামাল আহমেদ-এর ‘পুত্রবধূ’,
রাজ্জাক-এর ‘মৌ চোর’,
আজিজুর রহমান-এর ‘মহানগর’,
হাফিজ উদ্দিন-এর ‘ঘরণী’,
কামাল আহমেদ-এর ‘ভাঙ্গাগড়া’,
ইবনে মিজান-এর ‘রাজ নর্তকী’,
আজহারুল ইসলাম খানের ‘সুখে থাকো’,
মোহসিন-এর ‘আল্লাহ মেহেরবান’,
খসরু নোমান-এর ‘রাজা সাহেব’,
সাইফুল আজম কাশেম-এর ‘সানাই’,
নূরুল হক বাচ্চুর ‘আশার আলো’,
জহিরুল হকের ‘কেউ কারো নয়’,
বাবুল-এর ‘চাঁদ সুরুজ’,
কামাল আহমেদ-এর ‘রজনীগন্ধা’,
ছটকু আহমেদ-এর ‘নাত বৌ’,
মোস্তফা আনোয়ার-এর ‘কাজল লতা’,
আমজাদ হোসেনের ‘দুই পয়সার আলতা’,
মহিউদ্দিন-এর ‘বড় ভালো লোক ছিল’।

১৯৮৩
রাজ্জাক-এর ‘বদনাম’,
আকবর কবীর পিন্টুর ‘কালো গোলাপ’,
কামাল আহমেদ-এর ‘লালু ভুলু’,
ইবনে মিজান-এর ‘লাইলী মজনু’,
হাফিজ উদ্দিন-এর ‘ঝুমুর’,
সুভাষ দত্তের ‘নাজমা’,
আজিম-এর ‘গাদ্দার’।

১৯৮৪
গাজী মাজহারুল আনোয়ার-এর ‘শাস্তি’,
শেখ নজরুল ইসলাম-এর ‘নতুন পৃথিবী’,
আজহারুল ইসলাম খানের ‘তালাক’,
রাজ্জাক-এর ‘অভিযান’,
টি আই চৌধুরীর ‘বউ কথা কও’,
আজিজুর রহমান-এর ‘মায়ের আঁচল’,
কামাল আহমেদ-এর ‘গৃহলক্ষ্মী’,
চাষী নজরুল ইসলামের ‘চন্দ্রনাথ’

১৯৮৫
দিলীপ সোম-এর ‘সোনা বৌ’,
রহিম নেওয়াজ-এর ‘অসাধারণ’,
গাজী মাজহারুল আনোয়ার-এর ‘চোর’,
রাজ্জাক-এর ‘সৎ ভাই’,
হাসমত-এর ‘ন্যায় বিচার’,
আলমগীর কুমকুম-এর ‘কাবিন’,
আব্দুস সামাদ খোকন-এর ‘ঝিনুক মালা’,
আব্দুল মতিন-এর ‘সোনালী আকাশ’।

১৯৮৬
কামাল আহমেদ-এর ‘আওয়ারা’,
হাফিজ উদ্দিন-এর ‘অভাগী’,
সুভাষ দত্ত-এর ‘ফুলশয্যা’,
আজহারুল ইসলাম খান-এর ‘তওবা’,
এম এ কাসেম-এর ‘দ্বীন দুনিয়া’,
চাষী নজরুল ইসলাম-এর ‘শুভদা’।

১৯৮৭
বুলবুল আহমেদ-এর ‘রাজলক্ষ্মী শ্রীকান্ত’,
মোস্তফা আনোয়ার-এর ‘সমর্পণ’,
গাজী মাজহারুল আনোয়ার-এর ‘সন্ধি’,
মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন-এর ‘সন্ধান’,
সুভাষ দত্ত-এর ‘স্বামী-স্ত্রী’।

১৯৮৮
শিবলি সাদিক-এর ‘নীতিবান’,
জহিরুল হক-এর ‘কুসুমপুরের কদম আলী’,
মইনুল হোসেন ‘যোগাযোগ’,
সফিকুর রহমান-এর ‘ঢাকা ৮৬’,
সুজাতা-এর ‘অর্পণ’,
মোস্তফা আনোয়ার-এর ‘আশ্রয়’,
কামাল আহমেদ-এর ‘অগ্নিকন্যা’,
গাজী মাজহারুল আনোয়ার-এর ‘স্বাক্ষর’,
সুভাষ দত্ত-এর ‘আগমন’,
জাকারিয়া হাবিব-এর ‘জামানা’

১৯৮৯
শেখ নজরুল ইসলাম-এর ‘বিধাতা’,
শিবলি সাদিক-এর ‘দুর্নাম’,
সত্য সাহা-এর ‘রাম রহিম জন’,
ফখরুল হাসান বৈরাগী-এর ‘সিদ্ধান্ত’,
চাষী নজরুল ইসলাম-এর ‘বিরহ ব্যাথা’,
শফিকুর রহমান-এর ‘রাজা মিস্ত্রি’,
সুভাষ দত্ত-এর ‘সহধর্মিণী’,
গাজী মাজহারুল আনোয়ার-এর ‘শর্ত’,
আজিম-এর ‘দেবর ভাবী’

                       Photo


১৯৯০
রাজ্জাক-এর জ্বিনের বাদশা’,
কামাল আহমেদ-এর ‘প্রায়শ্চিত্ত’,
গাজী মাজহারুল আনোয়ার-এর ‘স্বাধীন’,
শফিকুর রহমান-এর ‘মালামতি’

১৯৯১
শিবলি সাদিক-এর ‘সম্মান’,
মোহাম্মদ ইউসুফ-এর ‘আদরের বোন’,
ফখরুল হাসান বৈরাগী-এর ‘স্বপ্ন’।

১৯৯২
হাফিজ উদ্দিন-এর ‘দরবারে-এ-খাজা’,
মতিন রহমান-এর ‘অন্ধ বিশ্বাস’,
রাজ্জাক-এর ‘প্রফেসর’,
গাজী মাজহারুল আনোয়ার-এর ‘সমর’, ‘শ্রদ্ধা’,
মোহাম্মদ রফিকুজ্জামান-এর ‘জন্মদাতা’।

১৯৯৩
রাজ্জাক-এর ‘প্রেমশক্তি’,
জহিরুল হক-এর ‘জনি ওস্তাদ’,
আবদুল লতিফ বাচ্চু-এর ‘মিস্টার মাওলা’,
আবদুল্লাহ আল মামুন-এর ‘জনম দুঃখী’

১৯৯৪
জহিরুল হক-এর ‘সতীনের সংসার’,
ফারুক হোসেন-এর ‘সবার উপরে মা’

১৯৯৬
হাফিজ উদ্দিন-এর ‘বাজিগর’

১৯৯৭
শফি বিক্রমপুরী-এর ‘জজ সাহেব’,
রাজ্জাক-এর ‘উত্তম ফাল্গুনী’, ‘বাবা কেন চাকর’,
মোখলেছুর রহমান গোলাপ-এর ‘হৃদয়ের আয়না’।

১৯৯৮
মোখলেছুর রহমান গোলাপ-এর ‘শেষ প্রতিক্ষা’,
বাদল খন্দকার-এর ‘পৃথিবী তোমার আমার’।

১৯৯৯
শেখ দিদার-এর ‘হৃদয়ে লেখা নাম’,
গাজী মাজহারুল আনোয়ার-এর ‘রাগী’।

২০০০
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘বাবা কেন আসামি’,
আলমগীর কুমকুম-এর ‘জীবন চাবি’,
মোস্তাফিজুর রহমান বাবু-এর ‘জানের জান’,
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘কুখ্যাত খুনী’।

২০০১
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘কঠিন বাস্তব’,
দেলোয়ার জাহান ঝন্টু-এর ‘বাপ বেটির যুদ্ধ’,
রাজ্জাক-এর ‘মরণ নিয়ে খেলা’,
জিল্লুর রহমান-এর ‘ঈমানদার মাস্তান’,
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘ঢাকাইয়া মাস্তান’।

২০০২
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘মেজর সাহেব’,
মোস্তাফিজুর রহমান বাবু-এর ‘অশান্ত আগুন’,
এফ আই মানিক-এর ‘স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ’,
কাজী হায়াৎ-এর ‘সমাজকে বদলে দাও’,
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘আরমান’,
আবু মুসা দেবু-এর ‘মায়ের জেহাদ’,
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘আঘাত পাল্টা আঘাত’।

