সর্বশেষ
শুক্রবার ৫ই মাঘ ১৪২৪ | ১৯ জানুয়ারি ২০১৮

অভিনব সব কৌশলে নিধন হবে মশা

রবিবার ৫ই নভেম্বর ২০১৭

780766795_1509879304.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
মশার কামড়ে অতিষ্ঠ হয়ে অনেকেই নানান ধরনের কৌশল গ্রহণ করে থাকেন। মালয়েশিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয় মশা মারার অভিনব ফাঁদ তৈরি করেছে। আবিষ্কৃত এ ফাঁদটি দেখে প্রথমে মনে হতে পারে, পার্কে সৌর বিদ্যুতের সাহায্যে কোনো বাতি জ্বলছে। আসলে ওই আলোগুলো যখন জ্বলে, তখন তা থেকে নির্গত হয় কম ঘনত্বের কার্বন ডাই-অক্সাইড। আর সেটাই ওই আলো-ফাঁদের দিকে টেনে আনে মশাদের। আলোর নীচে রাখা জালে মশা টপাটপ পড়বে আর মরবে।

মালয়েশিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সৌর বিদ্যুৎ নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মালয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই প্রযুক্তি এতদিন পরীক্ষামূলক স্তরে ছিল। কিন্তু পরীক্ষায় তা পাশ করার পরে এখন সেই প্রযুক্তিকে ব্যবহার করছে তারা।

মানুষের নিঃশ্বাসের সঙ্গে নির্গত হাল্কা কার্বন ডাই অক্সাই়ড এবং ঘামের সঙ্গে বেরিয়ে আসা ল্যাকটিক অ্যাসিড মশাদের আকর্ষণ করে। ওই গন্ধই মশাদের টেনে আনে মানুষের দিকে। মশার সেই চরিত্রকে কাজে লাগিয়ে মালয়েশিয়ায় তৈরি হয়েছে এই নতুন ধরনের সৌর আলো। তবে ল্যাকটিক অ্যাসিড নয়। এক্ষেত্রে মশাদের টোপ হাল্কা ঘনত্বের কার্বন ডাই অক্সাইড।

কীভাবে তৈরি হয় ওই হাল্কা ঘনত্বের কার্বন ডাই-অক্সাইড? মালয় বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা দেখেছেন, আলোর অতি বেগুনি রশ্মির সঙ্গে টাইটেনিয়াম ডাই-অক্সাইডের বিক্রিয়ায় মৃদু কার্বন ডাই-অক্সাইড তৈরি হচ্ছে। তাই আলো জ্বলার কিছুক্ষণের মধ্যেই মশারা ওই আলোর দিকে ছুটে আসছে।

বিজ্ঞানীরা নতুন আরেক ধরনের কীটনাশক তৈরি করেছেন যেটি মিষ্টির প্রতি মশাদের আকর্ষণকে ব্যবহার করবে এবং যেটি খাওয়ার পরে মশারা মনে করবে তারা মিষ্টি খাচ্ছে। এই ওষুধ এমন রাসায়নিক রয়েছে যা কৃত্রিমভাবে মিষ্টির গন্ধ তৈরি করবে যাতে মশারা আকৃষ্ট হয়।

ম্যালেরিয়ার কবলিত আফ্রিকার দেশ তানজানিয়ায় এই কীটনাশকের পরীক্ষায় দেখা গেছে এতে মশা প্রায় শতভাগ নির্মূল হয়ে যায়। ভেকট্র্যাক্স নামের এই কীটনাশক ম্যালেরিয়া ছাড়াও জিকা ভাইরাস ও অন্যান্য মশাবাহিত রোগের প্রকোপ ঠেকাতে কার্যকরী হবে।

কীটনাশক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এজেনর মাফ্রা-নেটো কোম্পানি বলছেন, ওষুধটি তারা মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখবে এবং জাতিসংঘ ও অন্যান্য বেসরকারি ত্রাণ সংস্থার মাধ্যমে বিতরণ করা হবে।




ঢাকা, রবিবার ৫ই নভেম্বর ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি 6 বার পড়া হয়েছে