সর্বশেষ
শুক্রবার ৫ই মাঘ ১৪২৪ | ১৯ জানুয়ারি ২০১৮

বিচারপতি জয়নুলের বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধান চলবে: হাইকোর্ট

মঙ্গলবার ১৪ই নভেম্বর ২০১৭

1777182677_1510664644.jpg
বিডিলাইভ রিপোর্ট :
অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে বিচারপতি মো. জয়নুল আবেদীনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অনুসন্ধান চলবে বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আজ মঙ্গলবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রায় দেন।

একই সঙ্গে সাবেক এই বিচারপতির বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধান বন্ধে দুদককে সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া চিঠি অবৈধ ঘোষণা করে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। এছাড়া সুপ্রিম কোর্টের কোনো বিচারপতির বিষয়ে দুদক যদি তদন্ত করতে চায় তাহলে সতর্ক হয়ে করতে হবে বলে পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এসময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। অ্যামিকাস কিউরি ছিলেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন।

এর আগে গত ৯ অক্টোবর আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি মো. জয়নুল আবেদীনের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান বন্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া চিঠি কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়। এরপর গত ১৯ অক্টোবর রুলের ওপর প্রথম শুনানি হয়।

দুদককে গত ২৮ মার্চ সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া চিঠিটি হাইকোর্টের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট বদিউজ্জামান তরফদার। এরপর আদালত স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রুল জারি করেন। রুলে ওই চিঠি কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চাওয়া হয়। সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল, দুদক চেয়ারম্যান, আপিল বিভাগের অতিরিক্ত রেজিস্ট্রার অরুণাভ চক্রবর্তী ও বিচারপতি জয়নুল আবেদীনকে ১০ দিনের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়।
 
সাবেক বিচারপতি জয়নুল আবেদীনের বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ২০১০ সালের ১৮ জুলাই সম্পদের হিসাব চেয়ে নোটিশ দেয় দুদক। দুদক সূত্র জানায়, জয়নুল আবেদীনের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের একটি অভিযোগের প্রাথমিক তদন্তে আয়ের সঙ্গে অর্জিত সম্পদ সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় বলে তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে।

বিচারপতি জয়নুল আবেদীনের বিষয়ে অনুসন্ধানের স্বার্থে চলতি বছরের ২ মার্চ সুপ্রিম কোর্টের কাছে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চেয়ে চিঠি দেয় দুদক।

ঢাকা, মঙ্গলবার ১৪ই নভেম্বর ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // এস এইচ এই লেখাটি 0 বার পড়া হয়েছে