bdlive24

আর্জেন্টিনার ‘গোপন’ নায়ক ডি মারিয়া

বুধবার অক্টোবর ১১, ২০১৭, ০৭:৫৫ পিএম.


আর্জেন্টিনার ‘গোপন’ নায়ক ডি মারিয়া

শুভ শুভ্র: মেসি অসাধ্য সাধন করেছেন। নিজের জাত চিনিয়েছেন। আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপে তুলেছেন। ফুটবল জাদুকরের এমন আলো কাড়ার দিনে যিনি অন্তরালে পড়ে গেছেন তার নাম ডি মারিয়া।

ম্যারাডোনা আর মেসির সাফল্যের পরিসংখ্যান করতে গিয়ে একটা বিশ্বকাপই শুধু পার্থক্য গড়ে দেয়। সেই পার্থক্যের কথা লিখতে গেলে সবার আগে আক্ষেপ হয়ে ঝরে মেসির দুর্ভাগ্যের গল্প। ম্যারাডোনা সতীর্থ হিসেবে যাদের পেয়েছিলেন, মেসি তাদের মতো তেমন কাউকে পাননি।

যেদিন ম্যারাডোনা খেলতে পারতেন না, অন্যরা পুষিয়ে দিতেন। কিন্তু মেসির সেই কপাল নেই। নিজে আটকে গেলে দলও আটকে যায়। গতবারের বিশ্বকাপ ফাইনালে ওই ডি মারিয়া থাকলে গল্পটা অন্যরকম হতো। গোটা টুর্নামেন্টে মেসিকে সঙ্গ দিয়ে যাওয়া মারিয়া শেষ ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়েন। আর্জেন্টিনাও জার্মানির কাছে হেরে যায়।

ইকুয়েডরের বিপক্ষে মেসি যে তিন গোল করেছেন তার দুটিতে ডি মারিয়ার প্রত্যক্ষ অবদান। বিমুগ্ধ ড্রিবল, দুষ্টু ক্রস আর ক্লান্তিহীন ক্রীড়া শৈলী দিয়ে এক নাগাড়ে মেসির সঙ্গে মাঠ দাপিয়েছেন।

বেনোদেত্তিকে সামনে রেখে ডি মারিয়া এবং মেসি এদিন নিচে নেমে খেলেন। বাঁ দিক দিয়ে দুজনের দারুণ বোঝাপড়ার কোনও উত্তর ছিল না ইকুয়েডরের কাছে।

আর্জেন্টিনা এদিন ৪০ সেকেন্ডের মাথায় পিছিয়ে পড়ে। তারপর মাথা ঠাণ্ডা রেখে পাসিং ফুটবলের নিয়ন্ত্রণ নিতে শুরু করেন ডি-মারিয়া।

১২তম মিনিটে বক্সের ঠিক সামনে থেকে বল ধরে ডি মারিয়াকে ছাড়েন ফুটবল জাদুকর। মারিয়া তিন পা এগিয়ে কাটব্যাক করে ফের মেসিকে বল দেন। দুই পাশে দুই ডিফেন্ডার। সামনে গোলরক্ষক। বল ডান পায়ের পজিশনে। মেসি ব্যবহার করলেন তার বাম পা। টোকা দিয়ে খুঁজে নিলেন জাল।

এরপর ২০তম মিনিটে বক্সের অনেকটা বাইরে থেকে মেসিকে বল দেন ডি মারিয়া। ভিড়ের ভেতর থেকে পাশ কাটিয়ে মেসি আগে উঠে যান। সামনে গোলরক্ষক। পাশে তিনজন। এবারও সেই বাঁ পা। প্রথম পোস্ট দিয়ে জোরালো শট। একটু তুলে মারেন। গোলরক্ষক মাটিকামড়ানো পাস ভেবে ডাইভ দিতে চেয়েছিলেন। বল জালে জড়ায় তার মাথার উপর দিয়ে।


ঢাকা, অক্টোবর ১১(বিডিলাইভ২৪)// এ এম
 
        print



মোবাইল থেকে অ্যাপস ডাউনলোড করুন
android iphone windows




bdlive24.com © 2010-2014
Powered By: NRB Investment Ltd.