বৃষ্টির প্রভাব পড়েছে ঈদ কেনাকাটায়
বৃষ্টির প্রভাব পড়েছে ঈদ কেনাকাটায়

আষাঢ় মাসের রিমঝিম বৃষ্টি ও যানজট ঈদ কেনাকাটায় দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে ময়মনসিংহের ক্রেতাদের। ফুটপাত অনেকটা ক্রেতা শূন্য হলেও অভিজাত মার্কেটগুলোতে ছিল ভিন্ন চিত্র।

সোমবার সকাল থেকে বৃষ্টির কারণে ময়মনসিংহে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। সারা দিন বৃষ্টি হওয়ার কারণে ফুটপাতে পসরা সাজিয়ে বসতে পারেনি হকাররা। এতে করে নিম্ন আয়ের মানুষরা বিপাকে পড়েছে। এরই মাঝে প্রথম ও দ্বিতীয় সপ্তাহে বৃষ্টির হানায় বেকার সময় কাটিয়েছেন ব্যবসাযীরা।

নিম্নচাপের প্রভাবে গত রোববার রাত থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টি সোমবারও চলতে থাকায় ক্রেতা খরার মধ্য দিয়েই গেছে ময়মনসিংহের বিপণি বিতানগুলো। সামনের দিনগুলোতেও এমন অবস্থা চলার শঙ্কায় পড়েছেন বিক্রেতারা। তারা বলছেন, রোজা শেষে প্রত্যাশা-প্রাপ্তির হিসাবে হতাশাই হয়তো বাড়বে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা এক হাজার টাকায় কেনা কাপড় তিন থেকে চারগুণ বেশি দামে বিক্রি করছে। দর কষাকষির মধ্যে পণ্যের ক্রয় মূল্যের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি দাম চাওয়া হয়। দেখা যায়, পাঁচ হাজার টাকা চাওয়া কাপড় দর কষাকষির এক পর্যায়ে ১ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়।

এবার ঈদের বিকিকিনিতে তেমন সাড়া মিলছে না জানিয়ে ব্যাবসায়ী এনামুল হক বলেন, বেতন না পাওয়ায় রোজার প্রথমে কাস্টমার ছিল না। আর এখন বিক্রির সময়টাতে হচ্ছে বৃষ্টি। ঈদে তো কেনাকাটা করতে হবে, তাই কিছু ক্রেতা চলে আসছে। তবে উপজেলা গুলো থেকে এখনও আসতে শুরু হয় নাই।

নগরীর সানকিপাড়া এলাকা থেকে কেনাকাটা করতে আসা হাসিনা আক্তার বলেন, কয়েকদিন পরই ঈদ। কয়েকটা দিনই হাতে আছে, বাড়ির সবার জন্য তো কেনাকাটা করতে হবে। পরে সময় হবে না, তাই আসতে হলো।

তবে ঈদ বাজারে নতুন কালেকশনের নামে পুরাতন বা নিম্নমানের পণ্য বিক্রির অভিযোগ ক্রেতাদের। ক্রেতাদের এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।

প্রতারণা ঠেকাতে বাজার মনিটরিং করতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বাজার নিয়ন্ত্রণের জন্য জেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন ক্রেতারা।

ঢাকা, জুন ১৯(বিডিলাইভ২৪)