bdlive24

যে কথাগুলো ইন্টারভিউয়ে বললে চাকরি হবেনা

বৃহস্পতিবার অক্টোবর ০১, ২০১৫, ০২:২৭ এএম.


যে কথাগুলো ইন্টারভিউয়ে বললে চাকরি হবেনা

বিডিলাইভ ডেস্ক: চাকরি পাওয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো ইন্টারভিউ। কোন সংস্থায় আপনার চাকরি হবে কি না তা অনেকটাই নির্ভর করে আপনার দেয়া সাক্ষাৎকারের উপর। প্রায়ই দেখা যায়, ভালো রেজাল্ট, ভালো ব্যক্তিত্ব থাকা সত্ত্বেও ইন্টারভিউতেই বার বার বাদ হয়ে যাচ্ছেন অনেকে। আসলে ইন্টারভিউ চলাকালীন এমন কিছু কথা রয়েছে, যেটা বললে যিনি ইন্টারভিউ নিচ্ছেন তাঁদের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ে। ফলে অনেক সময় হওয়া চাকরি হাত ফস্কে বেরিয়ে যায়। জেনে নিন ইন্টারভিউ-র সময় কোন কোন কথা উচ্চারণ করা নিষিদ্ধ।

১)ভুল করে কিছু বলা: এই ভুলগুলো নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হলেও, মানুষ প্রায়ই এগুলো করে থাকে। মানুষ দূর্ঘটনাক্রমে ভুল জিনিস বা ভুল ধারণা করে থাকে, কোন কোন ক্ষেত্রে কাউকে ছোট দেখানো অথবা হেয় প্রতিপন্ন করার মতো ভুলগুলো করে থাকে। এই ধরনের যেকোন একটি ভুল আপনাকে নিক্ষেপ করতে পারে ইন্টারভিউ এর বাইরে। সুতরাং যথাসম্ভব বুদ্ধিমত্তার এবং বিবেচনার সাথে সাথে আপনি যা বলছেন তার প্রতি মনোযোগ দিতে হবে।

২) কোনো ব্যক্তিগত প্রশ্ন করবেন না : এটা ধরে নিতে হবে, যিনি আপনার ইন্টারভিউ নিচ্ছেন তাঁকে আপনি চেনেন না। চাকরি দেওয়ার আগে আপনার সম্পর্কে নানা তথ্য জানতেই তিনি আপনাকে প্রশ্ন করবেন সেটাই স্বাভাবিক। কিছু প্রশ্ন হয়তো খানিকটা ব্যক্তিগত হতে পারে। তাই বলে আপনি সরাসরি ইন্টারভিউয়ারকে এটা কখনই বলতে পারেন না যে আপনি কোনো ব্যক্তিগত প্রশ্নের উত্তর দেবেন না। এটা বলার অর্থ, প্রথমেই আপনার বলা কথার ওপর অবিশ্বাস তৈরি করা। এটাও হতে পারে, স্রেফ সন্দেহের বশেই আপনার চাকরি 'নট' হয়ে যেতে পারে।

৩) স্যালারি প্যাকেজ কত হবে : এটা বলার অর্থ, আপনার কাজের ব্যাপারে কোনো আগ্রহ নেই, শুধু স্যালারি নিয়েই ভাবছেন। যদি অন্য কোথাও বেশি মাইনে পান চলে যেতে পারেন। যেকোনো সংস্থা চায়, যাঁকে চাকরি দেওয়া হচ্ছে তিনি যেন দীর্ঘদিন কাজ করেন। এটা হতে পারে আপনি চাকরি পাল্টাতে ভীষণ ব্যগ্র। বর্তমান সংস্থার কাজ করতে কোনো উৎসাহ পাচ্ছেন না, এমনকী এ বছর হয়তো আপনার বেতনও তেমন একটা বাড়েনি। এ সব ব্যাপার মাথায় রেখেও বুঝতে হবে, ইন্টারভিউতে কখনও স্যালারি প্যাকেজ নিয়ে আপনি কথা বলবেন না। যিনি ইন্টারভিউ নিচ্ছেন, তাঁকে প্রথমে কথাটি বলতে দিন। জিজ্ঞাসা করলে তার পর আপনি বলতে পারেন। কিন্তু তার আগে নয়।

৪) আমায় এই কলটা রিসিভ করতেই হবে : ইন্টারভিউ-র সময় যত দরকারি কল হোক রিসিভ করবেন না। যদি তেমন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তাকে, তবে আগে থেকে ফোন করে ইন্টারভিউয়ারকে জানান যে আজ আপনার আসতে অসুবিধা হবে। কিন্তু ইন্টারভিউ দিতে আসার পর সেখানে এমন ভুল করবেন না। আপনি তাঁকে 'সরি' বলে কল রিসিভ করতে পারেন ঠিকই, কিন্তু এটা আপনার ওপর খারাপ ধারণার জন্ম দেবে। এটা আপনাকে মাথায় রাখতে হবে, ইন্টারভিউয়ার তাঁর সময় থেকে সময় বার করে আপনাকে দিয়েছেন। এটা করা মানে তাঁকে সরাসরি অপমান করা।

৫) একটু তাড়াতাড়ি করবেন, আমার আরও একটা ইন্টারভিউ আছে : আপনার চাকরির যতই দরকার থাক, কোনো ইন্টারভিউতে ঢুকে এটা বলার অর্থ সেখানেই আপনার চাকরি নাকচ হয়ে গেল। যেকোনো ইন্টারভিউ নিজের ১০০ শতাংশ দেওয়ার চেষ্টা করুন। একটি জায়গায় বসে অন্য জায়গার কথা ভাবলে 'শ্যাম-কুল' দুই হারাতে পারেন। এটা বলার আরও একটা অর্থ হবে, আপনি এটা বুঝিয়ে দেবেন আপনার ওই সংস্থায় চাকরি করার তেমন একটা আগ্রহ নেই। এটা বুঝলে আপনাকে তারা চাকরি কেন দেবে?

৬) চাকরিটা কি আমি পেয়েছি : কথাটি বলার আগে সাবধান হোন। ইন্টারভিউতে শুধুমাত্র আপনি একাই আসেননি। আপনার আগেও কেউ এসেছেন, হয়তো আপনার পরেও আসবেন। আপনার ইন্টারভিউ হওয়ার পরই যদি আপনি ইন্টারভিউয়ারকে এটা জিজ্ঞাসা করেন চাকরিটা হল কি না, সেটা ঠিক নয়। হ্যাঁ বা না শুনতে গিয়ে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে 'না'ই শুনতে হতে পারে। তাই পজিটিভ নোটে ইন্টারভিউ শেষ করুন। যিনি ইন্টারভিউ নিয়েছেন তাঁকে একটু সময় দিন।


ঢাকা, অক্টোবর ০১(বিডিলাইভ২৪)// অা হ
 
        print



মোবাইল থেকে অ্যাপস ডাউনলোড করুন
android iphone windows




bdlive24.com © 2010-2014
Powered By: NRB Investment Ltd.