সর্বশেষ
বৃহঃস্পতিবার ২০শে ফাল্গুন ১৪২৭ | ০৪ মার্চ ২০২১

পম্পেওর বক্তব্যের প্রতিবাদ বাংলাদেশের

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ১৪, ২০২১

21.jpg ছবি উৎস : সংগৃহীত
বিডিলাইভ ডেস্ক :

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইকেল আর পম্পেওর সাম্প্রতিক এক মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ। পম্পেও বাংলাদেশকে এমন এক স্থান হিসেবে উল্লেখ করেছেন, যেখানে আবারও সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আল-কায়েদা ভবিষ্যতে হামলা চালানোর আশঙ্কা করেন। একজন প্রবীণ নেতার এমন দায়িত্বহীন মন্তব্য অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক এবং অগ্রহণযোগ্য বলে উল্লেখ করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বুধবার (১৩ জানুয়ারি) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানায়।

এতে উল্লেখ করা হয়, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সাম্প্রতিক এক বিবৃতি বাংলাদেশ সরকারের দৃষ্টি আকর্ষিত হয়েছে। বিবৃতিতে মাইক পম্পেও বাংলাদেশকে এমন এক স্থান হিসেবে উল্লেখ করেছেন, ‘যেখানে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আল-কায়েদা রয়েছে, একই সঙ্গে ভবিষ্যতে এ গোষ্ঠী এখানে সন্ত্রাসী হামলা চালাতে পারে। ’ একজন সিনিয়র নেতার এমন দায়িত্বহীন মন্তব্য অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক এবং অগ্রহণযোগ্য।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, পম্পেওর এ ধরনের ভিত্তিহীন মন্তব্যকে বাংলাদেশ তীব্রভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে। বাংলাদেশে আল-কায়দার উপস্থিতির প্রমাণ নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী নেতৃত্বে বাংলাদেশ সকল প্রকার সন্ত্রাসবাদ এবং সহিংস চরমপন্থার বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি বজায় রেখেছে এবং এই বিপর্যয় মোকাবেলায় সম্ভাব্য সকল পদক্ষেপ ও পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। বাংলাদেশ মনে করে যে মার্কিন সেক্রেটারি অফ স্টেট বাংলাদেশকে আল-কায়েদা অভিযানের সম্ভাব্য অবস্থান হিসেবে যে উল্লেখ করেছেন, তা ভিত্তিহীন এবং এর প্রমাণ নেই।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, সন্ত্রাসবাদ ও উগ্রবাদের প্রতি বাংলাদেশ জিরো টলারেন্স মনোভাব পোষণ করে এবং এটি প্রতিরোধের জন্য সবধরনের উদ্যোগ ও পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। সরকার মনে করে, বাংলাদেশে আল কায়েদার কর্মকাণ্ড আছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন মন্তব্য ভিত্তিহীন এবং এ সম্পর্কে কোনও প্রমাণ নেই।’

উল্লেখ্য, গত ১২ জানুয়ারি ওয়াশিংটন প্রেস ক্লাবে এক বক্তৃতায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এ মন্তব্য করেন। 


ঢাকা, বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ১৪, ২০২১ (বিডিলাইভ২৪) // এস বি এই লেখাটি ৫৯৮ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন