সর্বশেষ
বুধবার ৪ঠা আশ্বিন ১৪২৫ | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

পথশিশুদের মা মারিয়ার পাশে বাংলাদেশ কমিউনিটি অব পোর্তো

সোমবার, অক্টোবর ৯, ২০১৭

1316459273_1507522236.jpg
প্রবাসী ডেস্ক :
বাংলাদেশের সুবিধাবঞ্চিত পথ শিশুদের নিয়ে কাজ করে পর্তুগালের বর্ষসেরা জি কিউ এ্যাওয়ার্ড জয়ী নারী, পর্তুগালের এভারেস্ট জয়ী ও ব্রিটিশ চ্যানেল পাড়ি দেওয়া প্রথম নারী মারিয়া কনসেইসাও'র সম্মানে ফান্ড রাইজিং নৈশ ভোজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশের পথশিশুদের সহায়তার জন্য বাংলাদেশ কমিউনিটি অব পোর্তোর আয়োজনে পোর্তোতে পর্তুগাল-বাংলাদেশ সলিডারিটি ডিনার শিরোনাম ছিল অনুষ্ঠানে।

শনিবার স্থানীয় সময় রাত ৯টায় পোর্তোর জাপানিজ সুসি টাপেন ইয়াকি রেস্টুরেন্টে ইভেন্টে প্রধান অথিতি ছিলেন পোর্তোর স্থানীয় (জইন্তা ফগ্রেসিয়া) সিটি কর্পোরেশন এর প্রেসিডেন্ট এন্তোনিও ফনসেকা। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের পথশিশুদের সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত মারিয়া ক্রিস্টিনা ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা বাংলাদেশের পথ শিশুদের মা মারিয়া কনসেইসাও।

বাংলাদেশ কমিউনিটি অব পোর্তোর সভাপতি শাহ অালম কাজলের পরিচালনায় ফান্ড রাইজিং ইভেন্টের শুরুতে আগত অতিথিদের ফুল ও ক্রেস্ট দিয়ে বরণ করে নেন পোর্তো বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ। এরপর পোর্তোর বাংলাদেশি ব্যবসায়ী অাব্দুল আলিম ফাউন্ডেশনের বাচ্চাদের সহায়তায় ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা মারিয়া কনসেইসাও এর হাতে এক হাজার ইউরোর চেক প্রদান করেন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে আগত সকল বাংলাদেশি ফাউন্ডেশনের সহায়তায় আর্থিক অনুদান প্রদান করেন।

লিসবনের সিন্ট্রা শহরে জন্ম নেওয়া মারিয়া জুলাই ২০০৫ সালে মারিয়া ক্রিস্টিনা ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করে ঢাকার দক্ষিণখানের গাওয়াইরে একটি স্কুল ও ক্লিনিক দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে মারিয়া ক্রিস্টিনা ফাউন্ডেশনের সূচনা। এর নাম দেয়া হয় ‘ঢাকা প্রজেক্ট’। বর্তমানে ঢাকার বস্তির ১৭২ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের শিক্ষাসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে ফাউন্ডেশনটি। এ পর্যন্ত ৬টি গিনেস বুক রেকর্ডস নিজের দখলে নিয়েছেন মারিয়া। এছাড়াও ২০০৯ থেকে এ পর্যন্ত ৭৭৭টি প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন। এর মূলে রয়েছে বাংলাদেশের পথশিশুদের খাদ্য, বাসস্থান ও শিক্ষার জন্য অর্থের জোগান নিশ্চিত করা।

ফান্ড রাইজিং ডিনারের মাধ্যমে অর্থের যোগান দিতে এমন একটি আয়োজন করায় বাংলাদেশ কমিউনিটি অব পোর্তো'র প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মারিয়া কনসেইসাও বলেন, পর্তুগালে বাংলাদেশের কমিউনিটির সঙ্গে এক হতে পারলে আমার ভালো লাগে। আমি দীর্ঘদিন বাংলাদেশ নিয়ে কাজ করছি, এদেশের মানুষেরা অন্য সবার মত না। এরা মানুষকে সহজে আপন করে নেয়। আমি পর্তুগালের মেয়ে হলেও আমার সব অর্জনে পর্তুগালের পাশাপাশি বাংলাদেশকেও তুলে ধরেছি। যেকোনো প্রতিযোগিতায় আমি দুটো পতাকা নিয়ে যাই। একটি পর্তুগালের অন্যটি বাংলাদেশের। সুযোগ পেলে আমি বাংলাদেশে নিজের দ্বৈত নাগরিকত্ব পাবার চেষ্টা করবো।

এছাড়াও উক্ত সলিডারিটি ডিনার উপস্থিত ছিলেন, পোর্তো বাংলাদেশ কমিউনিটির মামুন হাজরি, মোশারফ হোসেন কিরণ, আব্দুল আলিম, তাজুল ইসলাম, আবুল কালাম আজাদ, মো. আজাদ, মো. বিল্লাল, আহমেদ মুর্শিদ, ইকবাল হোসেন, আবুল কাসেম অপু, বিল্লাল হোসেন প্রমুখ।

ঢাকা, সোমবার, অক্টোবর ৯, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // জে এইচ এই লেখাটি ৮১ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন