সর্বশেষ
মঙ্গলবার ২রা শ্রাবণ ১৪২৫ | ১৭ জুলাই ২০১৮

বাকৃবিতে পশুপালন শিক্ষার্থীদের স্বতন্ত্র কর্মসংস্থানের দাবি

বুধবার, অক্টোবর ১১, ২০১৭

2065568480_1507721762.jpg
বাকৃবি প্রতিনিধি :
সরকারি কর্ম কমিশনে (বিসিএস) উপজেলা 'প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা' পদটি শুধু পশুপালন গ্রাজুয়েটদের জন্য নির্ধারিত করে নতুন অর্গানোগ্রাম বাস্তবায়ন করার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) পশুপালন অনুষদ ছাত্র সমিতি।

আজ বুধবার দুপুর ১২ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুপালন অনুষদীয় সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান ছাত্র সমিতির সহ-সভাপতি ইশতিয়াক আহম্মদ পিহান।

এসময় পশুপালন অনুষদের ডীন ও ছাত্র সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. আশরাফ আলীসহ অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ ও ছাত্র সমিতির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সম্মেলনে জানানো হয়, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের প্রস্তাবিত অর্গানোগ্রাম অনুযায়ী প্রতিটি উপজেলায় 'প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা' হিসেবে ১জন পশুপালন গ্রাজুয়েট এবং পশু চিকিৎসক হিসেবে ৭ জন ডক্টর অব ভেটেরিনারি মেডিসিন (ডিভিএম) গ্র্যাজুয়েটদের নিয়োগ দেওয়ার সুপারিশ করা হয়।

কিন্তু ডিভিএম ডিগ্রীধারীরাও উপজেলা 'প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা' পদে কাজ করার দাবি করায় অর্গানোগ্রাম বাস্তবায়নে বিলম্ব হচ্ছে বলে দাবি করেন তারা।

দেশে এখনো প্রায় ৭৫ লাখ টন দুধ ও ১১ লাখ টন মাংস এবং ৫৫.৫ কোটি ডিমের ঘাটতি রয়েছে। স্বতন্ত্র কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেশকে প্রাণিসম্পদ তথা দুধ, ডিম ও মাংসজাত খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে প্রয়োজন পশুপালন গ্রাজুয়েটদের। তাই উপজেলা এই পদটি শুধু পশুপালন গ্র্যাজুয়েটদের দিয়ে অর্গানোগ্রাম দ্রুত বাস্তবায়নের জন্যে দাবি জানান তারা।

ঢাকা, বুধবার, অক্টোবর ১১, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // আর এ এই লেখাটি বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন