সর্বশেষ
মঙ্গলবার ৯ই মাঘ ১৪২৪ | ২৩ জানুয়ারি ২০১৮

'নাদিমের গল্প ও সীতাকুন্ডের ইউএনও'র শিক্ষা-প্রীতি'

মঙ্গলবার ১০ই অক্টোবর ২০১৭

225337935_1507643690.jpg
মোঃ ইমরান হোসেন, সীতাকুন্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি :
নাম নাদিম আহমেদ। এখন শৈশব পেরিয়ে সবেমাত্র কৈশোরে পা রেখেছে। বাড়ি হালুয়াঘাট, ময়মনসিংহ। পরিবার বলতে বাবা, সৎ মা, ভাই-বোন। জন্মের পরপরই মাকে হারিয়েছে। আজ থেকে বছর চারেক আগে গাজীপুরের শ্রীপুরের এক হোটেলে কাজ করত। যে বয়সে তার হাতে বই-কলম থাকার কথা, দারিদ্র্যের নির্মম কষাঘাতে তার হাতে ছিল এঁটো মোছার ন্যাকড়া। হোটেলে কাজ করা অন্য দশজনের মত হতে পারত নাদিমের গল্প। গল্পটি একশো আশি ডিগ্রী বেঁকে গেছে শ্রীপুরের  তৎকালীন সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজমুল ইসলাম ভুইয়ার কারণে।

নাদিম এখন সীতাকুণ্ডের উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব নাজমুল ইসলাম ভুইয়ার বাসভবনে কাজ করে পাশাপাশি চালিয়ে যাচ্ছে পড়ালেখাও। তাকে পড়ানোর জন্য মাসে আড়াই হাজার টাকা দিয়ে টিউটর রাখা হয়েছে। পড়ার প্রতি তার প্রচণ্ড আগ্রহ।

পড়ার প্রতি আগ্রহ দেখে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিক্ষা অফিস এবং পার্শ্ববর্তী বিদ্যালয় থেকে বিভিন্ন  শিখন-সামগ্রী সরবরাহ করে তার পড়ার-সলতে আরো জ্বালিয়ে দেন। সে বাসায় বসে অ আ ই ঈ কিংবা এ বি সি ডি শিখে ফেলে। এভাবে প্রথম শ্রেণি শেষ করে ফেলে। দ্বিতীয় শ্রেণির বই পড়া শুরু করে দেয়।এখন সে পড়তে জানে, বেশ সুন্দর হাতে লিখতে জানে। তার আগ্রহ দেখে  উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিভূত হয়ে পড়েন। তাকে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় শিক্ষিত করার উদ্যোগ নেন তিনি।

এই উদ্যোগের প্রেক্ষিতে নাদিমকে আনুষ্ঠানিক ভাবে উপজেলা সদর আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করানো হয়েছে এবং বিদ্যালয়ের ভর্তি ফরমে নাদিমের অভিভাবকের স্বাক্ষরটা করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহধর্মিণী।

একটা শিক্ষা-প্রীতির দৃষ্টান্ত সৃষ্টির জন্য সীতাকুণ্ড উপজেলা শিক্ষা অফিসের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এবং সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছে সীতাকুন্ড উপজেলা শিক্ষা অফিস।

অনেক খুশি আর হাসোজ্জল মুখ নিয়ে কথা বলে প্রতিবেদকের সাথে, সে বলে, আমি অভিভাবকহীন হয়েও সেটা বুঝতে পারিনা।  কারণ নাজমুল ইসলাম ভুইয়া স্যার আমাকে যেভাবে লেখাপড়াসহ আনুসাঙ্গিক কাজে সহযোগীতা করে যাচ্ছেন তাতে আমি অনেক খুশি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল ইসলাম ভূঁইয়া জানান, তার মেধা দেখে আমি তাকে পড়ালেখা করানোর জন্য উদ্যোগী হয় এবং আমি তার পড়ালেখা সম্পূর্ন খরচ বহন করে তাকে এগিয়ে যেতে সহায়তা করব।


ঢাকা, মঙ্গলবার ১০ই অক্টোবর ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // কে এইচ এই লেখাটি 0 বার পড়া হয়েছে