সর্বশেষ
সোমবার ১০ই বৈশাখ ১৪২৫ | ২৩ এপ্রিল ২০১৮

বাংলাদেশে টেকসই নগরায়নের ওপর গুরুত্ব আরোপ বিশ্বব্যাংকের

রবিবার, অক্টোবর ২৯, ২০১৭

1346127090_1509294430.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংকের আবাসিক পরিচালক কিমিয়াও ফ্যান বলেছেন, ২০২১ সাল নাগাদ উচ্চ মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হতে হলে বাংলাদেশকে তার টেকসই নগরায়ন অবশ্যই ধরে রাখতে হবে।

গতকাল এখানে বাংলাদেশে নগরগুলোর সমস্যা ও উত্তরণের উপায় বিষযক একটি সম্মেলনে বক্তৃতাকালে ফ্যান বলেন, ‘বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে আমরা এ দেশের নগরগুলোর বাসযোগ্যতা, প্রতিযোগিতামূলক ও টেকসই অবস্থান উন্নয়নে কাজ করার প্রত্যাশা করি।’

দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে তিন শতাধিক মেয়র, অন্যান্য দেশের বেশ ক’জন মেয়র, নগর পরিকল্পনাবিদ ও পেশাজীবীরা এ সম্মেলনে অংশ নেন।

ফ্যান বলেন, ‘নগর হলো প্রবৃদ্ধির ইঞ্জিন, কিন্তু দ্রুত, অপরিকল্পিত ও নগরায়ন নগরগুলোর পূর্ণ সম্ভাবনা বাস্তবায়নে বাধা দেয়।
সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীরা বলেন, বাংলাদেশে নগর পরিকল্পনা আরো অধিকতর টেকসইভাবে করা দরকার যাতে দেশের দ্রুত নগরায়ন হওয়া অংশগুলোতে সুন্দরভাবে বসবাসের উপযোগী প্রয়োজনীয় অবকাঠামো থাকে।

বাংরাদেশে দ্রুত ও অপরিকল্পিত নগরায়নের কারণে নগরগুলোর বাসযোগ্যতা প্রভাবিত হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় পাঁচ কোটি ৪০ লাখ লোক নগরে বসবাস করে এবং আগামী ৩৫ বছরে এ সংখ্যা দ্বিগুণ হবে। বর্তমানে নগরবাসীদের এক পঞ্চমাংশ দারিদ্র্যের মধ্যে বসবাস করে থাকেন।

বিশ্বব্যাংকের হিসেব মতে, বাংলাদেশের অধিকাংশ সিটি ও মিউনিসিপালিটি অবকাঠামো অপর্যাপ্ত এবং সেবাও নি¤œ মানের। দেশের স্থানীয় পর্যায়ে অবকাঠামো খাতে ব্যয় বাড়ানো দরকার। বাংলাদেশে মোট সরকারি ব্যয়ের তুলনায় স্থানীয় পর্যায়ে ব্যয়ের পরিমাণ প্রায় তিন শতাংশ, যা বৈশ্বিকভাবে নিম্নতম ব্যয়ের অন্যতম।

বিশ্বব্যাংকের মতে বাংলাদেশে বাসযোগতার নিরিখে নগরগুলোর কর্মকান্ড প্রত্যাশার চেয়ে নিম্নমানের। দ্রুত নগরায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সম্মেলন নগরোন্নয়নে একটি সেন্টার ফর এক্সিলেন্স চালু করেছে। এটি নগরগুলোর বাসযোগ্যতা উন্নয়নের লক্ষ্যে জ্ঞান-বিনিময় করবে এবং মিউনিসিপালিটিগুলোর সক্ষমতা বাড়াবে।

বাংলাদেশ মিউনিসিপাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ আবদুল বাতেনের সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে বক্তৃতা করেন।

মিউনিসিপাল অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানারস, ইনস্টিটিউট অব আর্কিটেক্টস, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউশান অব ইঞ্জিনিয়ারস, বাংলাদেশ-এর সঙ্গে পার্টনারশিপ এবং সুইস এজেন্সি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কো-অপারেশনের আর্থিক সহযোগিতায় বিশ্বব্যাংক এ সম্মেলনের আয়োজন করে।

ঢাকা, রবিবার, অক্টোবর ২৯, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // জেড ইউ এই লেখাটি ২৫ বার পড়া হয়েছে