bdlive24

ক্রিকেট বোর্ডের কাছে আঁকুতি জানালেন শেবাগ!

রবিবার নভেম্বর ০১, ২০১৫, ০৬:৫২ পিএম.


ক্রিকেট বোর্ডের কাছে আঁকুতি জানালেন শেবাগ!

বিডিলাইভ ডেস্ক: আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছেড়ে দিয়েছেন সাবেক ভারতীয় ওপেনার বীরেন্দ্রর শেবাগ। ক্যারিয়ারে দুইবার করেছেন ট্রিপল সেঞ্চুরি। এছাড়া দলকে জেতানোর মতো ইনিংস আছে অসংখ্য। কিন্তু, একজন খেলোয়াড় হিসেবে কিছু আশা তো থেকেই যায়।

ক্রিকেট ক্যারিয়ারে উজ্জ্বলতা ছড়ানো শেবাগ একটা বিদায়ী ম্যাচ খেলতে চান। তাও আবার টেস্ট। একটা বিদায় সংবর্ধনা চান তিনি। তাই আগামী মাসে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজের চতুর্থ ও শেষ টেস্টটা খেলার ইচ্ছা প্রকাশও করেছেন। কারণ ওই টেস্টটি অনুষ্ঠিতে হবে শেবাগের নিজ মাঠ দিল্লির ফিরোজ শাহ কোটলায়। এ জন্য আবেগপ্রবণ কন্ঠে এমন বিদায়ী ম্যাচ খেলার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন শেবাগ, ‘দীর্ঘদিন খেলা খেলোয়াড়ের বিদায় সংবর্ধনা ম্যাচ কি পাওয়া উচিত নয়! কর্তৃপক্ষ চাইলে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে শেষ টেস্টে আমাকে সুযোগ দিতে পারে।’

২০০৬ সালে ওয়ানডে অভিষেক হয় শেবাগের, এরপর ২০০১ সালে টেস্ট অঙ্গনে পা রাখেন তিনি। তবে খুব দ্রুতই বিশ্ব ক্রিকেটে নিজের জাত চিনিয়েছেন শেবাগ। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে ব্যাটিং-এর শুরুতে দ্রুত রান তুলে, প্রতিপক্ষ বোলারদের উপর চাপ সৃষ্টি করাটা তার স্বভাবে রূপ নিয়েছিল। সেই সাথে নিজের ক্যারিয়ারের পরিসংখ্যানটাও শক্তপোক্ত করে ফেলেন শেবাগ। ফলে ভারতীয় দলের খুবই গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় হয়ে যান। তার প্রমাণটা ২০১১ বিশ্বকাপেই দিয়েছেন তিনি।

ভারতের বিশ্বকাপ জয়ে তার অবদানও ছিলো চোখে পড়ার মতো। কিন্তু বিশ্বকাপের পরই তার ক্যারিয়ারের মোড় ঘুড়ে যায়। পারফরম্যান্সের গ্রাফটা নিম্নমুখী হওয়ার ফলে দল থেকেও বাদ পড়তে হয় তাকে। তাই ২০১৩ সালটি হয়ে দাঁড়ায় শেবাগের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ক্যারিয়ারের শেষ বছর।

জাতীয় দলের হয়ে ১২-১৩ বছরের বেশি খেলার পরও বিদায়ী সবংবর্ধনা না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ শেবাগ। সরাসরি কাউকে উদ্দেশ্য করে না বললেও, ক্ষোভের সাথেই বিদায় সংবর্ধনা ম্যাচ খেলার কথা বলেছেন তিনি, ‘১২-১৩ বছর জাতীয় দলে হয়ে খেলা খেলোয়াড়ের কি বিদায়ী সংবর্ধনা ম্যাচ পাওয়া উচিত নয়?’

অবশ্য ওই প্রশ্নের উত্তরের জন্য অপেক্ষাও করেননি শেবাগ। বিদায় সংবর্ধনা ম্যাচ খেলার ইচ্ছাটাও ভালোভাবে জানিয়ে দিয়েছেন তিনি, ‘ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের চতুর্থ ম্যাচটি হবে দিল্লিতে। ওই ম্যাচটিতে আমাকে সুযোগ দেয়া যেতে পারে। যদি সেটা সম্ভব হয় তবে ভালো। যদি বিসিসিআই তা ব্যবস্থা করতে না পারে, তবে দিল্লি ক্রিকেট কর্তপক্ষ তা করতে পারে। যদি বলা হয়, শুধুমাত্র আমার জন্যই? আমি বলবো না, এমন ব্যবস্থা সকল খেলোয়াড়ের জন্যই করা উচিত।’

অবসরের পরও বিদায়ী সংবর্ধনা ম্যাচ খেলার কথা বর্তমানে তৈরি হতো না। যদি আগেই শেবাগকে জানিয়ে দেয়া হতো, দলে তার আর প্রয়োজন নেই। এ নিয়ে শেবাগ বলেন, ‘যদি নির্বাচকরা আগেভাবেই বলতেন, আমাকে দলে রাখবে না, আমাকে নিয়ে আর কোন চিন্তা নেই তাদের, তবে আমি বলতাম, দিল্লিতে যেকোন একটি টেস্ট খেলেই অবসর নিয়ে নেবো। কিন্তু আমাকে সেই সুযোগও দিলেন না নির্বাচকরা। এই দুঃখটা প্রত্যকের মত আমারও থাকবে। যদি শেষ পর্যন্ত না খেলতে পারি। তবে আশা করছি কিছু একটা হবে।’


ঢাকা, নভেম্বর ০১(বিডিলাইভ২৪)// এম এস
 
        print



মোবাইল থেকে অ্যাপস ডাউনলোড করুন
android iphone windows




bdlive24.com © 2010-2014
Powered By: NRB Investment Ltd.