২০০৩
আরমান-এর ‘বাদশা কেন চাকর’,
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘টপ সম্রাট’,
মৌসুমী-এর ‘কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি’।

২০০৪
এফ আই মানিক-এর ‘বাপ বেটার লড়াই’,
ইস্পাহানি আরিফ-এর ‘আমাদের সন্তান’।

২০০৬
এফ আই মানিক-এর ‘পিতার আসন’, ‘কোটি টাকার কাবিন’

২০০৭
গাজী মাজহারুল আনোয়ার-এর ‘এই যে দুনিয়া
রাজ্জাক-এর ‘আমি বাঁচতে চাই’
নিরঞ্জন বিশ্বাস-এর ‘এরই নাম ভালবাসা’
মোস্তাফিজুর রহমান বাবু-এর ‘জীবনের চেয়ে দামী’।

২০০৮
রেজা লতিফ-এর ‘মা বাবার স্বপ্ন’
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘বাবার জন্য যুদ্ধ’,
এফ আই মানিক-এর ‘বিয়ের প্রস্তাব’,
পি.এ.কাজল-এর ‘এক টাকার বউ’,
রাজ্জাক-এর ‘কোটি টাকার ফকির’,
জাকির হোসেন রাজু-এর ‘মনে প্রাণে আছো তুমি’,
এফ আই মানিক-এর ‘মায়ের মত ভাবি’,
এস এ হক আলিক-এর ‘আকাশ ছোঁয়া ভালবাসা’,
এফ আই মানিক-এর ‘পিতা মাতার আমানত’,
আজিজুর রহমান-এর ‘জমিদার বাড়ীর মেয়ে’,
শাহাদত হোসেন লিটন-এর ‘তোমাকে বউ বানাবো’।   

২০০৯
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘তুমি আমার স্বামী’,
শাহাদত হোসেন লিটন-এর ‘মিয়া বাড়ীর চাকর’,
শাহীন সুমন-এর ‘বিয়ে বাড়ী’,
শেখ নজরুল ইসলাম-এর ‘মা বড় না বউ বড়’,
দেলোয়ার হোসেন ঋন্টু-এর ‘সবাইতো ভালবাসা চায়’,
রেজা লতিফ-এর ‘ভালবাসার শেষ নেই’,
রাজ্জাক-এর ‘মন দিয়েছি তোমাকে’,
পি.এ.কাজল-এর ‘পিরিতির আগুন জ্বালা দ্বিগুণ’।

২০১০
পিএ কাজল-এর ‘চাচু আমার চাচ্চু’,
মনতাজুর রহমান আকবর-এর ‘রিকশাওয়ালার ছেলে’,
শাহাদাত হোসেন লিটন-এর ‘বাপ বড় না শ্বশুর বড়’
শাহীন সুমন-এর ‘পাঁচ টাকার প্রেম’।  

২০১১
গাজী মাজহারুল আনোয়ারের ‘হৃদয় ভাঙ্গা ঢেউ’

২০১২
শামসুদ্দিন চৌধুরীর ‘ভালোবাসার রঙ’

২০১৩
এফ আই মানিকের ‘জজ ব্যারিস্টার’
শাহিন-সুমনের ‘অন্যরকম ভালোবাসা’
রাজ্জাকের ‘আয়না কাহিনী’
সামাদ শিকদারের ‘পূর্ণদৈর্ঘ প্রেম কাহিনী’
অনন্ত জলিল ‘নিঃস্বার্থ ভালোবাসা’

২০১৪
নঈম ইমতিয়াজের ‘এক কাপ চা’
সামিয়া জামানের ‘আকাশ কত দূর’

২০১৫
বাপ্পারাজের ‘কার্তুজ’

লেখক: পিএইচডি গবেষক, অর্থনীতি বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, সাভার, ঢাকা ।
ইমেইল: liplisa7@gmail.com


ঢাকা, সেপ্টেম্বর ১২(বিডিলাইভ২৪)// কে এইচ
 
        print



মোবাইল থেকে অ্যাপস ডাউনলোড করুন
android iphone windows




bdlive24.com © 2010-2014
Powered By: NRB Investment Ltd.